রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ী পল্লিতে জমি জমার বিরোধের জের ধরে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে ৬জন

মোঃমেহেদী হাসান ফুলবাড়ী,(দিনাজপুর) প্রতিনিধি;

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৬ জন আহত, ৫০টি গাছ কর্তন ও খড়ের গাদায় অগ্নিসংযোগ এর ঘটনা ঘটেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় ফুলবাড়ী উপজেলার বেতদিঘী ইউনিয়নের চৌরাইট আখিরা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, চৌরাইট অখিরা গ্রামের  মৃত আনার মোল্লার ছেলে জসিম উদ্দিন(৭৫), জসিম উদ্দিনের স্ত্রী মজিদা বেগম (৬০), মাজেদা রহমান এর ছেলে সিরাজুল (২২), তজিমউদ্দিনের ছেলে রহেদুল ইসলাম(৪৫), মহিউদ্দিনের ছেলে ইউনুস(৪০), সুলতান মাহমুদ(৩৫) ও ইউনুসের স্ত্রী গোলাপি বেগম(৩২)। আহতদের উদ্ধার করে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জসিম উদ্দিন জানায়, চৌরাইট মৌজার ১০০৭ নং দাগের ৭১শতক জমি নিয়ে তার চাচাতো ভাই মনির উদ্দিনের  ছেলে আজিজার, আতাউর, আনিছুর, ইউনুস আলী, সুলতান মাহমুদ ও মাহাবুবুর রহমানদের সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এই বিরোধের জের ধরে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টায় মনির উদ্দিনের ছেলেরা দলবদ্ধ হয়ে তার ও তার ভাতিজার লাগানো বাঁশ ও গাছ কর্তন করতে শুরু করে। এ সময় সে তার ভাতিজা রহেদুল, তার নাতি সিরাজুল বাধা দিতে গেলে তাদেরকে মারডাং করে আহত করে এবং তার খড়ের গাদায়  অগ্নিসংযোগ করে। পরে খবর পেয়ে ফুলবাড়ী ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের একটি টিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন। এ বিষয়ে মনির উদ্দিনের ছেলে আজিজার রহমান এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে  তিনি বলেন, ১০০৭ দাগের ৭১ শতক জমির অর্ধেকের মালিক তারা। এই জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। তাদের প্রাপ্ত জমির বাঁশ কাটতে যাওয়ায় তারা মারডাং শুরু করে। এতে তার ছোট ভাই ইউনুস, ইউনুসের স্ত্রী ও সুলতান মাহামুদ আহত হয়।

এদিকে অগ্নিসংযোগ ও সংঘর্ষের ঘটনা শুনে ওইদিন দুপুরেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন ফুলবাড়ী থানার অফিসার মোকসেদ আলী ও ওসি তদন্ত আব্দুর রহমান। মোকসেদ আলী বলেন, ঘটনার সরেজমিন তদন্ত করা হয়েছে কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন পক্ষই মামলা দায়ের করেনি। মামলা দায়ের করলেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং তিনি বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অপরদিকে গ্রামবাসিরা জানায়, এই জমি নিয়ে জসিম উদ্দিন গং ও মনির উদ্দিন গং এর মধ্যে ইতিপূর্বেও কয়েকদফা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। বেতদিঘী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস বলেন, বিষয়টি নিয়ে কয়েকদফা আপোষের আলোচনা হলেও তা পরবর্তীতে আপোষ টেকেনি।

Spread the love