বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দূর্ণীতির অভিযোগ

মাহাবুবা পলাশ বীথি, সাদুল্যাপুর (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ছান্দিয়াপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবদুর রহমানের বিরম্নদ্ধে সহকারী শিক্ষকদের সঙ্গে অসদাচরণ, উপবৃত্তির টাকা আত্নসাত, নৈশ্য প্রহরী নিয়োগে অর্থ বাণিজ্যেসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্ণীতির অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরে দেড়মাস আগে লিখিত অভিযোগ করলেও অদ্য পর্যমত্ম অভিযোগের কোন তদমত্ম বা ব্যবস্থা গ্রহন করেনি কর্তৃপক্ষ।

অভিযোগ বলা হয়েছে, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবদুর রহমান বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নামের উপবৃত্তি ও উপকরণের টাকা আত্নসাত, শিক্ষার্থীদের প্রসংশা পত্র প্রদানে অতিরিক্ত টাকা আদায় এবং কোচিং বাণিজ্যে করে আসছেন। তিনি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দাপট দেখিয়ে ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে অনিয়ম করে নিজেই একই সঙ্গে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও শিক্ষক প্রতিনিধি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। অপরদিকে বিদ্যালয়ের সভাপতি মহসিন আলীর যোগসাজসে মোটা অঙ্কের অর্থ বানিজ্যে করে সম্প্রতি নৈশ প্রহরী কাম-দপ্তরী নিয়োগ করেন। এছাড়া তিনি সহকারী শিক্ষকদের সঙ্গে প্রায়ই অসদাচরণ করেন বলেও অভিযোগে উলেস্নখ করা হয়।

 

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা জানান, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম ও দূর্ণীতি রোধ কল্পে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বরাররে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। কিন্তু শিক্ষা অফিসার অভিযোগটি তদন্ত না করে ফাইলবন্দি রাখেন। এ সুযোগে অভিযুক্ত শিক্ষক আবদুর রহমান তার সকল অনিয়ম ও দূর্ণীতি ধামাচাপা দিতে ওই ক্লাষ্টারের দায়িত্বরত উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার শফিকুর ইসলামের সাথে গোপন আতাত করেন। ফলে অদ্যবদি অভিযোগের তদমত্ম করেনি সহকারী শিক্ষা অফিসার শফিকুর ইসলাম।

 

সহকারী শিক্ষকরা আরো জানান, ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে পূর্বের অভিযোগ থাকা সত্বেও গত ৯ মার্চ সহকারী শিক্ষা অফিসার শফিকুর ইসলাম ম্যানেজিং কমিটি গঠনের জন্য নির্বাচনী তফসিল ঘোষনা করেন। এতে শিক্ষক, অভিভাবক ও স্থানীয় সুধি মহলের মধ্যে ক্ষোভ ও বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সুষ্ঠি হয়েছে। তারা নির্বচনী তফসিল বন্ধ করে অভিযোগের তদন্ত ও ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের অপসারন দাবি করেন। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা অনিয়ম ও দূর্ণীতির অভিযোগ অস্বীকার করেন। তবে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার শফিকুর ইসলাম অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন অভিযোগের তদন্তের দায়িত্ব আমাকে দেয়া হয়নি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email