রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুপ্রাণিত হয়ে জীবন গঠন করতে হবে

এম.আর মিজান ॥ বাঙ্গালি জাতিকে দিক নির্দেশনা দেবার যখন কেউ ছিল না। ১৪শ বছর আগের বাঙ্গালি রাজা শসাঙ্কের পর সেন রাজাদের কিছুটা শাসন থাকলেও পুরোপুরি নেতৃত্ব বাঙ্গালির হাতে ছিল না। বাঙ্গালি জাতি যখন অনেকটা মৃত প্রায় অবস্থায়। ঠিক তখন আধামরা জাতিকে জাগিয়ে তুললেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তার ডাকেই বাঙ্গালি জাতি জেগে উঠে এবং আমরা পাই একটি মানচিত্র, একটি পতাকা। কিন্তু কি দূর্ভাগ্য ইতিহাসের অমর কারিগরকে আমরা নিজ হাতে হত্যা করেছি। বাইরের কি ষড়যন্ত্র ছিল সেটি পৃথক আলোচনা। কিন্তু আমাদের জাতির পিতাকে আমরাই হত্যা করেছি। এটি এ জাতির জন্য বেদনার। আমাদেরকে এসব ইতিহাস জানতে হবে। নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর জীবনী সম্পর্কে জানতে হবে এবং সে অনুযায়ী নিজেদের জীবন গঠন করতে হবে। তাহলেই আমরা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করতে পারবো। নতুন প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর জীবনী, বক্তৃতা শুনলেই হবে না। তার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে বুকে ধারণ করতে হবে। জীবনকে গঠন করতে হবে। তাহলেই আমাদের সব আয়োজন স্বার্থক হবে।

Prodip pic2৩১ আগস্ট বুধবার বিকেলে নাট্য সমিতি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা দিনাজপুর জেলা শাখার আয়োজিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১তম শাহাদৎ বার্ষিকী উপলক্ষ্যে মাস ব্যাপী কর্মসূচীর সমাপনীতে শিশু সমাবেশ, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তারা উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইলতুৎ মিশ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ গোলাম রাব্বী, দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার উপদেষ্টা আলতাফুজ্জামান মিতা, দিনাজপুর সদর উপজেলার চেয়ারম্যান ও মেলার উপদেষ্টা আলহাজ¦ তরিকুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, দৈনিক উত্তরবাংলার নির্বাহী সম্পাদক জিনাত রহমান প্রমুখ। বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা দিনাজপুর জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহজাহান নভেলের সভাপতিত্বে ও প্রদীপ কুমার ঘোষের  সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক আব্দুস সবুর, ফারজানা শারমীন রিনা, পাপ্পা চক্রবর্তী, জয়ন্ত ঘোষ, আবুল কালাম আজাদ, স্বাধীন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সংগীত পরিবেশন করেন জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত শিল্পী চৈতী।

Spread the love