বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বর্ণবাদবিরোধী কিংবদন্তি ম্যান্ডেলা আর নেই

1386313825দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট এবং বর্ণবাদবিরোধী কিংবদন্তি নেতা নেলসন ম্যান্ডেলা (৯৫) আর নেই।  স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার গভীররাতে জাতীয় টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে এ খবর জানিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা। বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোররাত ৪টার দিকে বিবিসি, সিএনএনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে শান্তিতে নোবেলজয়ী ম্যান্ডেলার না ফেরার দেশে যাওয়ার এ খবর জানানো হয়।

প্রতিবেদনে জানানো হয়- জাতীয় টেলিভিশনে দেয়া ভাষণে ম্যান্ডেলার প্রয়াণের খবর জানিয়ে প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমা বলেন, “তিনি এখন বিশ্রামে। তিনি এখন শান্তিতে।প্রেসিডেন্ট জুমা বলেন, আমাদের জাতি হারিয়েছে তার শ্রেষ্ঠ সন্তান। এসময় প্রেসিডেন্ট পূর্ণ রাষ্ট্রীয় সম্মানে নেলসন ম্যান্ডেলার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার আগ পর্যন্ত শুক্রবার থেকে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার নির্দেশ দেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার অবিসংবাদিত নেতা ও প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট ম্যান্ডেলার নতুন করে ফুসফুসের সংক্রমণ হওয়ার পর গত জুন মাসে তাকে প্রিটোরিয়ার এক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে দীর্ঘ তিন মাস তার চিকিৎসা চলে। এ সময় তার অবস্থাকে সংকটজনক ও স্থিতিশীল বলে বর্ণনা করা হয়।  তবে দীর্ঘ সময় ধরে কিংবদন্তি এই নেতার হাসপাতালে থাকায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বব্যাপী। তার সুস্থতা কামনায় দেশে-বিদেশে হয়েছে প্রার্থনা। তাকে চিরবিদায়ের সময় ঘনিয়ে এসেছে- এমন আশঙ্কায় প্রিটোরিয়ার হাসপাতালে সামনে মোমবাতি জ্বালিয়েও রাখেন ভক্তরা। ম্যান্ডেলা হাসপাতাল ছেড়ে জোহানেসবার্গের হাউটন এলাকার নিজ বাড়িতে ফেরেন। সেখানে তার জন্য নিবিড় পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা স্থাপন করা হয়েছিল।

কিংবদন্তির রাষ্ট্রনায়ক নেলসন ম্যান্ডেলা

নেলসন ম্যান্ডেলা ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং আকর্ষণীয় রাষ্ট্রনায়কদের একজন, যিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় বর্ণবাদের অবসান ঘটিয়ে বহু বর্ণ ভিত্তিক গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্ব, প্রখর রসবোধ, তিক্ততা ভুলে বৈরি প্রতিপক্ষের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেয়ার মত উদারতা এবং তার বর্ণাঢ্য ও নাটকীয় জীবন কাহিনী—এসব মিলিয়ে নেলসন ম্যান্ডেলা ছিলেন এক জীবন্ত কিংবদন্তি।

বর্ণবাদের অবসানের পর ১৯৯৪ সালের ১০ মে নতুন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন নেলসন ম্যান্ডেলা। এর মাত্র এক দশক আগেও সংখ্যালঘু শ্বেতাঙ্গ শাসিত দক্ষিণ আফ্রিকায় এই রাজনৈতিক পটপরিবর্তন ছিল এক অকল্পনীয় ঘটনা। এই পরিবর্তনের পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন নেলসন ম্যান্ডেলা। শুধু দক্ষিণ আফ্রিকায় নয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠায়ও তিনি ভূমিকা রাখেন। ১৯৯৩ সালে তাকে শান্তির জন্য নোবেল পুরস্কার দেয়া হয়।

তরুণ বিপ্লবী

১৯১৮ সালে নেলসন মানডেলার জন্ম। তার বাবা ছিলেন ইস্টার্ণ কেপ প্রদেশের থেম্বো রাজকীয় পরিবারের কাউন্সিলর।  বাবা নাম রেখেছিলেন রোলিহ্লাহলা ডালিভুঙ্গা ম্যান্ডেলা। স্কুলের এক শিক্ষক তার ইংরেজী নাম রাখলেন নেলসন। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার আপামর মানুষের কাছে তিনি ছিলেন ‘মাদিবা’।

