রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ী থানার ওসি ও এএসআই‘র বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

শামীম রেজা ॥ দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান অভিযোগ করেছেন ফুলবাড়ী থানার এএসআই শামীম মন্ডল ও থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাক আহম্মেদ এর বিরুদ্ধে জব্দকৃত ফেনসিডিল আত্মসাতের অভিযান এনেছেন। তাদের দুর্নীতি ও অনিয়মের প্রতিবাদ করায় পুলিশ এখন মিজানুরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলার হুমকিসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে।
আজ মঙ্গলবার দুপুরে দিনাজপুর প্রেসকাবে আয়োাজিত এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মিজানুর রহমান এই অভিযোগ করেছেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, এএসআই শামীমের বিরুদ্ধে উদ্ধার করা মাদক থানায় জমা না দিয়ে তা মাদক বিক্রেতাদের কাছে বিক্রি করে দেন বলে পুলিশ সুপারসহ পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তার কাছে পুলিশর সোর্স বাবুল হোসেন লিখিতভাবে ইতিপুর্বে অভিযোগও করেছে।
অভিযোগে বলা হয়, ২৩সেপ্টেম্বর রাতে এএসআই শামীম পুলিশের একটি দল নিয়ে সোর্সের সহযোগিতায় উত্তর লীপুর বাজারের বাগধারা মোড় নামক স্থানে একটি বাঁশ বাগান থেকে ২৫০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে।
এরপর ওই পুলিশ কর্মকর্তা মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে সোর্স মানি বাবদ ৬০পিস ফেন্সিডিল বাবুলের বাড়িতে রেখে ১৯০পিস ফেন্সিডিল থানায় জমা না দিয়ে কাঁটাবাড়ী গ্রামের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী পাটা সোহেল এর কাছে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়। সোর্সকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে মাত্র ৪ হাজার টাকা প্রদান করে। এতে সোর্স অসন্তুষ্ট হয়ে প্রকাশ করে। বিষয়টি সোর্সদ্বয় মৌখিকভাবে সহকারী পুলিশ সুপার ফুলবাড়ী সার্কেলের কাছে ঘটনার ফাঁস করে দেয়। ৮ অক্টোবর সোর্স বাবুল প্রাথমিক ও গণশিা মন্ত্রী ও পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এসংক্রান্ত সংবাদ বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশ পেলে এএসআই শামীম ও অফিসার ইনচার্জ মোস্তাক আহম্মেদ সোর্স বাবুলকে নানাভাবে হুমকি প্রদান এবং সন্ত্রাসী দ্বারা ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে।
এর কয়েকদিন পরে ফুলবাড়ী উপজেলা সীমান্তবর্তী এলুয়াড়ী ইউনিয়নের উষাহার গ্রামের ফেকু মিয়ার বাড়ি হইতে ৮কার্টুন ফেন্সিডিল বাবুলের উপস্থিতিতে উদ্ধার করে। ৮ কার্টুনে ফেন্সিডিল ছিল ৯১০পিস। উক্ত ফেন্সিডিলের মালিক উষাহার গ্রামের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী মোঃ হাফিজুল ও মোঃ শুকুর আলীর। অথচ অফিসার ইনচার্জ উক্ত ৯১০পিস মাদকের মধ্যে মাত্র ৪০০ পিস দেখিয়ে মামলা করেন।
এবিষয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তার অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বললে নানাভাবে ভয়ভীতি ও মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দেয়ার হুমকি প্রদান করছে। আমি আমার নিরাপত্তা ও ন্যায় বিচারের স্বার্থে সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে উক্ত পুলিশ কর্মকর্তা ও এএসআই শামিমের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে পুলিশ প্রশাসন ও উর্দ্ধতন কর্তৃপরে হস্তক্ষেপ চেয়েছেন যুবলীগ নেতা মোঃ মিজানুর রহমান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email