রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ: প্রতিষ্ঠার ৪৫ বছর

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের অভ্যুদয়৷ সদ্য স্বাধীন দেশ৷ নানা সমস্যায় জজরিত৷ সমস্যার গুরুত্ব অনুধাবন করাও খুব কঠিন ছিল৷ সবগুলোই মনে হত গুরুত্বপূর্ণ৷ তার মধ্য থেকে গুরুত্ব বাছাই করে দেখা গেল নারীদের অবস্থা খুবই নাজুক৷ ঘরে বাহিরে সব জায়গাতেই নারীরা বৈষম্যের শিকার হত৷ বিশেষ করে পরিবারে সেই সময় দিনাজপুরে কিছু মহিয়সী নারী কিছু করার প্রত্যয় নিয়ে বাড়ীতে বাড়ীতে গিয়ে নারীদের সংগঠিত করেন৷ যাঁদের মধ্যে রয়েছে, হাজেরা খানম, বেগম আনোয়ারা চৌধুরী, আজাদী হাই, আকতার কোহিনুর ইসলাম, রাজিয়া সরকার, তৈয়বা আজাদ, হোসনে আরা সাত্তারসহ আরো অনেকে৷ যাঁদের নিরলস প্রচেষ্টায় ১৯৭২ সালে দিনাজপুর জেলায় বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের যাত্রা৷

সেই সময়ে মহিলা পরিষদের কর্মকান্ড পরিচালনা করা খুবই কষ্টকর ছিল৷ কোন বসার জায়গা ছিল না, আর্থিক অনুদান ছিল না৷ যোগাযোগ ব্যবস্থাও অনুন্নত ছিল৷ এত বাধা সত্বেও তারা পিছপা হননি৷ বাড়ীতে বসে সভা করে কাজের পরিকল্পনা করেছিলেন৷ সেই অনুযায়ী কর্মকান্ড বাস্তবায়নও করেছেন৷ কর্মকান্ড বাস্তবায়নে যারা পূনাঙ্গ সহযোগিতা দিয়েছিল তাদের মধ্যে রৌশনী, আলেয়া বেগম-এর নাম না বললেই নয়৷

কাজ করতে গিয়ে অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মুখোমুখি হয়েছেন, হতাশ হননি তারা মনে করতেন আমরা তো সুফিয়া খালাম্মারই শিষ্য, আমরা তার কাছ থেকে দীক্ষা নিয়েছি-ভয় পেয়ে পিছু হাটলে চলবে না সত্যকে প্রতিষ্ঠিত করতে হলে ভয়কে যে জয় করতে হবে৷

প্রতিষ্ঠার ৪৫ বছর বাংলাদেশের নারী আন্দোলনের ইতিহাস তাত্ক্ষণিক বা আকষ্মিক কোন ঘটনা নয়৷ এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে উপমহাদেশের নারী আন্দোলনের দীর্ঘ ধারাবাহিক সংগ্রাম, সংস্কার ও ত্যাগের ইতিহাস৷ এই ইতিহাসের ধারাবাহিকতায় অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক নারী-পুরুষের সমতাপূর্ণ সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রত্যয় নিয়ে ১৯৭২ সালের ৪ এপ্রিল বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের অভ্যুদয় দেখতে দেখতে মহিলা পরিষদ ৪৫ বছরে পদার্পন করেছে৷ সংগঠনের এই গৌরবময় ৪৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকতে অমরা গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করছি তাদেরকে, যাঁদের জীবনের মূল্যে আমরা পেয়েছি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে৷ আমরা গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জননী সাহসিকা কবি সুফিয়া কামালসহ আরো অনেককে যাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে আমরা এই নারী আন্দোলনের পতাকা বহন করার শক্তি ও প্রেরণা পেয়েছি৷ নারী আন্দোলন নারীর অবস্থা পরিবর্তনের আন্দোলন৷ অর্ধেক মানুষ হোক পূর্ণ মানুষ হয়ে ওঠার আন্দোলন৷ নারী-পুরুষের সমতা প্রতিষ্ঠার আন্দোলন,

উপমহাদেশের নারী আন্দোলনের ইতিহাস একদিকে নারীর সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনেতিক ক্ষমতায়নের ইতিহাস৷ অপরদিকে একটি অনুন্নত পশ্চাদপদ সমাজ ব্যবস্থায় নারীর প্রতি সকল ধরণের বৈষম্য ও অবিচারের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ইতিহাস, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ গত ৪ দশকের বেশী সময় ধরে এদেশে নারীর ক্ষমতায়ন এর লক্ষে আন্দোলন করে আসছে৷

নারী-পুরুষের সম্পর্ক এবং ক্ষমতা কাঠামোর পুনবিন্যাস করে সমতাপূর্ণ সমাজ গঠনের প্রয়াস চলছে৷ নারী আন্দোলন বা বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ সংগঠনটির উখাণ কোন আকষ্মিক বা তাত্ক্ষণিক ঘটনা নয়৷ এর পিছনে রয়েছে দীর্ঘকালের সমাজ রাষ্ট্রের সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ইত্যাদি বিবিধ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠা লাভ এবং বিকাশের আন্দোলনের সংগ্রামী ইতিহাস ও ঐতিহ্য৷

