বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ ও ভারতের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধান হবে

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী বলেছেন, দু’দেশের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর কারণে ভুল বোঝাবুঝি দূর করতে তিনি সেতু হিসাবে কাজ করবেন। এ বিষয়ে তার ওপর আস্থা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এছাড়া মমতার বাংলাদেশ সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধান হবে বলেও আশা ব্যক্ত করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

শুক্রবার বিকেলে বঙ্গভবনে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী রাষ্ট্রপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ আশা প্রকাশ করেন।

প্রায় ৩৫ মিনিট দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন তারা। এর আগে সোনারগাঁও হোটেলে দুই বাংলার সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে এক মতবিনিময়ে মমতা বলেন, তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তিনি আলোচনা করবেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাষ্ট্রপতির স্ত্রী রাশিদা খানম, পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের নগর উন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, পর্যটন মন্ত্রী ব্রাত্য বসু, চলচ্চিত্র অভিনেত্রী ও এমপি মুনমুন সেন, অভিনেতা দীপক অধিকারী দেব, ভারতের হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণসহ রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

দ্বিপক্ষীয় আলোচনা শেষে রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সাথে প্রায় ৩৫ মিনিট দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, সাক্ষাতের সময় রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করেন, মমতার এ সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধান হবে।

সাক্ষাৎ শেষে মমতা ব্যানার্জী রাষ্ট্রপতির বাসভবনে যান এবং আবদুল হামিদের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ৩ দিনের সফরে শুক্রবার রাতে ঢাকায় পৌঁছান মমতা ব্যানার্জী। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের পর ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধু জাদুঘরে যান তিনি।
প্রসঙ্গত ২০১১ সালে ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফরের সময় তিস্তা চুক্তি হওয়ার কথা থাকলেও মমতার বিরোধিতার কারণেই তা আটকে যায়। তখন সময় সই হওয়া স্থল সীমান্ত চুক্তির প্রটোকল বাস্তবায়নও তার আপত্তির কারণে ঝুলে থাকে। ফলে আজও তিস্তা চুক্তিসহ বাংলাদেশ ও ভারতের বেশ কিছু বিষয়ে অমীমাংসিত থেকে যায়।

Spread the love