শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বন ও পরিবেশের উপর আদিবাসীদের অধিকার শীর্ষক কর্মশালা

দিনাজপুর প্রতিনিধি: ‘জঙ্গল ছাড়া আদিবাসীদের জীবন বাঁচবেনা। জঙ্গল আদিবাসীদের জীবন, জীবীকা, সভ্যতা, ধর্ম সবকিছু। তাই জঙ্গল ধ্বংস বন্ধ করতে হবে। জঙ্গল প্রাকৃতিকভাবে গড়ে ওঠার সুযোগ করে দিতে হবে এবং জঙ্গলে আদিবাসীদের অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে।’

জঙ্গলে আদিবাসীদের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার এই দাবী জানিয়েছেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি রবীন্দ্র সরেন। তিনি শনিবার সাপ্তাহিক সাম্যমৈত্রী কার্যালয়ে ‘বন ও পরিবেশের উপর আদিবাসীদের অধিকার’ শীর্ষক এক কর্মশালায় এ দাবী জানান। তিনি অভিযোগ করেন, সামাজিক বনায়নের নামে একদিকে সরকার, অপরদিকে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে ভূমিদস্যূরা আদিবাসীদের জমি কেড়ে নিচ্ছে।

রবীন্দ্র সরেন বন ও প্রকৃতি ধ্বংস করা এবং জমি দখলের মাধ্যমে আদিবাসী জাতি-গোষ্ঠীকে ধ্বংস করার সর্বনাশী কার্যক্রমের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য সকল সচেতন মানুষের প্রতি আহবান জানান।

অক্সফামের সহায়তায় অনুষ্ঠিত এ কর্মশালায় বেসরকারী সংস্থা বারসিক এর গবেষক পাভেল পার্থ, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আজহারুল আজাদ জুয়েল, ঠাকুরগাঁওয়ের সাংবাদিক মোঃ আসাদুজ্জামান, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের দিনাজপুর জেলা কমিটির সভাপতি শীতল মার্ডি, সাংগঠনিক সম্পাদক কমলাকান্ত সরেন, বিরামপুর উপজেলা কমিটির আহবায়ক যোসেফ হেমরম, আদিবাসী ছাত্র পরিষদ নেত্রী ভারতী কিস্কু, বিরলের কৃসণ কড়া, সুইহারী খালপাড়ার সুমারী কুজু, নবাবগঞ্জের লক্ষী কান্ত হাজদা, করিাজ ভোগা হাজদা, বীরগঞ্জ সিংড়ার বিমল হাজদা প্রমুখ।

কর্মশালায় গবেষক পাভেল পার্থ বলেন, বনের মানুষকে বন থেকে সরিয়ে দিয়ে বনায়ন অথবা বন সংরক্ষণ করা যায়না। আদিবাসীরাই অন্যদের চেয়ে অনেক বেশি বন সংরক্ষণ করতে পারে। আদিবাসীরা বনে বনআলু সংগ্রহ করতে যায়। বনআলু সংগ্রহ করতে গিয়ে তাদেরকে অনেক গর্ত করতে হয়। এইসব গর্ত বর্ষায় পানি সংরক্ষণ করে । ঐ পানি শুকনো মৌসুমে গাছের প্রয়োজনীয় পানির চাহিদা মেটায়। মাটির উর্বরা শক্তিও বাড়ায়। শালবনে উঁইপোকার ঢিবি ভেঙ্গে দিয়ে আদিবাসীরা এক ধরনের খাদ্য সংগ্রহ করে। এর ফলে উঁইপোকাকে এক স্থানথেকে আরেক স্থানে যেতে হয়। মাটির নীচ দিয়ে চলাচলের কারণে বনের ভিতরে অসংখ্য সরু নালার সৃষ্টি হয় যা বনের ভিতরে বর্ষাকালে পানি ছড়িয়ে দিয়ে সকল গাছের জীবনী শক্তি বাড়িয়ে দেয়। এরকম আরো অসংখ্য কাজের দ্বারা আদিবাসী জনগোষ্ঠী প্রাকৃতিকভাবে বন সংরক্ষণে সবচেয়ে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে।

আজহারুল আজাদ জুয়েল বলেন, পৃথিবীতে ভাষার সংখ্যা অনেক, ধর্মের সংখ্যা অনেক, দেশের সংখ্যাও অনেক। এরকম জাতি-গোষ্ঠীর  সংখ্যাও অনেক। অনেক কিছুর সমন্বয়েই সুন্দর কিছু তৈরী হয়। কাজেই এদেশের সকল জাতি,সকল গোষ্ঠী, সকল ধর্ম, সকল বর্ণের মানুষ মিলে মিশে, স্বাধীন ও সুন্দরভাবে এবং অধিকার নিয়ে বসবাস করবে এটাই হওয়া উচিত।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email