শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাবান্ধাস্থল বন্দরে কাষ্টমস কর্মকর্তাদের নানা দুর্নীতি, অনিয়ম ও সেচ্ছাচারিতা অভিযোগ

মো.এনামুল হক, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর নিয়ে নানা অভিযোগ উঠেছে। কাষ্টমস কর্মকর্তারা মিলেমিশে দুর্নীতিতে গা ভাসিয়ে দেওয়ায় সরকার লাখ লাখ টাকা রাজস্ব হারাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ফলে বন্দরটি অঙ্কুরে তার সম্ভাবনা হারাতে পারে বলে সচেতন মহলে বিষয়টি ব্যাপক আলোচিত হয়ে উঠেছে।

 

এ বন্দর দিয়ে ইতিপূর্বে শুধুমাত্র নেপাল হতে পন্য আসতো এবং যেত। গত ২০১১ সালের ২২ জানুয়ারী পরবর্তীতে ভারতের তৎকালীন অর্থমন্ত্রী বর্তমানে রাষ্ট্রপতি প্রনব মূখার্জী বাংলাদেশের কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী উভয় দেশের রাষ্ট্রের প্রতিনিধি হিসেবে এই বন্দরকে পূর্নাঙ্গস্থল বন্দর হিসেবে উদ্বোধন করেন।

 

ফলশ্রতিতে নেপালের পাশাপাশি ভারতের সাথে বানিজ্য ঘাটতি পূরনে বাংলাদেশ ও ভারতের সাথে শুরু হয় পন্য আমদানী-রপ্তানী। জানা যায়, বর্তমানে ভারতে বাংলাদেশের পন্য বেশী রপ্তানী হচ্ছে। অন্যদিকে আসছে, গম, পাথর পিঁয়াজ সহ ৪/টি পন্য। দেশের বিভিন্ন স্থান হতে ব্যবসায়ীরা যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেকটা সহজতর হওয়ায় বাংলাবান্ধা বন্দরে ব্যবসা করতে আগ্রহী্।

 

তবে শোনা গেছে, কিছুদিন আগে এ পথে ভারতীয় আপেল আসতো। স্থানীয় কতিপয় নামধারী ব্যবসায়ী, দলীয় চাঁদাবাজ ও শ্রমিক নামীয় ক্যাডারদের দাপট সহ চাঁদাবাজীর কারনে কিছুদিন ব্যবসা করার পর অন্য বন্দরে সটকে পড়ে।

 

জানা যায়, নিজ স্বার্থ চরিতার্থ ও অধিক টাকার লোভে স্থানীয় কাষ্টমস কর্মকর্তারা ব্যবসায়ীদের একেবারে সহযোগীতা করেন না। ব্যবসায়িক মানসিকতায় তারা স্থানীয়দের সাথে যোগসাজস করে প্রতিনিয়ত লাখ লাখ হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে ফাঁকিতে পড়ছে সরকার। রাজস্ব হারাচ্ছে বছরে লাখ লাখ টাকা। বাংলাবান্ধাস্থল বন্দরে পঞ্চগড়ের একজন স্থানীয় কর্মকর্তা রয়েছে তিনিই সব ম্যানজে করেন। তার হাতে রয়েছে, সিন্ডিকেট দল। সূত্র জানায়, তিনি পঞ্চগড়ের অঢেল জমি কিনেছেন। যার পরিমান প্রায় ১ শত বিঘা জমি। এই বন্দরে নিয়ম নীতির বালাই নেই। বন্দরটি রাষ্ট্রের সম্পদ না হয়ে ব্যক্তি সম্পদে পরিনত হয়েছে। সকলেই মিলে মিশে দূর্নীতিতে মত্ত। কেউ কেউ ব্যবসা না করে সেখানে অবস্থান করে বর্তমানে কোটিপতি বনে গেছে।

 

একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়,বাংলাদেশী (স্থানীয়) ব্যবসায়ী নেপালী ব্যবসায়ীর সাথে কাগজ পত্রে প্রতারনা করে এ কোটি টাকা আত্নসাৎ করেন। ওই নেপালী ব্যবসায়ীকে হাইকোর্টে কেস করতে হয়। অভিযোগ রয়েছে, ওই সব নামধারী ব্যবসয়ীদের অবাধ চলাফেরা করার কারনে এই বন্দরটির সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। এর মূলে রয়েছে কাষ্টমস কর্মকর্তাদের দুর্নীতি আর সেচ্ছাচারিতা। স্থানীয় সচেতন নাগরিকরা এই বন্দরটির সুষ্ঠু ও ব্যবসায়িক পরিবেশ অক্ষুন্ন রাখার ক্ষেত্রে সরকারের দায়িত্বশীলদের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।

Spread the love