বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বাংকার খোঁড়াখুঁড়ির কাজ চলছে কাশ্মীরে

নিয়ন্ত্রণ রেখা (লাইন অব কন্ট্রোল) ঘিরে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক (সুনির্দিষ্ট টার্গেটে হামলা) ও পাল্টা আঘাতের খবরের মধ্যে ভারতের কাশ্মীরে চলছে বাংকার (মাটির নিচে গর্ত করে আশ্রয়) খোঁড়াখুঁড়ি। নিজেদের নিরাপত্তায় সেখানকার জনগণ পাহাড়ি এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে এ বাংকার খুঁড়ছেন। আজ শুক্রবার ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বেশ ক’দিন ধরেই ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনায় সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো ছাড়তে শুরু করেন বাসিন্দারা। এরপরও যারা থেকে যাচ্ছিলেন, তারা গত বুধবার রাতে নিয়ন্ত্রণ রেখার ওপারে পাকিস্তান ভূ-খণ্ডের ২ কিলোমিটার ভেতরে ঢুকে ভারতীয় সামরিক বাহিনীর সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালানোর পর চিন্তিত হয়ে পড়ছেন। সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের পরই মূলত কাশ্মীরের বান্দিপোরা, পুঞ্চ ও কুপওয়ারা জেলাসহ সংলগ্ন এলাকার লোকজন বাংকার খুঁড়তে শুরু করেছেন। প্রশাসনের তরফ থেকেই তাদের বাংকার খুঁড়ে রাখতে বলা হয়েছে। আর গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে পাকিস্তানের পাল্টা গুলিতে ১৪ সৈন্য নিহত ও একজনকে বন্দি করার দাবি গণমাধ্যমে ছড়ানোর পর বাংকার খোঁড়ার তোড়জোড় আরও বেড়ে গেছে।

তবে যারা বাংকার খুঁড়ছেন না এবং একেবারে সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় বসবাস করছেন, তাদের সরিয়ে দিচ্ছে প্রশাসন। কাশ্মীরের উপ-মুখ্যমন্ত্রী নির্মল সিংহ যেমনটি বলেছেন, “আমরা নিয়ন্ত্রণ রেখা সংলগ্ন বাসিন্দাদের সরানো শুরু করেছি। দেখা যাক ভবিষ্যতে কী হয়!” রাজ্যের প্রশাসন আশঙ্কা করছে, সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের প্রতিক্রিয়ায় আগামী ক’দিন পাকিস্তানের দিক থেকে গোলাগুলি বাড়বে। সেজন্য টংধর, কেরান এবং মচিলের মতো প্রায় ৩০০ গ্রামের বাসিন্দাকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। এসব গ্রামগুলোর সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে প্রশাসন।

এদিকে, ভারত সীমান্তে যখন এ ধরনের বাংকার খোঁড়াখুঁড়ি চলছে, তখন পাকিস্তানের সীমান্ত সংলগ্ন গ্রামগুলোও খালি করার খবর আসছে। এমনকি ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, পাকিস্তান সীমান্ত খালি করে সেখানে সেনা অবস্থান ও অস্ত্রশস্ত্র মজুদ বাড়িয়েছে। গত ১৮ সেপ্টেম্বর কাশ্মীরের উরি সেনাঘাঁটিতে সন্ত্রাসী হামলা ১৮ ভারতীয় সৈন্য নিহত হওয়ার প্রেক্ষিতে নয়াদিল্লি-ইসলামাবাদ সম্পর্কে উত্তেজনা এখন চরমে। দু’পক্ষই সীমান্তে সেনা মোতায়েন ও তৎপরতা বাড়িয়েছে। দফায় দফায় যুদ্ধবিমানের মহড়া চালাচ্ছে পাকিস্তান। আর ভারতও প্রস্তুত করছে তাদের যুদ্ধবিমানকে। দু’পক্ষের মধ্যে বাকযুদ্ধের মধ্যে গত মঙ্গলবার ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় জানায়, ইসলামাবাদে অনুষ্ঠেয় সার্ক শীর্ষ সম্মেলন বয়কট করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

Spread the love