বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজ নির্মল সেনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী

আজ রাজনীতিক, মুক্তিযোদ্ধা, প্রখ্যাত সাংবাদিক, কলামিস্ট  ও লেখক কমরেড নির্মল সেনের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী।

২০১৩ সালের ৮ জানুয়ারি তিনি মৃত্যু বরণ করেন।  তিনি নিজ দেহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে দান করে গেছেন।

১৯৩০ সালের ৩ আগস্ট গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার দিঘীরপাড় গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত  পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন বামপন্থী এই রাজনীতিক। তার পিতার নাম সুরেন্দ্রনাথ সেন গুপ্ত। মায়ের নাম লাবণ্যপ্রভা সেন গুপ্ত। ৯ ভাই- বোনের মধ্যে নির্মল সেন ছিলেন ৪র্থ।

১৯৪৮ সালে বিএসসি পড়ার সময় ছাত্র আন্দোলন করতে গিয়ে রাজবন্দী হিসেবে গ্রেপ্তার হন। পরে জেল থেকে ছাড়া পান ১৯৫৩ সালে। কারাবন্দী থাকার কারণে বিএসসি পরীক্ষা দিতে না পেরে পরবর্তীতে ১৯৬১ সালে জেলে থেকেই বিএ পাশ করেন। ১৯৬৩ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে এম. এ পাশ করেন।

১৯৪২ সালে ৯ম শ্রেণিতে পড়াকালীন ‘ভারত ছাড়’ আন্দোলনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় নির্মল সেনের রাজনৈতিক জীবন। নির্মল সেন সেই আন্দোলনেই টানা ১৬ দিন স্কুলে ধর্মঘট করেন। ১৯৪৮ সালের ১৮ আগস্ট ভাষা আন্দোলনে জড়িত থাকার অভিযোগে প্রথম গ্রেপ্তার হন।

১৯৫২ সালে জেলে থাকাবস্থায় এম.এ আউয়ালের অনুরোধে পূর্ব-পাকিস্তান  মুসলিম ছাত্রলীগে যোগ দেন। তবে নির্মল সেন ছাত্রলীগে যোগদানের শর্ত হিসেবে এম.এ আউয়ালের কাছে পূর্ব-পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ থেকে মুসলিম শব্দটি বাদ দেয়ার দাবি করেন। সেই দাবী মেনে নেওয়ায় তিনি ছাত্রলীগে যোগ দেন। ১৯৫৩ সালে তিনি বরিশাল জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৫৪ সালে নির্বাচিত হন পূর্বপাকিস্তান ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় দপ্তরসম্পাদক। ১৯৫৬ সালে ছাত্রলীগ ছেড়ে যোগ দেন ছাত্র ইউনিয়নে। ১৯৬৯ সালে আদমজী জুট মিলে রুহুল আমিন কায়সার, খান সাইফুর রহমান, নির্মল সেন, ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, নেপাল নাগ এবং সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে শ্রমিক-কৃষক সমাজবাদী দল নামে একটি বামপন্থী রানৈতিক দল গঠন করেন। ১৯৮৮ সালে তিনি দলের সাধারণ সম্পদক নির্বাচিত হন। সামরিক শাসন-বিরোধী আন্দোলনে গঠিত বামপন্থীদের ৫ দলের নেতৃত্ব দেন কমরেড নির্মল সেন।

বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট গঠনেও নির্মল সেন নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করেন। তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ২০০৮ সালে গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সভাপতি নির্বাচিত হন। আমৃত্যু তিনি এ দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৭১ সালে স্বাধীকার আন্দোলনে নির্মল সেন সংগঠক হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি আগরতলা ক্যাম্পসহ বিভিন্ন ক্যাম্পে সংগঠকের দায়িত্ব পালন করেন।

Spread the love