শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পেট্রোল বোমার আগুনে পুড়ে গেছে নিহত রশিদের স্ত্রীর ও মেয়েদের মুখে ভাত তুলে দেয়ার স্বপ্ন

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, বীরগঞ্জ প্রতিদিন : রাহিলা আকতার (৬) প্রথম শ্রেণীতে পড়ে।তিন দিন ধরে আলু সিদ্ধ খেয়েছিল। ভাত খেতে চাইলে বাবা বাড়ী থেকে কাজে যাওয়ার সময় তাকে বলে গিয়েছিল চাল নিয়ে আসবে, তার পর ভাত রান্না হবে, সবাই মিলে এক সাথে ভাত খাবে। মা‘কে যেন বিরক্ত না করে। মঙ্গলবার সে জানতে পারে বাবা আসবে। শুনে সে সারা দিন আশে পাশে সবাইকে বলে বেড়িয়েছে তার বাবা চাল নিয়ে আসবে। সে ভাত খাবে।

বাবা বাড়ীতে ফিরেছে, কিন্তু তার জন্য চাল নিয়ে আসেনি। এ জন্য সে অভিমান করে বাবার সাথে আড়ী পেতেছে,সে আর বাবার সাথে কথা বলবেনা। অবুঝ এই শিশুটি এখনো বুঝতে পারেনি তার বাবা চলে গেছে না ফেরার দেশে। আজ বুধবার যখন খবর সংগ্রহ করার জন্য এই প্রতিবেদক তাদের বাড়ীতে যায়,তখনো ছবি তুলবো শুনে খুশিতে হাসছিল,তার ছবি তোলা হবে।

জোহরের আযান পড়ছে। ঠিক সে সময় আমরা কয়েকজন সাংবাদিক পেট্রেল বোমার আগুনে পুড়ে নিহত দিনাজপুর সদর উপজেলার ৬ নং আউলিয়াপুর ইউনিয়নের মামুদপুর গ্রামে আব্দুর রশিদ(৩৮) এর বাড়ীতে উপস্থিত হলাম। বাড়ীতে গিয়ে দেখলাম কেউ নেই।

 

আমাদেরকে দেখার পর নিহত আব্দুর রশিদের চাচাতো বোন আর্জিনা বেগম এগিয়ে এসে জানালো, নিহত আব্দুর রশিদের স্ত্রী সুলতানা বেগম স্বামীর ব্যবহারীত কাপড় কাচাঁর জন্য গ্রামের পাশ দিয়ে প্রবাহীত পূর্ণভবা নদীতে গেছেন। চার কন্যা সন্তানের মধ্যে ছোট দুই মেয়ে আফসানা মিমি (১৩) ও রাহিলা আকতার (৬) তরকারীর জন্য ঘিমা শাক তুলতে নদীর ধারে গেছে। বড় দুই মেয়ে রোজিনা (২০) ও আদুরী (১৮) বাবার দাফন হবার পর রাতেই চলে গেছে শশুড় বাড়ী।

 

খবর পেয়ে আব্দুর রশিদের স্ত্রী ও দুই মেয়ে আমাদের কাছে এসে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। এক পর্যায় শান্ত হয়ে আব্দুর রশিদের স্ত্রী জানায়,কেউ তাদের খবর নিতে আসেনি। বাড়ীতে চুলা জ্বলেনি। অবরোধের কারণে তিন দিন ধরে আলু সিদ্ধ খেয়ে থাকার পর নিরম্নপায় হয়ে তার স্বামী কাজে গিয়েছিল সন্তানদের মুখে ভাত তুলে দেয়ার জন্য। তৃতীয় কন্যা আফসানা মিমি বাবাকে বলেছিল তারা না খেয়ে থাকবে হরতার অবরোধের মধ্যে গাড়ীতে কাজ করতে যাওয়ার দরকার নেই। কিন্তু পিতার মন তা মানেনি। সমত্মানদের মুখের দিকে চেয়ে না থাকতে পেরে আব্দুর রশিদ বাধ্য হয়ে জীবনের ঝুকি জেনেও কাজে গিয়েছিল। আমরা য়খন কথা বলছিলাম তখনো রাহিলা আকতারের হাতে নদীর ধার থেকে তরকারীর জন্য তুলে নিয়ে আসা ঘিমা শাক হাতে ছিল।

 

আব্দুর রশিদের স্ত্রী সুলতানা বেগম জানায়,দ্বিতীয় মেয়ে আদুরীর বিয়ে হয়েছে এক বছর হয়নি। সে এখন গর্ভবতী। মেয়ের শশুড় ও জামাই মাটি দিয়ে যাওয়ার সময় যৌতুকের বকেয়া টাকা না দিলে মেয়েকে মায়ের কাছে রেখে যাবে বলে গেছে। এখন তিনি ছোট দুই মেয়েকে কি খাওয়াবেন,কেমন করে পড়া লেখা করাবেন ও কি ভাবে আদুরীর বিয়েতে দিতে চাওয়া যৌতুকের বকেয়া ৩৫ হাজার টাকা পরিশোধ করবেন। এই চিমত্মায় আকাশ যেন তার মাথায় ভেঙ্গে পড়ছে।

 

বড় মেয়ে রোজিনার জামাই নাজমুল ইসলাম জানায়, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৫ দিনে তার শশুড়ের চিকিৎসা চলা কালে কেই তার খবর নিতে আসেনি। এমন কি ট্রাকের মালিক শহরের ঈদগাহবস্তি এলাকার মিজানুর রহমান মিজানো তাদের খবর নেয়নি। চড়া সুদে টাকা নিয়ে শশুড়ের চিকিৎসা করিয়েছেন। মারা যাওয়ার পর প্রতিবেশী চাচা শশুর রংপুর থানা পুলিশের এস আই নুর নবী এ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে লাশ নিয়ে দিনাজপুরে এসে দাফনের ব্যবস্থা করে দিয়ে গেছেন।

 

Rashid-02নিহত আব্দুর রশিদের স্ত্রী সুলতানা বেগমের কাছে শাশুড়ী কথায় জানতে চাইলে তিনি জানান,তার শাশুড়ী জুলেখা বেওয়া (৭০) মানুষের বাসায় কাজ করেন। সন্তান হারানোর শোক মাথায় নিয়ে পেটের দায়ে কাজ করতে গেছে।

নিহত আব্দুর রশিদের পরিবারের খবর নিতে আসা স্থানীয় ইউপি সদস্য সারাওয়ার জামান জানান,তিনি চেষ্টা চালাচ্ছেন কি ভাবে পরিবারটিকে সরকারী ভাবে সহায়তা নিয়ে দেয়া যায়। তিনি আব্দুর রশিদের স্ত্রী সুলতানা বেগমকে একটি বিধবা ভাতার কার্ড করে দিবেন বলে জানান।

 

এ ব্যাপারে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রহমান জানান,পরিবারটিকে সরকারী সহায়তার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব তাদের হাতে সহায়তার চেক তুলে দেয়া হবে।

 

উল্লেখ্য গত ২৩ জানুয়ারী ট্রাক নিয়ে সৈয়দপুর থেকে ফেরার পথে দিনাজপুর চিরিরবন্দরের ভুষিবন্দর নামক স্থানে দূবৃত্তদের ছোড়া পেট্রেল বোমার আঘাতে চালক ও চেলপার আব্দুর রশিদ ঝলসে যায়। আহত অবস্থায় তাদেরকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত মঙ্গলবার ভোর ৩ টা ৪৫ মিনিটে আব্দুর রশিদ মারা যায়।

 

Spread the love