বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে যুবলীগ নেতাকে মারপিট করে টাকা ও মোবাইল ছিনতাইয়ের অভিযোগ

মোঃ মেহেদী হাসান ফুলবাড়ী দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে পুলিশ কর্তৃক যুবলীগ সহ-সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান মিজানকে মারপিট টাকা ও মোবাইল ছিনতাইয়ের অভিযোগ। দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার পৌরসভা এলাকার বারকোণা স্টেশন পাড়া গ্রামের সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আব্দুল সামাদ এর পুত্র ফুলবাড়ী উপজেলা শাখার যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও আল মাসুদ কনস্ট্রাকশন এর স্বত্তাধিকারী মোঃ মিজানুর রহমান মিজান এর লিখিত অভিযোগে জানা যায়, গত ৭ই সেপ্টেম্বর রাত্রি ১১টায় ফুলবাড়ী থানা পুলিশ সোর্স মারফত জানতে পেরে থানার এস আই রহিম, এস আই হাবিব, এস আই এশরাকুল, এস আই মান্নান, উপজেলার চমুক বর্ডার এলাকার কাজিহাল ইউপির রসুল পুর নামক স্থান থেকে ৫০০ বোতল ফেন্সিডিল আটক করে। আটককৃত ফেন্সিডিল ফুলবাড়ী থানায় জমা না করে সোর্সের নিকট বিক্রি করে দেয়। উক্ত ঘটনা অন্য এক সোর্স পুলিশ সুপারকে অবগত করেন। এর পর পুলিশ সুপার এস আই রহিমকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করেন। উক্ত ঘটনা তদন্তের জন্য গত ১১ই সেপ্টেম্বর দিনাজপুর সদর সার্কেল ও ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ এবং এস আই এশরাকুলকে  নিয়ে রসুলপুর নামক স্থানে যায়। মোঃ মিজানুর রহমান  এবং সোর্স লিটন মোটর সাইকেল নিয়ে দেশমা হাটে যান। সেখানে সোর্স লিটনকে দেখতে পান এস আই এশরাকুল। উক্ত ঘটনার জন্য যুবলীগের সিনিয় সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান কে সন্দেহ করেন। গত ১১ই সেপ্টেম্বর রাত্রি ৮টায় ফুলবাড়ী স্টেশনের জাহাঙ্গীরের চায়ের দোকানের সামনে মিজানুর রহমান মিজান দাড়িয়ে থাকে। এ সময় ফুলবাড়ী থানার পুলিশ তিনটি মটরসাইকেল করে সাদা পোশাকে  সেখানে আসেন। এ সময় এস আই এশরাকুল, এস আই হাবিব ও এস আই মান্নান এবং কনস্টেবল মোঃ নুরু যাহার নং- ৪৯৬। তারা একত্রিত হয়। সে তখন রেল গেট লন্ড্রীর দোকান থেকে কাপড় চোপড় নিয়ে এসে দাঁড়ায়। এ সময় তার বাসার দিকে যেতে ধরলে এস আই এশরাকুল তাকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে। সে তখন তাদের কু-কর্মের কথা পুলিশ সুপারকে বলে দেওয়ার কথা বললে উক্ত এস আই তার গেঞ্জির কলার ধরে মুখে ও মাথায় এবং শরীরের বিভিন্ন জায়গায় কিল ঘুষি মারতে থাকে। এ সময় তার প্যান্টের পকেটে থাকা ৭ হাজার ৪ শত টাকা হাত ঢুকে দিয়ে বের করে নেন এস আই এশরাকুল। এস আই হাবিব তিনটি মোবাইল হাত থেকে কেড়ে নেয়। সেখানে উপস্থিত এলাকার আনিছুর রহমান এর স্ত্রী মোছাঃ রশিদা বেগম ও লাভলী বেগম সহ তারা মারপিট না করার জন্য বাধা প্রদান করেন। এক পর্যায়ে এস আই হাবিব এস আই মান্নান মটরসাইকেলে তুলে নিয়ে অফিসার ইনচার্জের ঘরে আনেন। তার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদ তাৎক্ষনিক খবর পেয়ে অফিসার ইনচার্জ এর ঘরে এসে ঘটনার বিষয় বললে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মোকছেদ আলী এস আই দেরকে গাল মন্দ করে তাকে ছেড়ে দেওয়ার কথা  বলেন।ঐ দিনে মিজানুর রহমান মিজান ফুলবাড়ী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ীতে চলে যান।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবলীগের সহ-সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান ন্যায় বিচার চেয়ে পুলিশ প্রশাসনের বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ করেন। অপরদিকে ঐ এলাকার বাসিন্দারা ঘটনার সত্যতা শিকার করে জানান মিজানুর রহমান তার নিজ বাড়ীতে যাওয়ার সময় পুলিশ সদস্যরা তাকে অন্যায় ভাবে মারপিট করে থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে গত বুধবার ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনর্চাজ মোঃ মকছেদ আলীর সাথে মোবাইল ফোনে এ বিষয়ে কথাবলে তিনি সাংবাদিককে জানান আমি এ বিষয়ে কিছু জানিনা। এই ঘটনায় মোঃ মিজানুর রহমান পুলিশ প্রশাসনের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট ন্যায় বিচারের দাবি জানিয়েছেন।

Spread the love