শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বরিশালে লঞ্চডুবির ঘটনায় ১৩ জনের মৃত্যু

বরিশালের বানারীপাড়ায় সন্ধ্যা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় ১৩ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে ১৩ জন।

বুধবার দুপুর ১২টার দিকে সন্ধ্যা নদীর দাসেরহাট এলাকায় এ লঞ্চডুবি ঘটে। এ ঘটনায় ৯ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক ড. গাজী সাইফুজ্জামান।

তিনি জানান, এ ঘটনায় ৪ নারী, ২ শিশুসহ ১৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো ২২ যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন। নিখোঁজদের মধ্যে ২২ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে।

তারা হলেন সুজা মোল্লা, মনোয়ারা বেগম, হামিদা বেগম, খুকু মিস্ত্রি, রাবেয়া বেগম, সাখাওয়াত হোসেন, মিলন ঘরামী, নাজাত (৯), সাগর, আ. মজিদ, ফিরোজা বেগম, দিদার, রিয়াদ, রেহানা বেগম, রাফি, মারিয়া আক্তার, হিরা, রামুক, কল্পনা, সুখদেব মল্লিক, জয়নাল ও রুহুল আমিন। এ ছাড়াও উদ্ধারকারী জাহাজ নির্ভীক ঘটনাস্থলে রওনা দিয়েছে বরিশাল থেকে।

ঘটনাস্থলে থানা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল ও স্থানীয়রা উদ্ধারকাজ চালাচ্ছেন। ডুবে যাওয়া লঞ্চটিকে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে শনাক্ত করতে পেরেছে ডুবুরিদল।

তবে প্রবল স্রোত থাকায় লঞ্চ উদ্ধারকাজে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যানের কাছে সহায়তা চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বানারীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. জিয়াউল হাসান।

বিকেল ৪টা পর্যন্ত উদ্ধার হওয়া যাত্রীরা হলেন উজিরপুরের হারতা গ্রামের সুকদেব মল্লিক (৩০), রাবেয়া বেগম (৫০), মোজাম্মেল মোল্লা (৬০), রুপা বেগম (২৫), সাগর মীর (২৪), জিরাকাঠী গ্রামের মিলন ঘরামী (৩৫), মশাং গ্রামের শান্তা (৮), রহিমা বেগম (৬৫), অজ্ঞাত (৮) এক শিশু, উত্তর সাতবাড়িয়া গ্রামের কোহিনূর বেগমসহ (৪৫) মোট ১৩ জন।

নৌ-পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আব্দুল মোতালেব জানান, সকাল সাড়ে ১০টায় বানারীপাড়া ঘাট থেকে ৫০ থেকে ৬০ জন যাত্রী নিয়ে লঞ্চটি উজিরপুর উপজেলার হাবিবপুরের উদ্দেশে যাচ্ছিল। পথিমধ্যে বেলা সোয়া ১১টার দিকে উত্তর দাসেরহাটে ঘাট দিতে গেলে নদীর পাড় ভেঙে লঞ্চটির ওপর পড়লে কাত হয়ে ডুবে যায়। ঘটনার সময় বৃষ্টি থাকায় ছাদে ও ভেতরে থাকা ২০ থেকে ২৫ জন যাত্রী সাঁতরে তীরে উঠতে সক্ষম হন। এখন পর্যন্ত নিখোঁজ ২৪ জনের নামের তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের বরিশালের সহকারী পরিচালক ফারুক হোসেন সিকদার জানান, লঞ্চডুবির ঘটনায় বানারীপাড়া বরিশাল মিলিয়ে তারা দুটি দল কাজ করছে। বেলা ৩টার দিকে লঞ্চটি শনাক্ত করতে পেরেছে ডুবুরিরা। তবে স্রোতের কারণে লঞ্চ উদ্ধারে বিলম্ব হচ্ছে।

বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম জানান, ঘটনার পর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল উদ্ধারকাজ শুরু করে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে ডুবে যাওয়া লঞ্চটির স্থান শনাক্ত করে লাশ উদ্ধারের চেষ্টা করছেন। নদীতে তীব্র স্রোতের কারণে উদ্ধারকাজ বিলম্বিত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের জন্য ১০ হাজার টাকার সহায়তা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জাকির হোসেনকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে ৭ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Spread the love