শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে উঠবে-প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে এবং জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল অবদানের জন্য দেশের বিশিষ্ট ৭ ব্যক্তি বাংলাদেশ সরকারের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা ‘স্বাধীনতা পুরস্কার’ পেয়েছেন।

বুধবার সকাল ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে মনোনীতদের হাতে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ এই পদক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন,কিছু দল ও মুষ্টিমেয় কিছু লোকের জন্য বাংলাদেশ হেয় হবে এটা গ্রহণযোগ্য নয়। তিনি বলেন, আমরা স্বাধীনতা এনেছি। আমরা চাই বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে উঠবে।  আমরা চাই বাংলাদেশ উন্নত ও সমৃদ্ধ হবে।  বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে- এটিই তো আমাদের লক্ষ্য। ধ্বংস নয় আমরা উন্নতি চাই। আমরা জঙ্গিবাদী কর্মতৎপরতা চাই না- আমরা শান্তি চাই। জঙ্গিবাদী কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে একটি মহল দেশের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে সবার সহযোগিতাও চান।

স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য শাহ এ এম এস কিবরিয়া ছাড়াও প্রয়াত কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী ও শহীদ মামুন মাহমুদকে এবার স্বাধীনতা পদক দেয়া হয়েছে। সাহিত্য ক্ষেত্রে বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, সংস্কৃতি ক্ষেত্রে যশস্বী চলচ্চিত্র অভিনেতা আব্দুর রাজ্জাক, গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ক্ষেত্রে স্বনামধন্য কৃষি গবেষক ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক মহাপরিচালক ড. মোহাম্মদ হোসেন মণ্ডল এবং সাংবাদিকতা ক্ষেত্রে প্রথিতযশা সাংবাদিক প্রয়াত সন্তোষ গুপ্ত (মরণোত্তর) এ পুরস্কার পান।

পুরস্কারপ্রাপ্তরা একটি করে সোনার পদক এবং একটি সম্মাননাসূচক প্রত্যয়নপত্র পান। এর সঙ্গে নগদ পুরস্কার হিসেবে তাদের প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে দেয়া হয়ে থাকে। ২৬ শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস সামনে রেখে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য প্রতি বছর এ পুরস্কার দিয়ে থাকে সরকার। এ পর্যন্ত ২১২ জন ব্যক্তি ও ২৫টি প্রতিষ্ঠানকে দেশের সর্বোচ্চ এই পুরস্কার দেয়া হয়েছে।

এ সম্পর্কে অধ্যাপক আনিসুল হক বলেন, যারা চলে গেছেন তারা গৌরব নিয়ে গেছেন। আপনারা প্রার্থনা করবেন- আমরা যারা বেঁচে আছি তারা যেন জীবনের বাকি দিনগুলো পদকটির মর্যাদা রক্ষা করে চলতে পারি।

Spread the love