নারীমুক্তি মানবমুক্তি, নারীর অধিকার মানবাধিকারএই শ্লোগান কন্ঠে নিয়ে আমাদের ৪৫ বছরের পথ পরিক্রমন, স্বাভাবিকভাবে এই পথ চলা মসৃন ছিল না, সামাজিক, রাজনৈতিক বিভিন্ন ঘাত প্রতিঘাতের মোকাবিলা করেই এই সংগঠন আজ শক্তিশালী প্রগতিশীল বৃহত্ সামাজিক সংগঠন হিসাবে নিজেদের অবস্থানকে সুদৃঢ় করেছে৷ গড়ে তুলেছে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত অজস্র সংগঠক৷

মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে আসছে৷ শুধু মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা নয় দীর্ঘ দিন ধরে নারীর প্রতি সকল প্রকার নির্যাতনের বিরুদ্ধে বহুমাত্রিকভাবে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে আসছে৷ দেশে যখন রাজনৈতিকভাবে একটি গণতান্ত্রিক পরিবেশ সৃষ্টির অপ্রাণ প্রচেষ্টা ও আন্তরিক সদিচ্ছার প্রকাশ ঘটে চলেছে, ঠিক তখনই একের পর এক নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে- যা আমাদের বিবেককে স্তম্ভিত করে দিচ্ছে৷ এটা বন্ধে আইন প্রণয়ন ও তার যথাযথ প্রয়োগ এখন সময়ের দাবী৷ যে তরুণরা সমাজ ও রাষ্ট্রের সার্বিক কল্যাণে ও সম্ভবনার উজ্জল ভবিষ্যতের প্রতিনিধি তারা কেন ক্রমাগত নৈতিক অবক্ষয়ের পথ বেছে নিচ্ছে সে বিষয়ে গভীরভাবে ভেবে দেখা দরকার৷ সেই সাথে মানসিক নৈতিক বিকাশের পাশাপাশি উপযুক্ত কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন৷ এব্যাপারে সরকারের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ জরুুরী৷

নারী নির্যাতন বিরোধী আন্দোলন সংগ্রামের পাশাপাশি ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে নারী পুরুষের সমতাপূর্ণ সমাজ ও সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার জন্য মহিলা পরিষদ কাজ করে যাচ্ছে৷ নারীর প্রতি বৈষম্যমূলক আইন সংস্কারের দাবী জানিয়ে আসছে৷ এরই ধারাবাহিকতায় হিন্দু বিবাহ রেজিষ্ট্রেশন আইন পাশ হয়েছে৷ পাশ হয়েছে পারিবারিক সুরক্ষা আইন৷ এছাড়াও রাজনীতিতে নারীকে সম্পৃক্ত করার ক্ষেত্রে মহিলা পরিষদে রয়েছে অভুতপূর্ণ সাফল্য৷ যার ফলশ্রুতিতে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে জাতীয় সংসদ পর্যন্ত নারীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে৷

জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট প্রণয়ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যৌন নিপীড়ন বন্ধে প্রতিবাদ এবং আইনের বাস্তবায়নের জন্য কাজ করছে৷ যার ফলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধ কল্পে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কর্তৃক গঠিত কমিটিতে মহিলা পরিষদ প্রতিনিধিত্ব করছে৷

সম্প্রতি মেয়েদের বিয়ের বয়স কমানোর প্রস্তাবের প্রতিবাদে বয়স ন্যুনতম ১৮ বহাল রাখার দাবীতে দেশব্যাপী সরকার, সমমনা সংগঠন সুশীল সমাজ, সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা মতবিনিময় সভা অব্যাহত চলছে৷

পরিবার সমাজ রাষ্ট্রে কর্মক্ষেত্রে ব্যক্তিগত জীবনে নারীর মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার বহুমুখী কাজের অংশ হিসাবে একটি জেন্ডার সংবেদনশীল দৃষ্টিভঙ্গী নির্মানের মধ্য দিয়ে নারী পুরুষের বৈষম্য দূুর করার লক্ষ্যে মহিলা পরিষদ পরিচালনা করছে সার্টিফিকেট কোর্স৷ এই উদ্যোগের মধ্য দিয়ে একটি সমতাপূণর্, মানবিক ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পথ সুদৃঢ় হবে৷

বর্তমানে মহিলা পরিষদের অগ্রগতি অনেক৷ বসার জন্য অফিস রয়েছে৷ রয়েছে জেলা কমিটি, ইউনিয়ন কমিটি, পাড়া কমিটি৷ বর্তমানে দিনাজপুরে মোট সদস্য সংখ্যা ১১৬৯ উপজেলা কমিটি ০৪টি, ইউনিয়ন কমিটি ২টি, পাড়া কমিটি ২৩টি৷ এছাড়া রয়েছে ৪ জন প্যানেল আইনজীবী৷ যাঁরা নির্যাতিত নারীদের আইন পরামর্শ ও আইন সহায়তা দিয়ে থাকেন৷

Spread the love