শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পিতার কাছে এখন পুত্র শব্দটি ভয়ংকর

Father বয়সের ভারে ন্যুব্জ হয়ে যাওয়ায় ছেলের কাছে বোঝা হয়ে গেছেন এক পিতা।
কর্মহীনতার অপরাধে ময়লা আবর্জনার স্তুপ ডাস্টবিনে নিজের সন্তান ফেলে দিয়ে গেছে  জন্মদাতা পিতাকে।  যে পিতা তাকে কোলে পিঠে করে বড় করছেন,
গিয়াস উদ্দিন নামে অসহায় এই পিতার বর্তমানে ঠাঁই হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিকেল ২-এর ৬০২ নম্বর ওয়ার্ডে।

এক পথচারী তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান । গত মঙ্গলবার রাতে জুরাইনের খাদ্য অধিদপ্তরের সামনে এই ঘটনা ঘটে।

উদ্ধারকারী জুরাইনের কাপড় ব্যবসায়ী মেহেদী হাসান জানান, মঙ্গলবার রাতে পশ্চিম জুরাইনের মুন্সিবাড়ি খাদ্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পাশে তিনি দাঁড়িয়ে ছিলেন। তখন কঙ্কালসার এক বৃদ্ধকে দেখেন ডাস্টবিনে পড়ে আছেন। এই অবস্থা দেখে খারাপ লাগে তার। পাশে গিয়ে দাঁড়ান। জিজ্ঞেস করেন, আপনার কি হয়েছে? এখানে কি করে এলেন? অস্পষ্ট  স্বরে জবাব দেন বৃদ্ধ, চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেয়ার কথা বলে ছেলেরাই ডাস্টবিনে ফেলে গেছে তাকে।

এ কথা শুনে মেহেদী আরো জানতে চান, আপনার ছেলে কয়টা? কি করে? তখন তিনি জানান, তার দুই ছেলে। একজনের নাম শাহজালাল। একথা বলার পর আর কিছু বলতে পারলেন না তিনি। এর পর মেহেদী হাসান শ্যামপুর থানায় সংবাদ দিলে হতভাগ্য এই পিতাকে পুলিশ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। তখন কথা বলার কোন ক্ষমতাই ছিল না গিয়াসউদ্দিনের । চেক লুঙ্গি আর তেল চিটচিটে সাদা পাঞ্জাবি পরা শ্যামবর্ণের কঙ্কালসার শরীরটি পড়েছিল জ্ঞান হারিয়ে। মেহেদী হাসান আরও বলেন, বৃদ্ধের মুখে বার বার একটি কথাই ‘আমি বোঝা হয়ে গেছি’ এই বলে বিলাপ করছেন আর কাঁদছিলেন তিনি।

বৃদ্ধ গিয়াসউদ্দিন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছেন। অসুস্থতা বেড়ে গেলে গত সোমবার সন্ধ্যায় হাসপাতালে ভর্তি করার কথা বলে ঢাকা নিয়ে আসা হয়। অনেক রাত পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে ঘোরানোর পর ওখানে বসিয়ে রেখে খাবার আনার কথা বলে চলে যায় তারা।

বৃদ্ধের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে আর বেশি কিছু বলতে পরেননি তিনি।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, তিনদিন হয়ে গেল বৃদ্ধ গিয়াসউদ্দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এখনও কেউ তার খবর নেয়নি। হাসপাতালে মেঝেতে অসহায় এই বৃদ্ধ বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে আছেন। এখন তিনি অস্পষ্টভাবে কথা বলছেন। তাকে দেখাশোনা করছে সেই উদ্ধারকারী মেহেদী হাসান ও কজন সাধারণ মানুষ।

শ্যামপুর থানার ওসি মো নুরে আজম মিয়া যমুনা নিউজকে জানান, এখোনো তার পরিরারের কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি তবে গিয়াসউদ্দিন সুস্থ হলে তার কাছ থেকে ঠিকানা পাওয়া গেলে তিনি যে কথাগুলো বলেছেন তার ভিত্তিতে  অনুসন্ধান  চলছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email