সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বন্ধ হয়ে যাওয়া এই মিল যে ভাবেই হোক চালু করা হবেঃ হুইপ ইকবালুর রহিম

Iqbal Vai Tmদিনাজপুর প্রতিনিধি : বন্ধ হয়ে যাওয়া দিনাজপুর টেক্সটাইল মিলের ৯২৭ জন শ্রমিক ও কর্মকর্তা দীর্ঘদিন পরে হলেও তাদের ভবিষ্য তহবিল (প্রফিডেন্ট ফান্ড)-এর লভ্যাংশের পাওনা টাকা ফিরে পেলেন। জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিমের সহযোগিতায় ঈদের পুর্বে এই টাকা পেয়ে খুশী মিলের শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তারা।

মঙ্গলবার মিল প্রাঙ্গনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে শ্রমিক ও কর্মকর্তাদের মাঝে আনুষ্ঠানিকভাবে এই পাওনা টাকার চেক বিতরন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি।

চেক বিতরনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান উত্তরাঞ্চলের একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান হিসেবে দিনাজপুর টেক্সটাইল মিল প্রতিষ্ঠা করে শত শত মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্ঠি করে দেন। কিন্তু জাতির জনককে হত্যার পর বিভিন্ন সরকার ক্ষমতায় এসে এই মিলে লুটপাট চালিয়ে তিলে তিলে এই মিলকে ধ্বংশ করেছে। বিএনপির জোট সরকার এই মিলকে ধ্বংশ করে দিয়ে অবশেষে ২০০৮ সালে তৎকালীন সরকার মিলটিকে বন্ধ করে দেয়। তিনি বলেন, বন্ধ হয়ে যাওয়া এই মিলটি যেভাবেই হোক চালু করা হবে। টেক্সটাইল মিল হিসেবে চালু করা সম্ভব না হলেও এখানে অন্য কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন করে এই এলাকার বেকার সমস্যার সমাধান করা হবে।

হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, এমপি নির্বাচিত হওয়ার আগে থেকেই ছাত্ররাজনীতি করা অবস্থায় এই মিলের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে তিনি কাজ করেছেন। তিনি বলেন, সবসময়ই এই মিলের শ্রমিক-কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কল্যানের কথা চিমত্মা করেছেন। আর এরই অংশ হিসেবে তিনি শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের এই লভ্যাংশের টাকা নিয়ে আসতে পেরেছেন। শ্রমিকদের অন্যান্য পাওনার দেয়ার ব্যাপারে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে জানান হুইপ ইকবালুর রহিম।

সভাপতির বক্তব্যে দিনাজপুর টেক্সটাইল মিলের উপ-মহাব্যবস্থাপক মোঃ মোজাফ্ফর হোসেন বলেন, বিটিএমসি ও শিল্প মন্ত্রণালয় প্রফিডেন্ট ফান্ডের লভ্যাংশের এই টাকা দেয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দেন। এতে আমরা এই টাকার আশা ছেড়েই দিয়েছিলো। কিন্তু জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম তার্ঐকামিত্মক প্রচেষ্ঠায় এই টাকা আনতে সক্ষম হয়েছেন বলে জানান তিনি। এ জন্য তিনি ইকবালুর রহিমের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও দীর্ঘায়ূ কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সদর আওয়ামীলীগের সভাপতি ইমদাদ সরকার, সাধারন সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন, আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল লতিফ, অশোক কুমার রায় ও আনোয়ার হোসেন, শ্রমিক নেতা তাহের আলী, আব্দুল হক ও মশিউর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে মোট ৯২৭ জন শ্রমিক, কর্মচারী ও কর্মকর্তার মাঝে মোট ১ কোটি ৪১ লাখ টাকার চেক বিতরন করা হয়।

উলে­খ্য, উত্তরাঞ্চলের একমাত্র ভারী শিল্পপ্রতিষ্ঠান হিসেবে ১৯৭৫ সালের মার্চ মাসে দিনাজপুর টেক্সটাইল মিল প্রতিষ্ঠা হয়। ২০০৮ সালে মিলটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখানকার প্রায় ১৩’শ শ্রমিক বেকার হয়ে পড়ে।

শ্রমিকরা জানান, এই টাকার আশা তারা ছেড়েই দিয়েছিলো। কিন্তু পবিত্র রমজান মাসে এবং ঈদের আগে এই অনাকাংখিত টাকা পেয়ে তারা বেশ খুশী।

শ্রমিক আনোয়ারা বেগম জানান, তারা আশা করেনি যে এই টাকা তারা পাবেন। কিন্তু ইকবালুর রহিমের কারনেই এই টাকা পেয়ে তারা ভালোভাবেই ঈদ করতে পারবেন বলে জানান। এজন্য তারা হুইপ ইকবালুর রহিমের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

শ্রমিক আবু তাহের জানান, এই মিলটি রানীরবন্দরে হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু তৎকালীন সময়ে এই অঞ্চলের বর্ষিয়ান নেতা এম আব্দুর রহিম সদর উপজেলায় এই মিলটি স্থাপন করেন। আজ তার ছেলে হুইপ ইকবালুর রহিমের কারনেই তারা হারিয়ে যাওয়া বকেয়া ফিরে পাচ্ছেন। এই জন্য তিনি এম আব্দুর রহিমের দীর্ঘায়ুৃ ও ইকবালুর রহিমের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।