সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রতিবাদে উত্তাল নারায়ণগঞ্জ : বিজিবি মোতায়েন

Naragonjঅপহরণের পর হত্যার প্রতিবাদে

ক্ষোভে-

বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে

নারায়ণগঞ্জ।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কয়েকটি স্থানে

ব্যারিকেড দিয়ে অবরোধ, অগ্নিসংযোগ,

গাড়ি ভাংচুর করে। আওয়ামী লীগের

কাউন্সিলর নজরুলের সমর্থকরা।

অপহৃতদের লাশ উদ্ধারের পর আজ

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ঢাকা-চট্টগ্রাম

মহাসড়ক অবরোধ করে রেখেছে

এলাকাবাসী। এতে ওই সড়ক দিয়ে যান

চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে

রাখতে নারায়ণগঞ্জে বৃহস্পতিবার সকাল

থেকে দুইশ বিজিবি সদস্য মোতায়েন করা

হয়েছে।

এদিকে সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজির কয়েক

হাজার মানুষ মামলার এজাহারভুক্ত

আসামিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে

বুধবার বিকেল ৫টা থেকে ফের

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ও

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে।

তারা সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাক, সানারপাড় ও

লিংকরোড (সাইনবোর্ড) মহাসড়কে টায়ার

জ্বালিয়ে অগ্নিসংযোগ করে। সন্ধ্যার পরে

এজাহারভুক্ত ২নং আসামি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক

ইয়াছিনের শ্যামস ফিলিং স্টেশনে নজরুল

সমর্থকরা অগ্নিসংযোগ করে।

নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মনোজ কান্তি

বড়াল জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি

নিয়ন্ত্রণে আজ সকাল থেকে নারায়ণগঞ্জে

বিজিবির ২০০ সদস্য মোতায়েন করা

হয়েছে।

সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক রফিউর

রাব্বি বলেন, ত্বকী হত্যাকারীদের শনাক্ত

করা গেলে এভাবে আর অপহরণের ঘটনা

ঘটত না। তা না হওয়ায় নারায়ণগঞ্জে একের

পর এক হত্যা, গুম আর অপহরণের ঘটনা

ঘটছে। এতে করে নারায়ণগঞ্জ আজ এক

আতঙ্কের জনপদে পরিণত হয়েছে।

কাউন্সিলর নজরুল ও আইনজীবী চন্দন

সরকারসহ ৭ জন অপহরণের মাত্র ১১ দিন

আগে বেলার প্রধান নির্বাহী সৈয়দা

রিজওয়ানা হাসানের স্বামীকে অপহরণ করা

হয়। আবার ছেড়েও দেওয়া হলো। ওই

ঘটনায় জড়িতদেরও যদি সশনাক্ত করা যেত

তাহলে নজরুল, চন্দন সরকাররা অপহরণ

হতো না।

নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি

এডভোকেট এবি সিদ্দিক বলেন, আমি

বাকরুদ্ধ এবং মর্মাহত। তিনি প্রশ্ন রেখে

বলেন, এভাবে একের পর এক হত্যায় কার

লাভ হচ্ছে? এ বিষয়গুলো নিয়ে সরকার কী

চিন্তা করছে?

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জ থেকে গত রবিবার

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে এক দল

লোক একসঙ্গে সাত ব্যক্তি অপহরণ করে।

অপহৃতরা হলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি

করপোরেশনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের

কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ নজরুল

ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন,

তাজুল ইসলাম, লিটন, নজরুলের

গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী

চন্দন কুমার সরকার ও তার ব্যক্তিগত

গাড়ির চালক ইব্রাহিম। গতকাল দুপুরে

শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ৬ জনের লাশ উদ্ধার

করা হয়। অরপদিকে বৃহস্পতিবার সকাল

৭টার দিকে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী

থেকে আরো একটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

লাশটি প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের

গাড়িচালক জাহাঙ্গীরের বলে ধারণা করা

হচ্ছে। নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার

কলাগাছিয়া ইউনিয়নের শান্তিনগর এলাকা

সংলগ্ন শীতলক্ষ্যা নদীতে লাশটি ভেসে উঠে।

উল্লেখ্য গতকাল বুধবার ৬ জনের লাশ

উদ্ধারের পর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের

সিদ্ধিরগঞ্জের মৌচাক থেকে সানারপাড়

পর্যন্ত অবরোধ করে নজরুলের সমর্থকরা

যানবাহন ভাংচুর, যানবাহন ও

পেট্রোলপাম্পে অগ্নিসংযোগ করে। এতে ৮

কিলোমিটারে সব ধরনের যানবাহন চলাচল

বন্ধ হয়ে যায়। রাত ১০টায় এ রিপোর্ট লেখা

পর্যন্ত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানবাহন

চলাচল বন্ধ ছিল। যানজট ছড়িয়ে পড়ে

মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারের উপরেও। চট্টগ্রাম

থেকে ঢাকাগামী যানবাহনগুলো বিকল্পপথ

ব্যবহার করে ডেমরার সুলতানা কামাল

সেতুর ওপর দিয়ে যাতায়াত করছে। তবে

অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে সেই সড়কেও

যানজট দেখা দেয়। এতে করে মানুষ

দুর্ভোগে পড়ে। শীতলক্ষ্যা ও ধলেশ্বরী যেন

লাশের ডাম্পিং জোনে পরিণত হয়েছে।

শীতলক্ষ্যা আর মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদী

থেকে নিয়মিত লাশ উদ্ধার হচ্ছে। শুধু

মুন্সীগঞ্জের ধলেশ্বরী নদী থেকে ২০১১ ও

২০১২ সালে ৩০টি লাশ উদ্ধার করা হয়।

শীতলক্ষ্যা থেকে মেধাবী ছাত্র তানভীর

মুহাম্মদ ত্বকী, নাট্যকার দিদারুল আলম

চঞ্চল, ব্যবসায়ী ভুলু সাহাসহ অনেকের লাশ

উদ্ধার হয়েছে। চলতি মাসেই শীতলক্ষ্যা

থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় দুজনের লাশ

উদ্ধার করে বন্দর থানা পুলিশ। যাদের

পরিচয় আজও অজানা।