মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফিলিপাইনে ঘূর্ণিঝড়ে নিহত ১০

05. Philippinesদ্বীপরাষ্ট্র ফিলিপাইনজুড়ে প্রবল ঘূর্ণিঝড় রামাসানের আঘাতে অন্ততপক্ষে ১০ জন নিহত হয়েছেন। ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডবে রাজধানী ম্যানিলার অর্থ বাজার, বিভিন্ন দপ্তর ও স্কুল-কলেজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

দূর্গত এলাকাগুলো থেকে ৩ লাখ ৭০ হাজার মানুষকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে গতকাল বুধবার জানিয়েছেন দেশটির কর্মকর্তারা।

এই ঘূর্ণিঝড়টি চলতি বছর দেশটিতে আঘাত করা সবচেয়ে শক্তিশালী ঝড়।

গতকাল বুধবার ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্র ম্যানিলার দক্ষিণ দিক দিয়ে পার হয়ে গেছে। এতে দেশটির বৃহত্তম দ্বীপ লুজোনের এক পাশ থেকে অপর পাশ পর্যন্ত উপড়ে পড়া গাছ ও বিদ্যুৎ খুঁটির একটি ধারা রেখে গেছে।

এতে ব্যাপক বিদ্যুৎহীনতার পাশাপাশি তড়িতাহতের ঘটনা ঘটেছে।

লুজোনের প্রধান সড়কগুলো ঝড়ের তান্ডবে উড়ে আসা বস্তুতে, উপড়ে পড়া গাছ ও বিদ্যুৎ খুঁটিতে অবরুদ্ধ হয়ে আছে।

ঝড়ে ম্যানিলায় গাছ শেকড়সুদ্ধ উপড়ে পড়েছে, রাস্তার পাশের পাম গাছগুলো ভয়ানকভাবে বাঁকা হয়ে গেছে এবং বিজ্ঞাপনের হোর্ডিংগুলো রাস্তায় আছড়ে পড়েছে।

তবে প্রবল ঝড় বয়ে গেলেও সঙ্গে বৃষ্টি না থাকায় রাজধানীর কোথাও বন্যা হয়নি বলে জানিয়েছেন ফিলিপাইন রেডক্রসের চেয়ারম্যান রিচার্ড গর্ডন।

রাজধানী ম্যানিলায় তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলেও জানিয়েছেন তিনি। তবে ম্যানিলার দক্ষিণে ব্যাটাঙ্গস্ শহরে ঝড়ে উড়ে আসা আবর্জনার সত্মুপে কিছু লোক চাপা পড়েছে এবং রেডক্রসের কর্মীরা তাদের উদ্ধারের চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এই শহরটিতে দুজন তড়িতাহত হয়ে নিহত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার দক্ষিণ উপকূলে ঘূর্ণিঝড়ের প্রথম আঘাতে একটি বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে ২৫ বছর বয়সী এক নারী নিহত হন। লুসেনা শহরে একটি বাড়ির দেয়াল ধসে এক গর্ভবতী নারী নিহত হয়েছেন।

এছাড়া রামাসানের তান্ডবে আরো ছয়জন নিহত হয়েছেন।

ফিলিপাইনের অনেক অংশ এখনও বিশ্বের অন্যতম প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় হাইয়ানের আঘাত কাটিয়ে উঠতে পারেনি। ২০১৩ সালের নভেম্বরে দেশটির কেন্দ্রীয় প্রদেশগুলোতে আঘাত হানা ওই ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড়ে ৬১০০ জন মানুষ নিহত হয়েছিলেন।