মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে সভাপতির-প্রধান শিক্ষকের বিরোধের জের বিদ্যালয়ে স্বাভাবিক পাঠদান ব্যাহত

শেখ সাবীর আলী ফুলবাড়ী (দিনাজপুর)

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়ন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির সাথে প্রধান শিক্ষকের বিরোধের জের ধরে স্থবীর হয়ে পড়েছে বিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কাজকর্ম, ভেঙ্গে পড়েছে বিদ্যালয়ের পাঠদান ব্যবস্থা। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এরেই মাঝে ঘটেছে অনেক অপ্রীতিকর ঘটনা।

 

বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষকসহ এলাবাসীদের অভিযোগে জানা গেছে নিজের অপকর্ম ঢাকতে দীর্ঘদিন নিজের পছন্দ মত সভাপতি নির্বাচন করার চেষ্টা করছিলেন প্রধান শিক্সক, কিন্তু তার পছন্দের প্রার্থী সভাপতি পদে নির্বাচন করতে না পেরেই অহেতুক নবনির্বাচিত সভাপতির সাথে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুমিনুল ইসলাম সরকার।

বিদ্যালয় সুত্রে জানা গেছে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন করার জন্য নিয়মানুসায়ে গত ২০১৪ সালের ২২ ডিসেম্বর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুস ছাত্তারকে প্রিজাইডিং অফিসার হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয়।

 

প্রিজাইডিং অফিসার ২৩ ডিসেম্বর নির্বাচনের তপশিল ঘোষনা করেন। তপশিল অনুযায়ী মনোনয়ন পত্র উত্তোলন ও জমা দেয়ার শেষ দিন একই মাসের ২৬ ডিসেম্বর পযমর্ত্ম ৫ জন ব্যক্তি তাদের মনোনয়ন জমা দেন। তারা হলেন বলিভদ্রপুর গ্রামের জলিল উদ্দিনের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক, দৌলতপুর গ্রামের তছির উদ্দিনের ছেলে বেলাল হোসেন, একই গ্রামের জলিল উদ্দিনের ছেলে মকলেছার রহমান, হড়হড়িয়া পাড়ার আব্দুর রহমানের ছেলে রফিকুল ইসলাম ও মহিলা সদস্য হিসেবে দৌলতপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের স্ত্রী রহিমা বেগম। এছাড়া শিক্ষক প্রতিনিধি হিসেবে সহকারী শিক্ষক আব্দুল মজিদ সরকার, বেলাল উদ্দিন, তাসনিমা হাবিব মনোনয়ন পত্র জমা দেন। তাদের প্রতিদ্বন্দি প্রাথী না থাকায় প্রিজাইডিং অফিসার মনোনয়ন জমাদানকারী ৩জন শিক্ষক প্রতিনিধি প্রার্থীদেরকে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় নির্বাচিত ঘোষনা করেন।

এরপর নির্বাচিত সদস্যদের প্রত্যক্ষ ভোটে একই গ্রামের আকবর আলীর ছেলে তৈবুর রহমান লাইজুকে সভাপতি নির্বাচিত করেন। এরপর থেকে প্রধান শিক্ষক মুমিনুল ইসলাম সরকার সভাপতি হিসাবে দৌলতপুর গ্রামের ফজলার রহমান নামে এক ব্যক্তিকে সভাপতি নির্বাচন করার জন্য নির্বাচিত সদস্যদেরকে অনুরোধ করেন। কিন্তু নির্বাচিত সদস্যরা তার সেই অনুরোধ কর্ণপাত না করায়, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নবনির্বাচিত কমিটির অনুমোদন বাতিল করার জন্য নবনির্বাচিত সভাপতিসহ সদস্যদের সাথে অহেতুক বিরোধে জড়িয়ে পড়েন। শুধু তাই নয় দিন দুপুরে ছুটিতে থাকা অবস্থায় বিদ্যালয়ের তালা ভেঙ্গে সভাপতির নামে মামলাও দায়ের করেছেন। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই এলাকায় এখন চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

