সোমবার ২৩ মে ২০২২ ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পথসভা ও গনসংযোগ অব্যাহত

Upjalaদিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পথসভা ও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে। দিনরাত চলছে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের দৌড় ঝাপ যোগ্য প্রার্থী খুজছে ভোটারেরা। এবার ফুলবাড়ী উপজেলায় ৪জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, ৪জন ভাইস চেয়ারম্যান ও ৩ জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দাড়িয়েছেন। এর মধ্যে তরুণ উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী এ্যাডভোকেট আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এর ছোট ভাই থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মুশফিকুর রহমান বাবুল। ভাই সরকারের দুই দুইবার মন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের ২৫ বছরের সংসদ সদস্য হওয়ায় এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে তিনি মুশফিকুর রহমান বাবুল উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়ে নির্বাচিত হয়ে কাজ করতে চান। এ জন্য তিনি নির্বাচনে মাঠে নেমে তার গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। তিনি তরুণ হলেও ছাত্র জীবনে রাজনীতিতে কেরিয়ার গড়েছেন। দলের নেতা কর্মীরা তাকে ছাড়া কোন কাজ করতে চান না। দলের হাই কমান্ডের নির্দেশও তাই। গ্রামগঞ্জে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এখন থেকে তিনি মাঠ দখল করা শুরু করেছেন ভালবাসা দিয়ে। তার কাছে কি গরীব, কি ধনি কোন ভেদাভেদ নাই। তিনি নির্বাচনের মাঠে নেমে ভাইয়ের কোন পরিচিতি ব্যবহার করতে চান না। বিএনপি থেকে দাড়িয়েছেন ফুলবাড়ী উপজেলা বিএনপির সভাপতি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ খুরশিদ আলম মতি। তিনি বিএনপির হালধরে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন দীর্ঘদিন ধরে। দলের নেতা কর্মীদেরকে এগিয়ে নেয়ার জন্য ও রাজনৈতিক ভাবে অগ্রসর হওয়ার জন্য তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন। ভবিষ্যতে বিএনপির নেতৃত্বকে শক্তিশালী করার জন্য গ্রামগঞ্জে বিএনপির ভিত্তি গড়ে তোলার জন্য নেতাকর্মীরা তার পক্ষ হয়ে কাজ করছেন। তিনি রাজনৈতিক ভাবে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাওয়ার জন্য ও নেতাকর্মীদের মনোভাবকে চাঙ্গা করার জন্য এবং শহীদ প্রেসিডেন্ট ও দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার হাত শক্তিশালী করার জন্য তিনি এই চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়ে কাজ করতে চান।  সাবেক মন্ত্রী, বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মনছুর আলী সরকারের ভাগিনা পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শাহাজুল ইসলাম দলের ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে এবং ভবিষ্যতে রাজনৈতিক ভাবে অগ্রসর হওয়ার জন্য এবং ভোটারদের কাছে পরিচিত হওয়ার জন্য তিনি উপজেলা নির্বাচনে দাড়িয়েছেন। পাশাপাশি তিনিও উপজেলা চোসে বেড়াচ্ছেন ও ভোটারদের কাছে দোয়া চাচ্ছেন। আলহাজ্ব মনছুর আলী সরকারের ভাগিনা হলেও মামার পরিচয় বহন করতে চান না। তিনি নিজের কেরিয়ারকে গড়ার জন্য ও তার কর্মীদের চাপের মুখে এবং গনগনের উন্নয়নের স্বার্থে চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন। তিনি মনে করছেন ভোটারেরা তাকে ভোট দিলে এলাকার অনেক অসমাপ্ত উন্নয়ন মূলক কাজ রয়েছে তা বাসত্মবায়ন করবেন। জাতীয় পার্টির উপজেলা শাখা থেকে দাড়িয়েছেন এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম। তিনি আলহাজ্ব হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদের হাতকে শক্তিশালী করার জন্য এই সুযোগ নিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন। তিনি গনসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। তিনিও আশা করছেন উপজেলা বাসী তাকে ভোট দিলে এলাকার উন্নয়ন মূলক কাজ করবেন বলে মাঠে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানে দাড়িয়েছেন আওয়ামীলীগ থেকে যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মওলা রঞ্জু। তিনি দলের পরিচিতি ও আগামী দিনে রাজনৈতিক ভাবে অগ্রসর হওয়ার জন্য ভাইস চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন। উপজেলা জামায়াতে ইসলামের জেনারেল সেক্রেটারী মঞ্জুরুল কাদের বাবু জামায়াতে ইসলামের দলকে শক্তিশালী করার জন্য ও কেন্দ্রের নির্দেশে ভাইস চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন। নেতা কর্মীরা তার জন্য গ্রাম গঞ্জে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন ও দোয়া চাচ্ছেন। অপরদিকে জাতীয়তাবাদী তাঁতী দলের পক্ষ থেকে দাড়িয়েছেন ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা তাঁতী দলের আহবায়ক তাজমিলুর রহমান নয়ন। তিনি বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতা হলেও তিনি মনে করছেন আগামী দিনে পরিচিত ঘটার জন্য ভাইস চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়ে গ্রাম গঞ্জে তার রাজনৈতিক পরিচিতি আরও অগ্রসর করতে চান। স্বতন্ত্র ভাইস চেয়ারম্যান পদে দাড়িয়েছেন তরুণ যুবক মোঃ জাকারিয়া হোসেন জাকির। তিনি মাঠে পরিচিত ঘটার জন্য ও এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে ভোটারদের বাড়ী বাড়ী যাচ্ছেন ও দোয়া চাচ্ছেন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের দলী ব্যানারে দাড়িয়েছেন সাবেক পৌর কাউন্সিলর মোছাঃ নিরু সামসুন্নাহার। তিনি নতুন হলেও মাঠে তার পরিচিতি রয়েছে অনেক। এ জন্য নির্বাচনে ভোটারেরা তাকেই ভোট দেওয়ার জন্য মনসত্ম করলেও ভোটারেরা প্রকাশ করছে না। অপর দিকে বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মিনারা বেগম ৫ বছর ভাইস চেয়ারম্যান পদে থেকে উন্নয়ন মূলক কাজ না করতে পারলেও গ্রাম গঞ্জে তার পরিচিত রয়েছে। কিন্তু বর্তমান মাঠ পর্যায়ে তার কোন নির্বাচনে ভোটের ইমেজ নেই। এ দিকে বিএনপির ব্যানার থেকে দাড়িয়েছেন দৌলতপুর গ্রামের সাবেক ইউপি মহিলা সদস্যা মোছাঃ হাছিনা বানু। তিনি মনে করছেন বিএনপির নেত্রী হয়ে দাড়িয়ে এলাকায় জনপ্রিতা গড়ে তুলতে পারলে এবং গণসংযোগ চালিয়ে গেলে আগামীতে যোগ্য ভোটারেরা আমাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে।  এ জন্য তিনি বিএনপির ব্যানারে দাড়িয়েছেন। আগামী ২৩ শে মার্চ দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাচন। পুরুষ ভোটার ৫৯ হাজার ৬ শত ১২ জন, মহিলা ভোটার ৫৯ হাজার ৯৮ জন। মোট ভোটার ১লক্ষ ১৮ হাজার। উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রির্টানিং অফিসার মোঃ আহসান হাবীব জানিয়েছেন ২৩ শে মার্চ নির্বাচনে ফুলবাড়ী উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে সকল প্রস্ত্ততি সম্পুন্ন করা হয়েছে। প্রশাসন সবসময় প্রস্ত্তত রয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email