শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে ট্রেন ও বাসের টিকিট সোনার হরিণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ শত বিড়ম্বনা মাথায় নিয়ে বাড়ি এসে ঈদের ছুটি শেষে কর্মক্ষেত্রে ফিরতে গিয়েও মানুষের একই বিড়ম্বনার। দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ট্রেনের টিকিট পাওয়া সোনার হরিন আর অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েও মিলছেনা বাসের টিকিট।

গত শনিবার বিকেলে ফুলবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন ও দূরপাল্লার বাস কাউন্টারগুলোতে ফেরা মানুষের উপচে পড়া ভিড়। রেলওয়ে স্টেশনে একটি ট্রেনে মাত্র ২০ থেকে ২৫টি আসন বরাদ্ধ সেখানে আসন ছাড়াই টিকিট নেওয়া যাত্রীর সংখ্যা শতাধিক। তারা ট্রেনের মধ্যে দাড়িয়ে গন্তব্যস্থলে পৌছার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কেউ আবার ঠাই নিয়েছে ট্রেনের ছাদে। একই অবস্থা ফুলবাড়ী উর্ব্বশী সিনেমা হল মোড়ের দুরপাল্লার বাস কাউন্টারগুলোতে।

কর্মক্ষেত্রে ফেরা একটি বেসরকারি চাকুরীজিবি যাত্রী আব্দুল আহাদ অভিযোগ করে বলেন, রেলওয়ে স্টেশনের কাউন্টারে টিকিট পাওয়া না গেলেও নির্দ্দিষ্ট কয়েকটি চা স্টলে অতিরিক্ত ভাড়ায় টিকিট পাওয়া গেছে। স্টেশন এলাকার বাসিন্দারা অভিযোগ করে বলেন, স্টেশনের বুকিং মাস্টারের সহায়তায় কালোবাজারীরা চাহিদা অনুযায়ী টিকিট বিভিন্ন নামে ক্রয় করে চা এর দোকানে দিয়ে রাখে অতিরিক্ত দামে বিক্রির জন্য।

তবে স্টেশন মাস্টার হাবিবুর রহমান বলেন, ফুলবাড়ী স্টেশন দিয়ে ঢাকায় যাতায়াত করে একতা এক্সপ্রেস, দ্রুতযাণ এক্সপ্রেস ও নীলসাগর এক্সপ্রেস নামের আন্তঃনগর ট্রেন। এই তিনটি ট্রেনে আসন মাত্র ৭৮টি। অথচ প্রতিদিনের চাহিদা কয়েকশ টিকিটের। একই অবস্থা খুলনাগামী ও রাজশাহী গামী ট্রেনের।

ফুলবাড়ী হানিফ এন্টারপ্রাইজের টিকিট কাউন্টার ম্যানেজার আজিজার রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ফুলবাড়ী দিয়ে দিন ও রাতে ১০টি কোচ যাতায়াত করে। ১০টি কোচের ৬০টি আসন বরাদ্ধ। কিন্তু চাহিদার চেয়ে তিনগুন যাত্রীদের চাহিদা পূরণ করা যাচ্ছেনা। একই অবস্থা অন্যান্য কোচ কাউন্টার গুলোতেও ।

উল্লেখ্য, ফুলবাড়ী উপজেলা দিয়ে যাতায়াত করে এ উপজেলা ছাড়াও পাশ্ববর্তী  পার্বতীপুর, নবাবগঞ্জ, বিরামপুর ও চিরিরবন্দর উপজেলার যাত্রীরা। এছাড়া ফুলবাড়ী পৌরশহরের কোলঘেষে গড়ে উঠা বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি, তাপবিদ্যুত কেন্দ্র, মধ্যপাড়া পাথর খনি ও উত্তরাঞ্চলের বৃহৎ বিনোদন কেন্দ্র স্বপ্নপুরী। তাই ফুলবাড়ীতে বাস ও ট্রেনের যাত্রী সর্বদায় ভীড় হয়।

Spread the love