সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রী লন্ডন পৌঁছেছেন

Pm-ooooপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডন পৌঁছেছেন। তাকে বহনকারী বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট সোমবার বিকালে লন্ডনের হিথরো বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এ সময় বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান যুক্তরাজ্যের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিভাগের (ডিএফআইডি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক পরিচালক এন্থনি স্মিথ, বাংলাদেশে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত রবার্ট গিবসন এবং যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ মিজারুল কায়েস। বিমানবন্দরে উষ্ণ অভ্যর্থনা শেষে প্রধানমন্ত্রীকে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে লন্ডনের হিলটন হোটেলে নিয়ে যাওয়া হবে। সফরকালে প্রধানমন্ত্রী সেখানেই অবস্থান করবেন। যুক্তরাজ্যে  প্রথমবারের মতো আয়োজিত গার্ল সামিটে যোগ দিতে তিন সেখানে গেছেন। প্রসঙ্গত ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় নিযে টানা ২য় মেয়াদে ক্ষমতা গ্রহণের পর যুক্তরাজ্য বা ইউরোপের কোন দেশে এটিই শেখ হাসিনার প্রথম সফর।
এর আগে প্রথম গার্ল সামিটে যোগদানের লক্ষ্যে ৩ দিনের সরকারি সফরে লন্ডনের উদ্দেশ্যে আজ সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রী ঢাকা ত্যাগ করেন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ও ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক এন্থনি লেক-এর আমন্ত্রণে তিনি যুক্তরাজ্য সফরে যান। আগামিকাল মঙ্গলবার যুক্তরাজ্যের রাজধানীতে অনুষ্ঠেয় এ সামিটে প্রধানমন্ত্রী উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ২০ সদস্যবিশিষ্ট বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। আজ সকাল পৌনে ১০টায় বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করে। ফ্লাইটটি লন্ডনের স্থানীয় সময় বিকেল ৪টার দিকে লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরে অবতরণ করেছে।
এদিকে বিমানবন্দরে সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, শিল্পমন্ত্রী আমীর হোসেন আমু, বেসরকারি বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো: শাহরিয়ার আলম ও জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ এএসএম ফিরোজ অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান। এসময় মন্ত্রিপরিষদ সচিব এম মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া, তিন বাহিনীর প্রধানগণ, ডিপ্লোমেটিক কোরের ডিন এবং উচ্চপদস্থ বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
ফিমেল জেনিটাল মিউটিলেশন (এফজিএম) এবং শিশু, বাল্য ও জোরপূর্বক বিবাহ (সিইএফএম) অবসানে যুক্তরাজ্য সরকার এবং ইউনিসেফ যৌথভাবে এযাবতকালের প্রথম এই গার্ল সামিট আয়োজন করছে। এ বৈঠক বালিকাদের বাল্য ও জোরপূর্বক বিবাহ বন্ধ, নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতার অবসান, নিরাপদ শিশু জন্মদান, নারীর কর্মসংস্থান, শিক্ষা এবং ভূমি ও উত্তরাধিকার প্রাপ্তিতে আইন সংস্কারেও সহায়তা করবে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৫২টি দেশের প্রতিনিধিরা এ সামিটে যোগ দিচ্ছেন।
প্রধানমন্ত্রীর একটি উচ্চপর্যায়ের অধিবেশনে যোগদান এবং বার্কিনা ফাসোর ফার্স্ট লেডি চান্টাল কম্পাওরে ও পাকিস্তানের বিখ্যাত শিক্ষা অনুরাগী মালালা ইউসুফ জাইর সঙ্গে আলোচনার কর্মসূচি রয়েছে। উচ্চপর্যায়ের অধিবেশনটি সঞ্চালন করবেন ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক এ্যান্থনি লেক। এ সফরকালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হবেন। এতে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক ও বহুপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
এছাড়া শেখ হাসিনা যুক্তরাজ্যের বেশ কয়েকজন মন্ত্রী এবং পার্লামেন্টে বিরোধী দলের ছায়া মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন। এদের মধ্যে রয়েছেন- যুক্তরাজ্যের বৈদেশিক উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী জাস্টিন গ্রিনিং এবং ছায়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডগলাস আলেকজান্ডার। বুধবার স্বদেশ ফেরার প্রাক্কালে প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীদের একটি কমিউনিটি কর্মসূচিতে অংশ নেবেন। বৃহস্পতিবার সকালে তিনি দেশে ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।
বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ নির্মূলের দৃঢ় অঙ্গীকারের কথা সামিটে তুলে ধরা হবে। সরকারি সূত্র জানিয়েছে, প্রতিনিধিদলের সদস্যরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে বাল্যবিবাহ রোধে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরবেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী রবিবার তার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ সফর খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন অংশীদার এবং ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সে দেশের জনগণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।