শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

‘বঙ্গবন্ধুর রক্ত নিশ্চিহ্ন করতেই ঘাতকরা রাসেলকেও ছাড় দেয়নি’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের পর কেবল সাড়ে ৩ বছর সময়ই সে পিতৃস্নেহ পেলেও ঘাতকদের নির্মম বুলেটে তাকে শাহাদাৎবরণ করতে হয়েছে। ৭৫এর ১৫আগষ্ট তাকেও নির্মমভাবে হত্যা করেছে ঘাতকরা। বঙ্গবন্ধুর রক্ত নিশ্চিহ্ন করতেই ঘাতকরা রাসেলকেও ছাড় দেয়নি।
মঙ্গলবার রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৩তম জন্মদিনের অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।
চিরকালই পিতৃস্নেহ বঞ্চিত রাসেলকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা সবসময় ব্যস্ত থাকতাম লেখাপড়া নিয়ে, বাবা কারাগারের বাইরে থাকলে ব্যস্ত থাকতেন তার সংগঠন নিয়ে, মা সংসার সামলানো ছাড়াও বাবার মামলা মোকদ্দমা নিয়ে ব্যস্ত থাকতেন-কাজেই রাসেলকে অনেক সময় একা বাড়িতে থাকতে হত, সেই সময়টা ওর জন্য খুবই কষ্টকর ছিল।
শেখ হাসিনা বলেন, রাসেলের নামটি আমার মায়েরই রাখা। সে সময় তাদের বাড়িতে বই পড়ার রেওয়াজ ছিল। বঙ্গবন্ধু সময় পেলেই কবিতা আবৃত্তি করতেন। রবীন্দ্রনাথ, নজরুলের কবিতা আবৃত্তি করতেন। বার্টান্ড রাসেলের বইগুলো থেকে তরজমা করে মাকে শোনাতেন। তার ফিলোসফি আব্বার খুব পছন্দ ছিল। আমার মা খুব জ্ঞান পিপাসু ছিলেন, লেখাপড়ার তেমন সুযোগ না পেলেও আব্বার বাংলা তর্জমা তিনি মনযোগ দিয়ে শুনতেন। শুনতে শুনতে তিনিও রাসেলের ফিলোসফির প্রতি অনুরক্ত হয়ে পড়েন এবং রাসেল জন্মাবার পর তার নাম রাসেল রাখেন।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারাজীবনের স্মৃতিচারণ করে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা বলেন, আমরা যখন বাবার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে যেতাম, তখন রাসেলকে সেখান থেকে নিয়ে আসাটা কষ্টকর হতো। সে বাবাকে ছেড়ে আসতে চাইতো না। তখন তার বা কতোইবা বয়স? ঠিকমতো কথাও বলতে শেখেনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সে বাবাকে খুঁজে বেড়াতো। মা বলতেন যে, আমিই তো তোমার বাবা। তখন সে মাকে মা বলেও ডাকতো, বাবা বলেও ডাকতো। এভাবেই রাসেল ছোট থেকে বড় হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কের বর্তমান (বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর) বঙ্গবন্ধু ভবনে শেখ রাসেলের জন্ম। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পরিবারের অধিকাংশ সদস্যের সঙ্গে ঘাতকরা হত্যা করে বঙ্গবন্ধুর ছোট ছেলে শিশু রাসেলকেও। তখন ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ত শেখ রাসেল।

শেখ রাসেল স্মরণে আয়োজিত শিশু-কিশোর ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কারও বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করেন।

Spread the love