শুক্রবার ১২ অগাস্ট ২০২২ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফুলছড়ির কালাসোনা ও খাটিয়ামারী গ্রাম ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে তচনছ

মো. জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ সাদুল্যাপুর (গাইবান্ধা):

পানি কমতে থাকায় গাইবান্ধার ফুলছড়িতে ব্রহ্মপুত্রের নদে ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। এবারের বন্যায় উপজেলার প্রায় ৭শ’ পরিবারের ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভয়াবহ ভাঙনের শিকার কালাসোনা ও উত্তর খাটিয়ামারী গ্রাম দুইটির অস্তিত্ব বিপন্ন হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। বাড়ি-ঘর হারিয়ে অনেকে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছেন। গত তিন দিন থেকে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি কমতে থাকায় উপজেলায় বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিনের ভাঙনে উড়িয়া ইউনিয়নের কালাসোনা ও ফজলুপুর ইউনিয়নের উত্তর খাটিয়ামারী গ্রাম তচনছ হয়ে গেছে। ভাঙন আতংকে এ দুই গ্রামের মানুষের রাতে ঘুম ধরে না। রাতদিন একাকার করে ভাঙন কবলিত লোকজন বাড়িঘর সড়াতে ব্যস্ত থাকছেন।

 

গত তিন দিনে ভাঙনের শিকার উত্তর খাটিয়ামারী গ্রামের আব্দুর রহিম, সলিম উদ্দিন, শাহজাহান, আব্দুল মজিদ, হযরত আলী, ইয়াকুব, আবুল কালাম, আলী আকবর, হোসেন মিয়া, নন্দু মিয়া ও কালাসোনা গ্রামের নুরুল ইসলাম, বেলাল হোসেন, সুরুজ মিয়া, সাদা মিয়া, আইয়ুব আলী, সাইবুদ্দিনসহ অনেকে জানান, ভাঙনের তীব্রতা এতটাই বেশি যে ঘর-বাড়ি সড়ানো মুশকিল হয়ে পড়েছে। ভাঙনের এ ভয়াবহতা দেখে মনে হচ্ছে এবারে গ্রাম দুইটি নদীর বুকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। চলতি বন্যায় এ দুই গ্রামের প্রায় তিন শতাধিক পরিবার গৃহহারা হয়েছে। প্রতিবছর বন্যায় অনেক পরিবার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নদী গর্ভে নিশ্চিহ্ন হয়েছে। যারা এখনও অবশিষ্ট এলাকায় মাটি আকড়ে পড়ে আছে তাদেরও এবার গৃহহীন হয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে হবে বলে সবার ধারণা। এ ছাড়া ভাঙনের শিকার পূর্ব খাটিয়ামারী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক, জালাল, সবের আলী, নিশ্চিন্তপুর গ্রামের বাছের আলী, অবিজল মাস্টার, সাম্মু মিয়া, আফছার উদ্দিন, পশ্চিম খাটিয়ামারী গ্রামের আনসার আলী, নবাব আলী, কাজিম উদ্দিন, আজিম উদ্দিনও একই কথা জানালেন।

 

ভাঙন কবলিত ওই দুই গ্রামের নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষের সাথে কথা হলে তারা জানান, নদীর স্রোত এতটাই বেশি যে প্রতিদিন বিশাল এলাকা নদী চলে যাচ্ছে। এতে তাদের বসতবাড়ি বিলীন হচ্ছে। এছাড়া তাদের আবাদী জমি নদীগর্ভে হারিয়ে যাওয়ার ফলে অনেকে সহায় সম্বলহীন হয়ে পড়েছেন। নদী ভাঙনে গৃহহীন হয়ে অনেক স্বচ্ছল পরিবারের লোকজন চরম দারিদ্রের মধ্যে দিন কাটাতে বাধ্য হচ্ছেন। ভাঙনের শিকার লোকজন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে, বিদ্যালয় আঙিনায় অথবা কোনো পরিত্যক্ত উচুঁ জায়গায় গিয়ে আশ্রয় নিয়ে অনিশ্চিত জীবনের মধ্যে পড়ছেন। এছাড়াও গজারিয়া ইউনিয়নের জিয়াডাঙ্গা, গলনা, কাতলামারী, উদাখালী ইউনিয়নের সিংড়িয়া, এরেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নের দক্ষিন সন্যাসী, আনন্দবাড়ী, তিনথোপা, পাগলার চর, জিগাবাড়ী, বুলবুলি, ঘাটুয়া, কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের রসুলপুরসহ গ্রামের বেশ কয়েকটি পয়েন্টে নদী ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে।

 

বৃহস্পতিবার ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেহেদী-উল-সহিদ গজারিয়া ইউনিয়নের বন্যা ও ভাঙন কবলিত জিয়াডাঙ্গা ও গলনা এলাকা পরিদর্শন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গজারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মনোতোষ রায় মিন্টু, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রব এবং স্থানীয় প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। ফজলুপুর ইউপি চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন জালাল জানান, এবারের ভাঙনে তার ইউনিয়নের উত্তর খাটিয়ামারী, পশ্চিম খাটিয়ামারী, পূর্ব খাটিয়ামারী, নিশ্চিন্তপুর, চন্দস্বর, কুচখালী গ্রামের ৪ শতাধিক পরিবার তাদের বাড়ি-ঘর ও আবাদি জমি হারিয়েছে। ভাঙন কবলিত পরিবারগুলো বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ, আদর্শ গ্রাম, পরিত্যাক্ত উচুঁ জায়গা ও এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো সাময়িক আশ্রয় গ্রহন করেছে। উড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হামিদ সরকার বলেন, নদী ভাঙন এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে, অনেক পরিবার তাদের বাড়ি-ঘর সরাতেই হিমশিম খাচ্ছেন। তিনি বলেন, ভাঙনে উড়িয়া ইউনিয়নের কালাসোনা, রতনপুর ও উত্তর উড়িয়া গ্রামের প্রায় ২শ’ শতাধিক পরিবার আশ্রয়হীন হয়ে পড়েছে। ফুলছড়ি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবু হেনা মোঃ শাহারম্নল ইসলাম জানান, এবারের বন্যায় উপজেলায় প্রায় ৭ শতাধিক পরিবার নদী ভাঙনে তাদের বাড়ি-ঘর ও ফসলি জমি হারিয়েছে। এ ছাড়া একটি বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেঁড়ি বাঁধ ভাঙনের শিকার হয়েছে।

 

ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মেহেদী-উল-সহিদ বলেন, নদীর পানি কমতে থাকায় চরাঞ্চলে বিভিন্ন পয়েন্টে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভাঙন কবলিত লোকজনের সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে। তাদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় ত্রান সামগ্রীর জন্য উদ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email