শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক ঐক্য পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখার মানববন্ধন ও স্বারকলিপি পেশ

Techerআব্দুর রাজ্জাক, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ প্রধান শিক্ষকদের একধাপ নিচের স্কেল প্রদানের দাবীতে বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক ঐক্য পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখা মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক’র মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে উক্ত মানববন্ধন ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. হামিদুল হক’র নিকট স্বারকলিপি প্রদান করে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ। স্বারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, বর্তমান সরকার প্রধান শিক্ষকদের ২য় শ্রেণির পদমর্যাদা প্রদান ও সহকারি শিক্ষকদের বেতন স্কেল একধাপ উন্নয়ন ও তা বাস্তবায়নের জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে সম্মতি প্রকাশ করেছেন। কিন্তু তারা দীর্ঘদিন যাবত সহকারি শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে তথা প্রধান শিক্ষকদের একধাপ নীচের বেতন স্কেল প্রদানের জন্য আন্দোলন করে আসছে বলে শিক্ষক নেতৃবৃন্দ স্বারকলিপিতে উল্লেখ করেছেন। তারা আরও উল্লেখ করেছেন যে, ১৯৬৩ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষকদের বেতন স্কেল কখনো সমান আবার কখনো একধাপ নীচে ছিল কিন্তু ২৯ অগাষ্ট’২০০৬ তালিখে তৎকালীন সরকার সহকারি শিক্ষকদের বেতন স্কেল প্রধান শিক্ষকদের ২ ধাপ নীচে দেয়ায় তখন থেকে সহকারি শিক্ষকগণ মানসিকভাবে কষ্টে আছেন এবং প্রধান শিক্ষকগণের একধাপ নীচের স্কেলের জন্য আন্দোলন করে আসছে। পূর্বে প্রধান শিক্ষকদের একধাপ নীচের স্কেলে সহকারি শিক্ষকগণ বেতন পেতেন। কিন্তু ২০০৬ সালে বিএনপি সরকার দুই ধাপ নীচে বেতন নির্ধারণ করেছিলেন আর বর্তমান সরকার বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছেন ৩ধাপ নীচে। শিক্ষক নেতৃবৃন্দ আক্ষেপ করে বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকদের কথা চিন্তা না করে বে সরকারি রেজিষ্ট্রার স্কুলের শিক্ষকদের প্রধান শিক্ষক পদ দিলেন। একবারও ভাবলেন না যে, তাদের চেয়ে সিনিয়র সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারিরা পদোন্নতি না পেয়ে সহকারি শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছে, কিন্তু একই সময়ে বা পরে নিয়োগ পাওয়া বেসরকারি রেজিষ্ট্রার স্কুলের সহকারি শিক্ষকগণ বিনা গ্রেডেশনে পদোন্নতি পেয়ে সরকারি বিদ্যালয়ের প্র্রধান শিক্ষক হয়ে গেলেন। তাহলে আমরা কি সরকারের সৎ ছেলে? স্বারকলিপিতে সর্বশেষে উল্লেখ করা হয়, নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষকদের যোগ্যতা একই স্নাতক নির্ধারণ করা হয়েছে (সর্বশেষ সার্কুলার ২০১৩ অনুযায়ী)। কিন্তু একই যোগ্যতায় পাশাপাশি পদে যোগদান করে বাস্তবায়নাধীন এই বেতন বৈষম্য সহকারি শিক্ষকদের জন্য অমর্যাদাকর ও প্রশ্নবিদ্ধ। পরিশেষে শিক্ষক নেতারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তাদের তিন লক্ষ সহকারি শিক্ষকদের প্রাণের আকুতি বাস্তবায়নাধীন স্কেলের গেজেট প্রকাশের পূর্বে সহকারি শিক্ষকদের মর্যাদার দিকে তাকিয়ে প্রধান শিক্ষক ও সহকারি শিক্ষকদের বেতন স্কেলের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে স্কেল বাস্তবায়ন ও গেজেট প্রকাশ করে সহকারি শিক্ষকদের মর্যাদা বজায় রাখতে বিনীত অনুরোধ করেছেন। মানববন্ধন ও স্বারকলিপিতে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক ঐক্য পরিষদ দিনাজপুর জেলা শাখা আহবায়ক মো. গোলাম ফারুক, যুগ্ম আহবায়ক জুলফিকার আলী, রমজান আলী স্বাধীন, আব্দুল লতিফ, সাখাওয়াত হোসেন, সুলতানা পারভীনসহ জেলা কমিটির সকল শিক্ষকবৃন্দ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email