মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০২১ ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের পণ্য আমদানি-রপ্তানি স্বাভাবিক

ডিজার হোসেন বাদশা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি: দ্বিতীয় বারের মতো সারাদেশে চলছে সপ্তাহব্যাপি লকডাউন। আর এই লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাভাবিক ভাবে চালু রয়েছে পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম। অন্যান্য দিনের মতোই চলছে চার দেশের মধ্যে (ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল ও ভূটান) পণ্য আমদানি-রপ্তানি ও ছাড়করণ কাজ।

মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেন পঞ্চগড় আমদানি-রফতানিকারক এসোসিয়েসনের সভাপতি মেহেদী হাসান খান বাবলা।

এছাড়াও দুই দেশের মধ্যে শর্তসাপেক্ষে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ ব্যবস্থা নিয়ে সচল রয়েছে “মেডিকেল, বিজনেস ও কুটনৈতিক” ভিসায় যাতায়াত ব্যবস্থা। অন্যদিকে স্থলবন্দর এলাকা থেকে যাত্রীবাহী সব ধরনের গণপরিবহন সেবা বন্ধ থাকায় এই তিন ক্যাটাগরির পাসপোর্টধারী যাত্রীদের পড়তে হচ্ছে চরম দুর্ভোগে।

সরেজমিনে বন্দর এলাকা ঘুরে ব্যবসায়ী সূত্রে জানা গেছে, গুরুত্বপূর্ণ এই বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর দিয়ে সরকার বর্তমানে প্রচুর রাজস্ব আয় করছে। লকডাউনে যদি বন্দরটি বন্ধ রাখা হয় তবে ব্যবসায়ীদের ক্ষতির পাশাপাশি সরকার প্রচুর টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হবে। একই সাথে বন্দরের সাথে সম্পৃক্ত কয়েকশ শ্রমিক কর্মহীণ হয়ে পরিবার নিয়ে চরম দূর্ভোগে পড়বে। সকল ধরণের স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং সরকারের দেয়া নিয়মনিতি মেনে বন্দরে কার্যক্রম পরিচালনা সরকারের সহযোগীতা চান ব্যবসায়ীরা।

পঞ্চগড় আমদানি-রফতানিকারক এসোসিয়েসনের সভাপতি মেহেদী হাসান খান বাবলা জানান, লকডাউনের মধ্যে স্বাভাবিক নিয়ম মেনে বন্দরে বাণিজ্যিক কার্যক্রম চলছে। সড়ক পথে এই বন্দর দিয়ে চার দেশেই সহযেই ব্যবসায়ীক কার্যক্রম পরিচালনা করা যায়। বন্দরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রাকচালকরা আমদানি-রফতানি করছে। একই সাথে বন্দরের শ্রমিকদের সকল নিয়ম মেনে কার্যক্রম পরিচালনা নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

এর আগে গত বছরে করোনার সময় আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ হয়ে পড়ায় যেমন ব্যবসায়ীরা বড় ধরনের লোকশানের মুখে পড়েছিল। প্রয়োজনীয় কাঁচা মালের অভাবে শিল্প কলকারখানা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল। তবে এবার লকডাউনের মধ্যে বন্দর ও কাস্টমসের কার্যক্রম সচল রয়েছে। করোনাকে ভয় নয় সরকারি নির্দেশনা মেনে সচেতনতা বাড়িয়ে আমাদের পথ চলতে হবে। গত বছর করোনায় যে পরিমাণ লোকসান হয়েছিলো তা এখন পর্যন্ত ব্যবসায়ীরা পুষিয়ে নিতে পারে নি। অতএব দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় মালামাল আমদানি-রপ্তানিতে বন্দরগুলো খোলা রাখা জরুরী বলে তিনি আরো জানান।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email