শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ী ও বড়পুকুরিয়ায় রেলের জায়গা দখল করে ভারী ইমারত নির্মাণ

শেখ সাবীর আলী, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী রেলওয়ে ষ্টেশন ও তার অদূরে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির গেটে রেলক্রসিং সংলগ্ন দুই ধারে রেলওয়ের জায়গা অবৈধভাবে দখল করে গড়ে উঠেছে দোকান পাট, বাড়ী-ঘরসহ ভারী ইমারত। এতে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে লাখ লাখ টাকা। ভারী ইমারতের কারণে দূর্ঘটনার আশঙ্খা করছেন এলাকাবাসী। নিরব ভূমিকায় রেলওয়ের ভূমি প্রশাসন। জানা গেছে ফুলবাড়ী রেলওয়ে ষ্টেশন সংলগ্ন রেলওয়ের জায়গাগুলো অবৈধভাবে দখল করে দোকান-পাট ও বাড়ী-ঘর নির্মাণ করে ব্যবহার করছে এক শ্রেণীর মানুষ। কেউ কেউ রেলওয়ের জায়গা কৃষিতে লীজ নিয়ে তৈরী করেছে ভারী ইমারত ও ব্যবসাকেন্দ্র। একইভাবে ফুলবাড়ী রেলওয়ে ষ্টেশনের ২কি.মি. অদূরে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির গেটে রেলওয়ের জায়গা দখল করে দোকান পাট, বাড়ী-ঘরসহ ভারী ইমারত তৈরী করে ব্যবহার করা হচ্ছে। খোজ নিয়ে জানা গেছে এ সকল দখলদারদের মধ্যে দু-একজনের লীজ নেয়া থাকলেও অধিকাংশরাই অবৈধ দখলদার। তাদের মধ্যে কেউ কেউ কৃষি শ্রেণী হিসেবে লীজ নিয়ে ঐ জায়গায় তৈরী করছেন ব্যবসা কেন্দ্র। এতে সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব হারিয়ে যাচ্ছে। এ সকল ইমারতগুলো রেল লাইনের কোল ঘেষে হওয়ায় রেলের ঝাকুনিতে দূর্ঘটনা ঘটার আশঙ্খা করছেন এলাকাবাসী। শুধু তাই নয় সরেজমিনে দেখা গেছে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির রেল ক্রসিংয়ের পাশে পাকা রাস্তার কোল ঘেষে স্থায়ী ও অস্থায়ী দোকান খামার গড়ে উঠেছে। এতে করে ঐ রাস্তা দিয়ে চলাচলরত কয়লাবাহী শত শত ট্রাক যাতায়াত করায় সর্বক্ষনিক যানযট লেগে থাকছে। অভিযোগ উঠেছে রেলওয়ের ভূমি প্রশাসনের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারীরা প্রতিমাসে ঐ সকল অবৈধ দখলদারদের নিকট থেকে মাসোহারা উৎকোচ নিয়ে থাকেন। যার কারণে তারা অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না। এ বিষয়ে রেলওয়ের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের তদন্ত মূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

 

Spread the love