বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে তুলা চাষিদের মাথায় হাত

শেখ সাবীর আলী ফুলবাড়ী (দিনাজপুর)

 

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে তুলা চাষ করে মাথয় হাত পড়েছে তুলা চাষিদের। তুলা উন্নয়ন বোর্ড গত বছরের তুলুনায় মণ পতি সাড়ে ৫শ টাকা মুল কম নির্ধারন করায় আশানুরুপ তুলা উৎপাদন করেও, লাভ তো দূরের কথা উৎপাদন খরচ ঘরে উঠছে না চাষিদের।

 

বাসুদেবপুর গ্রামের তুলা চাষি ডাঃ ওয়াজেদুর রহমান বলেন, গত বছরের তুলুনায় এই বছর মজুরী, সার, তেল প্রভৃতির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় তুলা উৎপাদন করতে বিঘা প্রতি ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা বেশি খরচ হয়েছে। অথচ তুলা উন্নয়ন বোর্ড গত বছর যেখানে প্রতি মণ তুলার মুল্য দিয়ে ছিল ২ হাজার ৫০০ টাকা সেখানে এই বছর মণ প্রতি সাড়ে ৫শ টাকা কম নির্ধারন করে ১৯৫০ টাকা নির্ধারন করেছে। এতে তুলা চাষিরা আশানুরুপ তুলা উৎপাদন করেও খরচের টাকা ঘরে তুলতে পারছেন না। একই কথা বলেন আকিলা পাড়া গ্রামের তুলা চাষি আব্দুর রাজ্জাক, রাঙ্গামাটি গ্রামের তুলা চাষি বিজয় চন্দ্র মন্ডল।

 

তুলা চাষি ডাঃ ওয়াজেদুর রহমান বলেন তিনি এই বছর ১ একর ৫০ শতক জমিতে তুলা চাষ করেছেন তিনি, এতে তার খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ হাজার টাকা, কিন্তু তার উৎপাদিত তুলা বিক্রি করে পেয়েছেন মাত্র ৫৪ হাজার টাকা, একই অবস্থা অন্যান্য তুলা চাষিদেরও বলে তিনি জানান। তুলা চাষীগণ বলেন এই অঞ্চলের মানুষ আগে ধান চাষ করতো, কিন্তু তুলা উন্নয়ন বোর্ডের অনুরোধে কয়েক বছর থেকে তুলা চাষ করছে, এতে চাষিদের লাভও হচ্ছিল। কিন্তু তুলা উন্নয়ন বোর্ড হঠাৎ তুলার দাম কম করে নির্ধারন করায় তুলা চাষিদের মাথায় হাত পড়েছে।

 

দিনাজপুর তুলা উন্নায়ন বোডের ফুলবাড়ী আঞ্চলিক কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক এর সাথে এই বিষয়ে কথা বললে তিনি বলেন তুলার মুল্য নির্ধারন করা হয় সরকার কর্তৃক, এখানে তাদের কিছু করার থাকে না, তবে তিনি বলেন কৃষকের উৎপাদন খরচ মাথায় রেখেই তুলার মুল্য নির্ধারন করা হয়ে থাকে।

 

তুলা চাষিরা জানান আমাদের দেশে যে পরিমান তুলার প্রয়োজনিতা আছে তার মাত্র ২০ থেকে ২৫ ভাগ তুলা উৎপাদন করা হয়, বাকি তুলা বৈদেশিক মুদ্রা খরচ করে বিদেশ থেকে আমদানী করা হয়। যদি তুলা উন্নয়ন বোর্ড কৃষকদের পৃষ্ঠপোষকতা দিত তাহলে দেশেই চাহিদার সমুদয় তুলা চাষ করা সম্ভব হত।

 

Spread the love