বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ ১৫ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘বাংলাদেশ নিজেই অচলাবস্থা সমাধানে সক্ষম’

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট বলেছেন, চলমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণভাবে নিজেই সমাধান করতে সক্ষম। তবে বাংলাদেশ চাইলে যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই অবস্থা থেকে উত্তরণে প্রয়োজনীয় সহায়তা করতে প্রস্তুত রয়েছে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টায় ঢাকায় অবস্থিত আমেরিকান ক্লাবে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে তিনি বাংলাদেশের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে এ সব কথা বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাট বলেন, ‘চলমান সহিংসতায় যুক্তরাষ্ট্র উদ্বিগ্ন। রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে সহিংসতাকে কখনও সমর্থন করা যায় না। গণতান্ত্রিক দেশে এমন কর্মকাণ্ডের যৌক্তিকতা নেই। আমরা এই সহিংসতার নিন্দা জানাই। আশা করি, এই অবস্থার অবসান ঘটবে। সংযত ও দায়িত্বশীল আচরণ করা সকল পক্ষের জন্যই জরুরী। দ্রুত বাংলাদেশের জনজীবনে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসুক, এটাই যুক্তরাষ্ট্রের কামনা।’

রাজনৈতিক অচলাবস্থার সমাধানে সংলাপ প্রসঙ্গে বার্নিকাট বলেন, ‘আমি আশা করি, এই সমস্যা বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণভাবে সমাধান করতে সক্ষম। সহিংসতা বন্ধ ও অহিংস কর্মসূচির মাধ্যমে রাজনৈতিক মতপার্থক্য দূর করা সম্ভব। অচিরেই রাজনৈতিক অবস্থার উন্নয়ন ঘটবে বলে আমার বিশ্বাস। কিন্তু কীভাবে আমি (বার্নিকাট) এখনই তা অনুমান করতে পারছি না। তবে বাংলাদেশ চাইলে যুক্তরাষ্ট্রসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই অবস্থা থেকে উত্তরণে প্রয়োজনীয় সহায়তা করতে প্রস্তুত রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র যে কোনো দেশ বা রাষ্ট্রের উন্নয়নে কাজ করে, দ্বিপাক্ষিক এবং বহুপাক্ষিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র কখনই কাজ করে না, যুক্তরাষ্ট্র দেশের সঙ্গে কাজ করে। বাংলাদেশেও যুক্তরাষ্ট্র নির্দিষ্ট কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে কাজ করে না বা কোনো রাজনৈতিক দলের শক্তি হিসেবে কাজ করে না। যুক্তরাষ্ট্র এই দেশের সরকার এবং বাংলাদেশের সকল মানুষকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী। বাংলাদেশের উন্নয়নে যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বাস করে। বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও গভীর করতে যুক্তরাষ্ট্র আগ্রহী।’

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে মার্শা ব্লুম বার্নিকাট বলেন, ‘ওই নির্বাচন সম্পর্কে অনেক আগেই যুক্তরাষ্ট্র তার অবস্থান পরিষ্কার করেছে। সেই অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি।’

জিএসপি ফিরে পাওয়া প্রসঙ্গে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বাংলাদেশ এরই মধ্যে পোশাক খাতের শ্রম পরিবেশ উন্নয়নে সন্তোষজনক অগ্রগতি করেছে। এই বিষয়টি নিয়ে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা, এ্যাকর্ড এ্যালায়েন্স, বাংলাদেশের সরকার ও ব্যবসায়ীরা একসঙ্গে কাজ করছে। আমি বিশ্বাস করি, অচিরেই বাংলাদেশ এই খাতে শতভাগ উন্নয়ন নিশ্চিত করবে এবং কাঙ্ক্ষিত জিএসপি সুবিধা ফিরে পাবে।’