মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ী আঁখিরা গণহত্যা দিবস আজ

আজ ১৭ এপ্রিল দিনাজপুরের ফুলবাড়ী আঁখিরা গণ হত্যা দিবস। ১৯৭১ সালের আজকের এই দিনে উপজেলার আলাদীপুর ইউনিয়নের বারাইহাটের ১০০ গজ দূরে আঁখিরা নামক পুকুরপাড়ে খান সেনাদের হাতে প্রাণ দিতে হয় ভারতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে নিয়ে ফুলবাড়ী, নবাবগঞ্জ পার্বতীপুর রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার প্রায় ৫শতাধিক নারীপুরুষ শিশু কে। আজও অনেকে এই ঘটনার বেদনাবিধুর স্মৃতি নিয়ে বেঁচে আছেন। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৩ বছর পরেও আজও সংরক্ষণ করা হয়নি এই ঐতিহাসিক বদ্ধ ভূমিটি কে। নির্মাণ করা হয়নি কোন স্মৃতি স্তম্ভ। সরকারীবেসরকারী কোনভাবেই কেউ কোন কর্মসুচীও গ্রহণ করেনি কোন দিন। দিবসটি নিরবে আসে নিরবে চলেও যায়।
মুক্তিযোদ্ধা প্রত্যক্ষদর্শীদের নিকট জানা গেছে, ১৯৭১ সালে পাক হানাদার বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পেতে ফুলবাড়ী উপজেলার রামভদ্রপুর, নবাবগঞ্জ উপজেলার খোশলামপুর পার্বতীপুর উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নের বাধদিঘী গ্রামের রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলার শতাধিক হিন্দু ¤প্রদায়ের নারীপুরুষ শিশুদের ভারতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে রামভদ্রপুর  গ্রামের কুখ্যাত রাজাকার কেনান সরকার তাদেরকে আখিরা পুকুর পাড়ে নিয়ে আসে। সেখানে তাদের নিকট থেকে সোনাদানা নগদ অর্থ হাতিয়ে য়ে রাজাকার কেনান সরকার।
শতাধিক মানুষের  এই দলটিকে কুখ্যাত রাজাকার কেনান সরকার তার সঙ্গীরা সেদিন পাক হানাদার বাহিনীর হাতে তুলে দেয়। পাক হানাদার বাহিনী সদস্যরা এই শতাধিক মানুষের মধ্যে নারী, পুরুষ শিশুদের আলাদা আলাদা লাইনে দাঁড় প্রথমে শিশু, তার পর পুরুষ এবং তার পর মেয়েদেরকে ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে।
ভাগ্যের জোরে বেঁচে যাওয়া ওই দলের সহযাত্রী উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামের বাসিন্দা রাখাল চন্দ্র (৬১) জানান, কুখ্যাত রাজাকার কেনান সরকারের কথায় বিশ্বাস করে যাত্রা শুরু করেছিল উপজেলার প্রায় শতাধিক মানুষ। কিন্তু তাদের বিশ্বাস এভাবে ধ্বংস হয়ে যাবে তারা বিন্দুমাত্র বুঝতে পারেনি।
ফুলবাড়ী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী বলেন, ফুলবাড়ীতে যে জন ঘৃণ কুকর্মের অধিকারী রাজাকার ছিল তাদের মধ্যে কেনান সরকার অন্যতম। সে শুধু ওই শতাধিক ব্যক্তির প্রাণই নেয়নি তার হাতে নিহত হয়েছে ফুলবাড়ীসহ কয়েকটি উপজেলার কয়েক হাজার নিরীহ মানুষ। তাই যুদ্ধ শেষ হওয়ার আগেই মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে তার মৃত্যু হয়েছে। তার অনেক সঙ্গী এখন ফুলবাড়ী থেকে বিতাড়িত।
আজও এই ঐতিহাসিক বদ্ধ ভূমিটি সরকারি উদ্যোগে সংরক্ষণ না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি আরও বলেন, কয়েক দফায় এই আঁখিরা নামক জায়গাটি পরিদর্শন করা হয়েছে কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email