তরুণ বয়সে নেলসন ম্যান্ডেলা চলে আসেন জোহানেসবার্গে, সেখানে তিনি আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের যুব শাখার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। ঘনিষ্ঠভাবে জড়িয়ে পড়েন দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলনে।  একই সঙ্গে তিনি কাজ শুরু করেন একজন আইনজীবী হিসেবেও। আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেসের আরেক গুরুত্বপূর্ণ নেতা অলিভার টাম্বোর সঙ্গে মিলে তিনি তার অফিস খোলেন জোহানেসবার্গে।  ১৯৬০ সালে শার্পভিলে কৃষ্ণাঙ্গ বিক্ষোভকারীদের ওপর পুলিশের গুলিতে ৬৯ জন নিহত হলে বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলন তীব্র হয়ে উঠে। শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে আদৌ আর লাভ হবে কিনা সে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে।
এসময় এক বক্তৃতায় নেলসন ম্যান্ডেলা বলেছিলেন, সরকার যখন নিরস্ত্র এবং প্রতিরোধ বিহীন মানুষের ওপর পাশবিক আক্রমণ চালাচ্ছে, তখন সরকারের সঙ্গে শান্তি এবং আলোচনার কথা বলা নিস্ফল। এএনসি সশস্ত্র সংগ্রাম শুরু করলে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ নেলসন ম্যান্ডেলাকে গ্রেফতার করা হয়, বিচারে তার যাবজ্জীবন সাজা হয়। শুরু হয় দক্ষিণ আফ্রিকার কুখ্যাত রুবেন দ্বীপে তার দীর্ঘ কারাজীবন।

২৭ বছর পর মুক্তি

কিন্তু নেলসন ম্যান্ডেলা এবং এএনসির শীর্ষ নেতাদের কারাবন্দি করলেও দক্ষিণ আফ্রিকার কৃষ্ণাঙ্গ টাউনশীপগুলোতে বর্ণবাদ বিরোধী লড়াই অব্যাহত থাকে। পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারান শত শত কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ। নেলসন ম্যান্ডেলার মুক্তির জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপও বাড়তে থাকে। শেষ পর্যন্ত তিনি মুক্তি পান ১৯৯০ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি, দীর্ঘ ২৭ বছর কারাভোগের পর।  সেদিন কারাগারের সামনে দেয়া বক্তৃতায় নেলসন ম্যান্ডেলা তার সমর্থকদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন সেই কথা, যা তিনি তার বিচারের সময় আদালতে বলেছিলেন।  ম্যান্ডেলা বলেন, এমন এক দক্ষিণ আফ্রিকার স্বপ্ন দেখেন তিনি, যেখানে সব জাতি, সব বর্ণের মানুষ সমান সুযোগ নিয়ে এক সঙ্গে থাকতে পারবে। এটা এমন এক আদর্শ, যেটির আশায় আমি বেঁচে থাকতে চাই। কিন্তু যদি দরকার হয়, এই আদর্শের জন্য আমি মরতেও প্রস্তুত। পুরনো দক্ষিণ আফ্রিকাকে পেছনে ফেলে নতুন আফ্রিকা গড়ার কাজটা সহজ ছিল না। কিন্তু নেলসন ম্যান্ডেলা অতীতের তিক্ততার প্রতিশোধ নেয়ার পরিবর্তে তার সাবেক শ্বেতাঙ্গ নিপীড়কদের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিলেন। শুরু হলো এক নতুন দক্ষিণ আফ্রিকার পথ চলা।
মুক্তির পর দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদী সরকারের সঙ্গে নতুন এক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আলোচনা শুরু হয়, যেখানে সব বর্ণ এবং সব জাতির সমানাধিকার থাকবে। এর পথ ধরেই ১৯৯৪ সালের নির্বাচনে বিপুল ভোটে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন নেলসন ম্যান্ডেলা। রাজনৈতিক জীবনের মতো, নেলসন ম্যান্ডেলা ব্যক্তিগত জীবনও ছিল ঘাত-প্রতিঘাতে ভরা।  ১৯৯৪ সালে তিনি তার প্রথম স্ত্রী ইভলিন মেসকে বিয়ে করেন। এই বিয়ে বেশিদিন টেকেনি।  দ্বিতীয় স্ত্রী এবং দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা উইনি ম্যান্ডেলার সঙ্গে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তটি ছিল তার জীবনের কঠিনতম সিদ্ধান্তগুলোর একটি।  ৮০তম জন্মদিবসে তিনি তৃতীয়বার বিয়ে করেন মোজাম্বিকের সাবেক ফার্স্ট লেডি গ্রাসা মার্শেলকে।

ম্যান্ডেলার উত্তরাধিকার

অবসরে যাওয়ার পরও নেলসন ম্যান্ডেলার ব্যস্ততা থামেনি, স্বাধীনতা এবং বিশ্ব শান্তির এক আইকন বা প্রতীকে পরিণত হয়েছেন তিনি, সুতরাং তার ডাক পড়তে থাকে বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কাজে।  তার এক ছেলে মারা গিয়েছিলেন এইডসে। এ ঘটনার পর তিনি দক্ষিণ আফ্রিকায় এইডস প্রতিরোধ এবং এর চিকিৎসা নিয়ে সোচ্চার হন।  বাকী জীবনের বেশিরভাগ সময় তিনি দারিদ্র দূরীকরণ এবং এইডস নিরাময়ের লক্ষ্যে প্রচারণায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন।
নেলসন মানডেলাকে একবার জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, তাকে কিভাবে মনে রাখলে খুশী হবেন তিনি?  তার উত্তর ছিল, “আমি চাই আমার সম্পর্কে এরকম কথাই বলা হোক, এখানে এমন এক মানুষ শায়িত আছেন, যিনি পৃথিবীতে তার কর্তব্য সম্পাদন করেছেন। আমি চাই এটুকুই বলা হোক আমার সম্পর্কে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email