শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রানের একুশের বই মেলা

ডেক্স নিউজ: বইমেলা প্রাণের মেলা। একুশের চেতনার সঙ্গে যুক্ত একটি মেলা। আমরাই পৃথিবীর একমাত্র জাতি যারা ভাষার জন্য রক্ত দিয়েছি। ফেব্রুয়ারী ভাষা আন্দেলনের মাস, একুশের গ্রন্থমেলার এযেন লেখক পাঠক প্রকাশক বই প্রেমী মানুষের জাতীয় উৎসব।

আজ আমরা বই মেলায় অংশ গ্রহন করলেও অনেকেই জানিনা কিভাবে এ জাতিয় গ্রন্থমেলার শুরু। স্বাধীনতার পর  ফেব্রুয়ারি মাসের ২১ তারিখে বাংলা একাডেমীতে বিশাল একটা প্যান্ডেল করে সেখানে  কবি সাহিত্যিক লেখকরা জড়ো হতো।

চিত্তরঞ্জন সাহা, পুঁথিঘর-মুক্তধারার সত্ত্বাধিকারী কিছু বই নিয়ে সাদা ফরাসের চাদর একাডেমী চত্বরের ঘাসে বিছিয়ে কিছু বই নিয়ে বসেছিলোন। সেই মানুষটির দেখাদেখি পরের বছর আরো কিছু প্রকাশক বইয়ের স্টল দিয়ে বসলেন। এভাবেই শুরু হয় বই মেলা। আর এখন তা আমাদের জাতীয় চেতনার একটি উৎসব হয়ে দাঁড়িয়েছে। সারা বছর লেখক-পাঠক-প্রকাশক অপেক্ষা করছেন এই বইমেলার জন্য।1391511903.

কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য দিনে দিনে  বাংলা একাডেমীর চত্বরটি ছোট হয়ে আসছে। একসময় ১০টি, ৫০টি বা ১০০টি স্টল মেলায় অংশ নিত। কিন্তু এখন সেই সংখ্যা বেড়েছে অনেক । সেই তলনায় বাড়েনি বাংলা একাডেমীর জায়গা বরং আগের চেয়ে জায়গা কমেছে।

এবার ঢাকা আন্তর্জাতিক বইমেলা এক অংশ বাংলা একাডেমীর গেটের উল্টো দিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্থান্তর করা হয়েছে। বিশাল একটা চত্বর নিয়ে মেলার আয়োজন করায় সস্থি প্রকাশ করেছে অনেকেই।

প্রতিবার বাংলা একাডেমীর সামনের রাস্তা ও বন্ধ করে দিয়ে মেলার আয়োজন করা হলে বই বিক্রির বদলে খাবারের দোকান, পোস্টার, ক্যাসেট ও অন্যান্য জিনিস সমারোহ ছিলো চেখে পড়ার মত।

এখন প্রকাশকের সংখ্যা যেমন বেড়েছে তেমনি বেড়েছে পাঠকের সংখ্যা বর্তমান সরকার বইপ্রেমী সরকার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও একজন লেখক। তিনি ভালো পাঠকও। বাংলা একাডেমীর বইমেলা নিয়ে তার এই পরিকল্পনাকে সাগতো জানেয়েছেন লেখক প্রকাশক পাঠক ।আর তাই সকলেই ধারনা এবারের বইমেলা আরো ব্যাপকও সুশৃংখল আকার ধারন করবে।

বাবা মায়েবা তাঁদের সন্তানদের নিয়ে আসেন বই মেলায় আর এই ক্ষুদে পাঠকদের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠছে এক শ্রেণীর নতুন পাঠক সংখ্যা।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email