বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ী ঐতিহ্যবাহী জমিদার বাড়ীটি সংস্কারের অভাবে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে

ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাফিজুর রহমান সুমন, ফুলবাড়ী, (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌরশহরের ঐতিহ্যবাহী ২শ বছরের পুরনো জমিদার ইন্দ্রচাঁদ বোথরার কাচারির বাড়ীটি কর্তৃপক্ষে র অযত্ন অবহেলা ও সংস্কারের অভাবে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে ।
অতীত ঐতিহ্যের নিরব স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা জমিদার ইন্দ্রচাঁদ বোথরার এই কাচারির বাড়ীটি দীর্ঘদিন উপজেলা ভূমি অফিস হিসেবে ব্যবহার হলেও কতৃপক্ষ এ বাড়ীটি সংস্কার না করে পাশে একটি উপজেলা ভূমি অফিস ভবন নিমার্ণ করে সেখানে উপজেলা ভূমি অফিসের কার্য্যক্রম পরিচালনা করায় এই কাচারির বাড়ীটি এখন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিহীন হয়ে পড়েছে। যার ফলে দিনের পর দিন অযত্ন অবহেলা ধ্বংস হতে চলেছে এই ঐতিহ্যবাহী ও অতীত ঐতিহ্যের নিবর স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা এই কাচারির বাড়ীটি।
কাচারির বাড়িটি সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় ১৮৮৬ইং সালে নির্মিত এই ভবনটির পাথরে খোদাই করার দুইটি বাঘ ও নির্মাণে সাল এবং বাড়ির মালিকের নাম লেখা রয়েছে। বাড়ীটিকে দুইটি বড় বাঘের ছবি থাকায় এই বাড়ীটি বাঘ মার্কা বাসা বলে অত্র এলাকায় পরিচিতি রয়েছে। বাড়ীটি ৭ কক্ষ বিশিষ্ট দ্বিতল ভবন যা প্রস্থে ৩০ ফিট ও দৈর্ঘের ২০০ ফিট লম্বা । প্রতিটি দেয়াল ৩০ ইঞ্চি চওড়া চুন শুড়কী দ্বারা নির্মিত। এই ভবনটি সংস্কার করার হলে এটি অতি ঐতিহ্যের দর্শন হয়ে নতুন প্রজন্মের নিকট ইতিহাসে শিক্ষনীয় বিষয় হওয়া পাশাপাশি এখানে ডাকবাংলাসহ দর্শন কেন্দ্র হওয়া সম্ভবনা রয়েছে।
উপজেলার প্রবীন শিক্ষার অনুরাগি ব্যক্তিবর্গের নিকট জানা গেছে প্রজা সাধারণের যাতাযাতের সুবিদার্থে ছোট যমুনা নদীর পাড়ে এই কাচারির বাড়ীটি নান্দনীক নির্মাণ শৈলীর কারুকার্য্য দ্বারা এই কাচারির বাড়ীটি জমিদার ইন্দ্রচাঁদ বোথরার তৈরী করে ছিল। দেশ বিভাগে পর জমিদার প্রথা বিলুপ্তির পর এই কাচারির বাড়ীটি উপজেলা ভূমি অফিস হিসেবে ব্যবহারীর হয়ে আসছিলো। গত ২০১০ইং সাল পর্যন্ত এই ভবনটি ছিল উপজেলা ভূমি অফিস। কিন্তু ভবনটি ছাদ দিয়ে পানি পড়ার কারণে কতৃপক্ষে এই ঐতিহ্যবাহী ভবনটি সংস্কার না করে তার পিছনে একটি নতুন ভবন নিমার্ণ করে সেখানে উপজেলা ভূমি অফিসটি স্থানান্তর করার এই ভবনটি এখন ধ্বংসে দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে।
ফুলবাড়ী সহ অত্র এলাকায় ঐতিহ্যের ধারোক ও লালনকারী জনসাধারণ তাড়াতাড়ি এই ঐতিহ্যবাহী ভবনটি সংস্কার করে ইতিহাসের স্বাক্ষী হিসেবে ভবনটি রক্ষা করার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষে আশু হস্তাক্ষেপ কামনা করেছেন।

Spread the love