শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়ন আবাহনী

ফেডারেশন কাপের রোমাঞ্চকর ফাইনালে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস অ্যান্ড সোসাইটি (রহমতগঞ্জ এমএফএস)কে হারিয়ে ১২ বারের মত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আবাহনী লিমিটেড। 

রোববার বিকেলে কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে আবাহনীর কাছে ২-১ গোলে হেরে দ্বিতীয়বারের মত শিরোপার স্বপ্ন ভঙ্গ হলো রহমতগঞ্জ এমএফএস’র। এর আগে ২০১৯ সালে ফাইনালে বসুন্ধরা কিংসের কাছে হেরেছিল দলোটি।

ম্যাচের ১২ মিনিটে গোল প্রায় পেয়েই গিয়েছিল রহমতগঞ্জ। আবাহনী গোলরক্ষক সোহেলকে ডি-বক্সের বাইরে এগিয়ে আসতে দেখে ৪০ গজ দূর থেকে পোস্ট বরাবর চিপ করেছিলেন আবাহনীরই সাবেক নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে চিজোবা।  সেই শট অল্পের জন্য হয়েছে লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায় এ যাত্রায় রক্ষা আবাহনীর। 

এর দুই মিনিট পর সোহেলকে একা পেয়েও বল পোস্টে ঢোকাতে ব্যর্থ রহমতগঞ্জের ঘানাইয়ান ফরোয়ার্ড ফিলিপ আজাহ। 

২৯ মিনিটে গোলের সবচেয়ে সুযোগটা হাতছাড়া করেছে আবাহনী। নিজেদের অর্ধ থেকে টুটুল হোসেন বাদশার ফ্রি-কিক থেকে দানিয়েলে কলিন্দ্রেস ও জুয়েল রানার মাথা ঘুরে একবারে ফাঁকা পোস্টে বল পান নাবীব নেওয়াজ জীবন।  কিন্তু অতিরিক্ত তাড়াহুড়ায় বল জালে জড়ানোর পরিবর্তে পোস্টের ওপর দিয়ে বল বাইরে পাঠান আবাহনী অধিনায়ক। 

৩৬ মিনিটে কর্নার থেকে এনামুল ইসলাম গাজীর হেডও অল্পের জন্য খুঁজে পায়নি জাল।  এরপর ৪৫ মিনিটে আরো একটি সুযোগ মিস করেন রহমতগঞ্জের নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে চিজোবা।

তবে শেষ মুহূর্তে ভুল করেননি আবাহনীর ফরোয়ার্ড দানিয়েলে কলিন্দ্রেস। বা পায়ের শটে গোলে করে প্রথমার্ধে এগিয়ে দেন আবাহনীকে। 

বিরতির পর ৪৯ ও ৫০ মিনিট দুইবার আবাহনীকে এগিয়ে দেওয়ার সুযোগ এসেছিল কলিন্দ্রেসের সামনে। প্রথমবার রহমতগঞ্জ ডিফেন্ডার তোরে ল্যান্সিংয়ের ভুল সুযোগ নিয়ে তার শট অল্পের জন্য পোস্ট খুঁজে পায়নি। পরের মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে নেওয়া কলিন্দ্রেসের শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে চলে যায় বাইরে। 

তবে ৬৪ মিনিটে রহমতগঞ্জকে ফেডারেশন কাপ জয়ের স্বপ্ন থেকে ছিটকে দেন রাকিব হোসেন। ডানপ্রান্ত ধরে নুরুল নাইয়ুম ফয়সালের শট ফিস্ট করে ফিরিয়েছিলেন রহমতগঞ্জ গোলরক্ষক রাকিবুল হাসান তুষারের। তার ফিস্টে বল পড়ে ফাঁকায় দাঁড়ানো রাকিবের পায়ে। তার সামনে তখন কেবল রহমতগঞ্জ গোলরক্ষক। ঠাণ্ডা মাথায় ডান পায়ের দুর্দান্ত এক ফিনিশিং দেন রাকিব হোসেন। 

দুই গোলে পিছিয়ে থাকা রহমতগঞ্জ ম্যাচে ফেরে ৭০ মিনিটে। শাহরিয়ার বাপ্পীর পাস থেকে ডি-বক্সের বাইরে বল পান ঘানাইয়ান ফিলিপ আজাহ। গায়ের সঙ্গে লেগে থাকা আবাহনীর বদলি ডিফেন্ডার মামুন মিয়াকে ছিটকে ফেলে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে বল জালে জড়িয়ে ব্যবধান কমান আজাহ। এরপর বেশি কয়েকবার চেষ্টা করেও ব্যবধান কমাতে ব্যর্থ হয় রহমতগঞ্জ।

শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয়ে বিজয়ের হাসি হাসে আবাহনী।  মৌসুমের শুরুতে স্বাধীনতা কাপের শিরোপা ও ঘরে তুলেছে দলটি। 

খেলা শেষে চ্যাম্পিয়ন আবাহনী লিমিটেড এর হাতে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি, মেডেল ও ৫ লাখ টাকার চেক তুলে দেন মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী আ. ক ম মোজাম্মেল হক এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

রানার্স আপ রহমতগঞ্জ এমএফএস এর হাতে ট্রফি, মেডেল ও ৩ লাখ টাকার চেক তুলে দেন বাফুফে সিনিয়র সহ-সভাপতি ও প্রফেশনাল লীগ কমিটির চেয়ারম্যান জনাব আব্দুস সালাম মুর্শেদী এমপি।

টুর্নামেন্টে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার এবং ম্যান অফ দ্য ফাইনাল নির্বাচিত হন আবাহনী লিমিটেডের ফরোয়ার্ড দানিয়েল কলিন্দ্রেস। টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার যৌথভাবে লাভ করেন আবাহনী লিমিটেডের ডরিয়েলটো গোমেস এবং রহমতগঞ্জ এমএফএস এর  ফিলিপ আযহা।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email