 

মঙ্গলবার বিদ্যালয়ে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মাঝে আতঙ্কের ছাপ, সাংবাদিক দেখে তারা ছুটাছুটি করে ক্লাস রুমে চলে যায়। এরপর বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আজিজার রহমানের সাথে কথা বললে তিনি বলেন হেড মাষ্টার বিদ্যালয়ে আসেন নাই,। তিনি বলেন প্রধান শিক্ষক মাসে দু’একদিন বিদ্যালয়ে আসেন, এখন তো গন্ডগোল চলছে তাই আর আসেন না। সহকারী শিক্ষক ও শিক্ষক প্রতিনিধি আব্দুল মজিদ সরকার জানান, প্রধান শিক্ষক আজ পর্যমত্ম বিদ্যালয় পরিচালনার কোন ভাউচার দেখাননি, তিনি কাউকে মানেন না, ওনার পছন্দের প্রাথী সভাপতি নির্বাচিত হতে না পারায় এই কমিটিকে মেনে নিতে পারছেন না। ছাত্রীদের মাঝে আতঙ্ক দেখা যাচ্ছে কেন, প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন সভাপতির সাথে বিরোধ থাকায় গত ১৪ ফেব্রুয়ারী বহিরাগত লোকজন নিয়ে এসে প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের ঘরের তালা ভাঙচুর করার পর থেকে সাধারণ শিক্ষর্থীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে, এরই মাঝে কয়েক দফায় পুলিশ তদমত্ম করতে এসেছে।

এদিকে স্থানীয় বাসীন্দারা বলেন প্রধান শিক্ষক মুমিনুল ইসলাম বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসাবে যোগদান করার পর থেকে বিদ্যালয়টিতে শিক্ষার পরিবেশ বিনষ্ঠ হচ্ছে,এতে করে দিন দিন বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমে যাচ্ছে।

জানা গেছে উপজেলার একবারে মফস্বল এলাকায় দৌলতপুর ইউনিয়নের কুশলপুর বাজারে বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টি ১৯৯২ সালে স্থাপিত হওয়ার পর থেকে ওই এলাকায় নারী শিক্ষার উন্নতি ঘটে, এই বিদ্যালয়ে আশপাশের ৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ছাত্রীরা মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণ করার জন্য এই বালিকা বিদ্যালয়টিতে আসে, কিন্তু প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষাক তোবারক হোসেন মৃত্যুবরণ করায় তার পরিবর্তে বিরামপুর উপজেলা ঈদগাঁ এলাকার বাসীন্দা বর্তমান প্রধান শিক্ষক মুমিনুল ইসলাম সরকার ২০১২ সালে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে একের পর এক অনিয়ম শুরু হয়।এর পূর্বেও বর্তমান প্রধান শিক্ষক মুমিনুল ইসলাম ২০১৩ সালে তৎকালিন সভাপতি বেলাল মাষ্টারের স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনের দায়ে একবার সাময়িক বরখাস্তের শিকার হয়েছিল, তার স্বেচ্ছাচারীতার কারণে দিন দিন শিক্ষাথীর সংখ্যা কমতে শুরু করে। এর ফলে চলতি এসএসসি পরীক্ষায় মাত্র ১০জন শিক্ষাথী অংশগ্রহণ করে।

 

এলাকার অভিভাবকদের অভিযোগ বিদ্যালয়টিতে এই অবস্থা চলতে থাকলে এক সময় ছাত্রী শুন্য হয়ে পড়বে বিদ্যালয়টি। এজন্য তারা শিক্ষা অধিদপ্তরের উর্দ্ধতন কর্তপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

এই বিষয়ে কথা বলার জন্য বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বললে তিনি বলেন বিষয়টি আদালতে শেষ হবে। তাই সাংবাদিকে সব কথা বলার প্রয়োজন নেই বলে তিনি জানান।

Spread the love