শুক্রবার ২৭ মে ২০২২ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পেট্রোল বোমায় মানুষ হত্যা বন্ধ করুন : রওশন এরশাদ

জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ দেশে চলমান হরতাল-অবরোধের নামে পেট্রোল বোমা দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এ ধরনের অবস্থা বন্ধে সরকারের নেয়া যে কোন ধরনের পদক্ষেপের প্রতি তাদের পূর্ণ সমর্থন ও সহযোগিতা থাকবে।

সোমবার জাতীয় সংসদে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে উপরোক্ত মন্তব্য করে বলেন, এভাবে হরতাল-অবরোধের নামে পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা চলতে পারে না।

যে কোন মূল্যে এই নৈরাজ্যকর অবস্থা বন্ধ করতে হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ। সাংবিধানিকভাবে নির্বাচিত গণতান্ত্রিক সরকার দেশ পরিচালনা করছে। অথচ আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামায়াতের নাশকতা শুধু দেশের ক্ষতিই করছে না, আর্ন্তজাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ভাবমূর্তিও ক্ষুন্ন করছে। তিনি বলেন, দেশে সুস্থ গণতান্ত্রিক ধারা পরিচালিত হবে, এটাই জনগণ প্রত্যাশা করে। দেশের মানুষ নিজেদের মতো আয়-রোজগার করে শান্তিতে বসবাস করতে চায়। কিন্তু হরতাল-অবরোধের নামে বর্তমান নৈরাজ্যজনক পরিস্থিতিতে জনগণ রাজনীতিবিদদের ওপর আস্থা হারাচ্ছে। মানুষ এখন নিজের কাজে যেতে পারছে না। সব সময় একটা আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে তাদেরকে। এ অবস্থা চলতে দেয়া যায় না।

রওশন বলেন, হরতাল-অবরোধ দাবি আদায়ের একটি পন্থা। কিন্তু ২০ দলীয় জোট যা করছে, এতে মানুষ অতীষ্ঠ। অবরোধের নামে বাসে, গাড়িতে পেট্রোল বোমা মারাসহ রাস্তাঘাটে বোমা মেরে মানুষের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি করা হচ্ছে। এতে মানুষ আতঙ্কিত। এ পর্যন্ত ১০০ জনেরও বেশি মানুষ এ সহিংসতায় মারা গেছে। তিনি বলেন, ৪১ দিনে হরতাল-অবরোধের নামে ২০ দলীয় জোটের সহিংসতায় অনেক ক্ষতি হয়েছে। শ্রমিকরা কাজ পাচ্ছে না। কৃষকরা তাদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে পারছে না। তাদের পরিবারের ছোট ছেলে-মেয়েসহ অন্যান্য সদস্যরা খেয়ে-না খেয়ে দিনাতিপাত করছে। বস্ত্র খাত অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছে। বিদেশী বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া ব্যাহত হচ্ছে। ১৫ লাখ এসএসসি পরীক্ষার্থী উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছে। উচ্চ শিক্ষায় সেশনজট সৃষ্টি হচ্ছে। বিএনপি-জামায়াত জোটের তথাকথিত আন্দোলনে এ পর্যন্ত দেশের যে পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হয়েছে, তা দিয়ে ২টি পদ্মা সেতু নির্মাণ করা যেতো।

বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, এ হরতাল-অবরোধ বন্ধের একটি উপায় খুঁজে বের করতেই হবে। জনগণের জানমাল রক্ষা করা সরকারের দায়িত্ব। জনগণ এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ চায়। বেগম খালেদা জিয়াকে ভোটের রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নাশকতা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে সরকার পরিবর্তন করা যায় না। পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা বন্ধ করুন, জনগণের জন্য কাজ করুন, জনগণের ভোটেই সরকার পরিবর্তন হতে পারে।

এদিকে পয়েন্ট অব অর্ডারে জাসদের শিরীন আক্তার বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতারের দাবি জানান।
বিএনএফর সদস্য এস এম আবুল কালাম আজাদ গুলশান-বারিধারা কূটনৈতিক এলাকা থেকে রাজনৈতিক দলের অফিস সরিয়ে নেয়ার দাবি জানিয়ে বেগম খালেদা জিয়ার অফিস বন্ধের পাশাপাশি বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের কার্যালয়ও সরিয়ে নেয়ার দাবি জানান।

তার এ বক্তব্যে জাতীয় পার্টির সদস্যরা হৈ চৈ শুরু করলে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। তিনি বলেন, আবুল কালাম আজাদের বক্তব্যটি পরীক্ষা করে এর মধ্যে কোন অসংসদীয় বক্তব্য থাকলে তা এক্সপাঞ্জ করা হবে। পরে পয়েন্ট অব অর্ডারে জাতীয় পার্টির সদস্য জিয়াউদ্দিন বাবলু ও শওকত চৌধুরী বক্তব্য রাখেন। তারা আবুল কালাম আজাদের বক্তব্য এক্সপাঞ্জ করার দাবি জানান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email