রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বর্ষায় পানি বৃদ্ধির সাথে মাছ ধরার উপকরণ বিক্রিও বৃদ্ধি পেয়েছে

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: বর্ষা মৌসুমে পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর ও খানসামা উপজেলায় মাছ ধরার উপকরণ বিক্রিও বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সময় দেশিয় বাঁশ-বেত দিয়ে মাছ ধরার ফাঁদ তৈরির কারিগরসহ বাড়ির মহিলারা অবসর সময়ে এসব উপকরণ তৈরি করে বাড়তি অর্থ আয় করছে। এলাকা ভিক্তিক এসব দেশিয় উপকরণের নাম- ভোরং, পলই, ঢাংগি, ডাড়কি, টইয়া, ডিড়ই, বানা, হেঙ্গা ও খোলসুন নামে অভিহিত। পেশাদার ও মৌসুমী জেলেরা এসব দিয়ে মাছ শিকার পরিবারের চাহিদা মিটিয়ে বাজার বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে নদী-নালা ও পুকুর-ডোবার মাছ ভেসে গেছে। এসব মাছ ছড়িয়ে পড়েছে জমিতে। এ সুযোগে লোকজন মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠেছে। পানির মধ্যে মাছ ধরার জন্য এসব ফাঁদ রেখে দেয়া হয়।
বর্ষা মৌসুমে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হচ্ছে বাঁশের তৈরি ভোরং নামের একটি যন্ত্র। এলাকাভেদে এ যন্ত্রটিকে খোলসুন বলা হয়। আর বই-পুস্তকের ভাষায় বিটে বলা হয়। পানির মধ্যে এই যন্ত্রটি রেখে দেয়া হয়। চলাচলের সময় ছোট ছোট মাছগুলো বাঁশের তৈরি এই ফাঁদের ভিতরে আটকা পড়ে। এটি প্রামাঞ্চলের মাছ ধরার জনপ্রিয় একটি মাধ্যম।
সরেজমিনে গত ২১ জুন মঙ্গলবার দুপুরে খানসামা উপজেলার পাকেরহাট এবং ২৩ জুন বৃহস্পতিবার চিরিরবন্দর উপজেলার রানীরবন্দরহাটে দেখা যায়, মাছ ধরার কয়েক প্রকার এসব উপকরণ নিয়ে কারিগররা বসে আছেন। পেশাদার ও সৌখিন মাছ শিকারীদের আনাগোনায় জমে উঠেছে মাছ ধরার ফাঁদের বাজার। একেকটি উপকরণের দাম প্রকারভেদে অন্তত ৩০০ টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত।
মাছ ধরার উপকরণ কিনতে আসা খানাসামা উপজেলার ছাতিয়ানগড় গ্রামের মশিউর রহমান বলেন, ‘ আমাদের গ্রামের আশপাশের আবাদি জমি ও ছোট ছোট ডোবা-নালা বর্ষার পানিতে ভরে গেছে। এসব আবাদি জমি ও ছোট ছোট ডোবা-নালায় দেখা মিলছে বিভিন্ন জাতের দেশি মাছ। আমি বর্ষাকাল শুরু হলেই মাছ ধরি, এটা আমার নেশা। তাই মাছ ধরার জন্য ভোরং কিনতে এসেছি।
দীর্ঘ ১০ বছর থেকে মাছ ধরার এসব উপকরণ তৈরি ও বিক্রি করেন ভান্ডারদহ গ্রামের সুখচাঁদ। তিনি বলেন, ‘আগের মতো তো আর বাঁশের উপকরণের বিক্রি নাই। এখন মানুষ আধুনিক হয়ে গেছে। তারা প্লাস্টিকের জিনিসপত্র ব্যবহার করেন। কুলা, ঝাঁড়ু, খইচালা আর কেউ বেশি নেয় না। তবে বর্ষাকাল আসলে একটু বেশি মাছ ধরার উপকরণ বিক্রি হয়।’ একেকটি উপকরণ বিক্রি করে আকারভেদে ১০০ টাকা থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত লাভ হয়। তবে আগের চেয়ে এসবে লাভ অনেক কমে গেছে। শুধুমাত্র বাপ-দাদার জন্য অনেকেই এখন এসব উপকরণ তৈরি ও বিক্রি করে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email