বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মসজিদের ইমামকে নির্যাতনের অভিযোগ

মোঃ মেহেদী হাসান উজ্জল, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি :

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে পুকুর নিয়ে বিরোধের জের ধরে বাজার থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে হাফেজ আনিছুর রহমান (৪০) নামে এক মসজিদের ইমামকে নির্মম নির্যাতন করেছে, আলাদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান।

চেয়ারম্যানের নির্যাতনের শিকার হাফেজ আনিছুর রহমান উপজেলার আলাদিপর ইউনিয়নের ইসমাইলপুর গ্রামের বাজর উদ্দিনের ছেলে ও বৈকন্ঠপুর জামে মসজিদের পেশ ইমাম।

গত শনিবার বিকেলে ইউনিয়নের মেলাবাড়ী বাজার থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে ইউনিয়ন পরিষোদ ভবনে এই নির্যাতন করার ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার ইমাম আনিছুর রহমান বর্তমানে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্র কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন আছেন।

হাফেজ আনিছুর রহমানের স্ত্রী মোছাঃ ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, তার স্বামী আনিছুর রহমান ইমামতি করার পাশাপশি চারা গাছের ব্যবসা করেন। এই কারনে গত শনিবার বিকেলে তার স্বামী গাছের চারা বিক্রি করার জন্য স্থানীয় মেলাবাড়ী বাজারে গেলে, সেখান থেকে ইউপি চেয়ারম্যান মোজাফফর রহমানের বড়ভাই মৃত মোজাম্মেল হক এর ছেলে স্বপন, খোকন, চেয়ারম্যানের ছেলে লিমনসহ ১০ থেকে ১২ জনের একটি দল, তার স্বামীকে বাজার থেকে তুলে নিয়ে যায় ইউনিয়ন ভবনে, সেখানে চেয়ারম্যানসহ সকলে মিলে তার স্বামীকে মার ডাংসহ নির্মম নির্যাতন করে, এসময় তিনি খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে এসে, স্থানীয় লোক জনের সহতায় তার স্বামীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসেন,

হাফেজ আনিছুর রহমান বলেন, আলাদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান এর বড়ভাই মৃত মোজাম্মেল হক এর ছেলে স্বপন ও খোকনের সাথে, একই ইউনিয়নের শ্রীহরিপুর মৌজার একটি খাশপুকুরের লিজ নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল, এই ঘটনায় উচ্চ আলাদলতে মামলাও চলছে, এই মামলার জের ধরে তাকে এই নির্যাতন করা হয়েছে, তিনি আরো বলেন, নির্যাতনের সময় তার পকেছে থাকা গাছের চারা বিক্রির ২ হাজার টাকা কেড়ে নিয়েছে এবং মামলা না করার শর্তে একটি সাদা কাগজে চেয়ারম্যান জোর পুর্বক স্বাক্ষর করে নিয়েছে।

হাফেজ আনিছুর রহমানের স্ত্রী বলেন, ঘটনাটি নিয়ে বাড়া-বাড়ী না করার জন্য প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে চেয়াম্যানের লোক জন, এজন্য চরম আতঙ্ক ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে নির্যাতনের শিকার ওই পরিবারটি।

এই বিষয়ে আলাদিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মোজাফফর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে, তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, হাফেজ আনিছুর রহমান একজন বেয়াদব লোক সে অকর্থ ভাষায় গালা-গালি করেছে তাই তাকে সাশন করা হয়েছে। আপনি আইন হাতে তুলে নিতে পারেন কি? এই প্রশ্ন করা হলে, তিনি এড়িয়ে যান।

Spread the love