বৃহস্পতিবার ৬ অক্টোবর ২০২২ ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির জনগণের টাকা লুটপাট করে: প্রধানমন্ত্রী

1384014345প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বিএনপির জন্ম মিলিটারি ডিক্টেটরের হাতে। তাই তারা দেশ বিরোধী কার্যকলাপে সিদ্ধহস্ত। জ্বালাও, পুড়াও, ভাংচুর করে মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করে দেশে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করা তাদের প্রধান কাজ। নৌকায় ভোট দিলে দেশের উন্নয়ণ হয়। কৃষকের গোলা ভর্তি ধান থাকে। বিএনপি ক্ষমতায় এলে লুটপাট বৃদ্ধি পায়। অশান্তির দাবানলে জ্বলে মানুষের জীবন অতীষ্ট হয়ে উঠে। বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়া এসএসসিতে বাংলায় পাস করতে পারেননি। পাস করেছিলেন অঙ্ক ও উর্দুতে। ফলে তিনি স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াত ও হেফাজতে ইসলামকে সাথে নিয়ে দেশে ধ্বংসাত্মক রাজনীতি করছেন। শনিবার বিকেলে বড়লেখা ডিগ্রি কলেজ মাঠে উপজেলা আ’লীগ আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরো বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে মহাজোট সরকার প্রত্যেক ইউনিয়নে ই-তথ্য সেবা কেন্দ্র খোলে বিশ্ব পরিমন্ডলকে মানুষের হাতের মুঠোয় এনে দিয়েছে। শিক্ষিত জাতি হিসেবে গড়ে তুলতে মেয়েদের øাতক শ্রেণি পর্যন্ত বিনা বেতনে পড়াশুনার সুযোগ করে দিয়েছে। প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক পর্যন্ত গত বছর ২৯ কোটি বই এক যোগে সরকারিভাবে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। অন্যদিকে বিএনপি নেত্রী বিনা কারনে হরতাল দিয়ে দেশে অরাজক অবস্থার সৃষ্টি কওে কোমলমতি জেএসসি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা আটকে দিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থা ভিত্তি ভেঙ্গে দিচ্ছেন।
তিনি আরো বলেন গ্রামীন জনপদের মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ইউনিয়নে ইউনিয়নে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করা হয়েছে। উপজেলা সদরের প্রত্যেক স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যার হাসপাতালে উন্নীত করা হয়েছে।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে আরো বলেন বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ক্ষমতায় থাকতে এতিমদের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। তার ছেলেরা জনগণের টাকা লুটপাট করে বিদেশে পাচার করেছে। এফবিআইয়ের তদন্তে তার প্রমান মিলেছে। বিদেশে পাঠানো টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। চোরের মার মনে পুলিশ পুলিশ।

তিনি আরো বলেন বিএনপির আমলে যে মোবাইলের দাম এক লাখ ৩০ হাজার টাকা ছিলো সে মোবাইল আওয়ামীলীগের আমলে সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে নিয়ে আসায় সবার হাতে হাতে এখন মোবাইল ফোন। আওয়ামীলীগ সরকারের ভিশন ২০২০-২১ এর লক্ষ্য বাস্তবায়নে ধাপে ধাপে এগিয়ে চলেছে।

শেখ হাসিনা আরো বলেন আওয়ামীলীগ এক টার্মে যতো উন্নয়ণ কর্মকান্ড পরিচালনা করেছে বিএনপি কিংবা অন্য দল দীর্ঘ দিন ক্ষমতায় থেকেও ততো উন্নয়ণ কর্মকান্ড করতে পারেনি। বর্তমান সরকার ৩২শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ থেকে ১০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যৎ উৎপাদনের ক্ষমতা অর্জন করেছে। আর খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক জিয়া ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিদ্যুতের খুটী বানিজ্য করে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ভেঙ্গে দিয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত তার ভাষণে বলেন উদ্যোক্তারা এগিয়ে এসেছেন দেশে শিল্পের উন্নয়ণ হয়েছে। মানুষের জীবনমান বেড়েছে। মাথাপিছ আয় বেড়ে ৯৫০ ডলার হয়েছে। অর্থনৈতিক গতি প্রবাহ সচল হওয়ায় মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে।
কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় যারা দেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে মা-বোনের ইজ্জত হরণ কওে মানুষ হত্যায় মেতে উঠেছিলো, ইসলামের হেফাজতের নামে যারা কুরান পুড়ায় তারা খালেদা জিয়ার ডানে বায়ে আর মাথার উপর ছাতা হয়ে কাজ করছেন সুদখোর প্রফেসর ইউনুস। তারা দেশের কল্যাণে কাজ করতে পারে না।

দফতর বিহীনমন্ত্রী রুরঞ্জিত সেন গুপ্ত বলেন শেখ হাসিনার সরকারের সময় উন্নয়ণ হবে, খাদ্যে স্বয়ং সম্পুর্নতা অর্জন করবে, বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান হবে আর খালেদা জিয়া ধ্বংসাত্মক রাজনীতি করে ক্ষমতায় যাবেন? দেশের মানুষ তার সে খায়েশ পুরন হতে দেবে না।
শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ বলেন ইতিমধ্যে অনেক প্রাইমারি স্কুলের সুরম্য ভবন নির্মিত হয়েছে। খুব শীঘ্র বাকী স্কুলগুলোর ভবন নির্মাণ করা হবে। শিক্ষার উন্নয়ণ ব্যতিত মুক্তিযুদ্ধেও স্বপ্ন বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। তাই শেখ হাসিনার সরকার শিক্ষার উন্নয়ণে সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করায় পাশের হার বেড়েছে। বেড়েছে এমপিওভূক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনসভা মঞ্চে যাওয়ার আগে তিনি প্রায় ৫০ কোটি টাকার উন্নয়ণ কর্মকান্ডের উদ্বোধন ও ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।
অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে দেশের দ্বিতীয় চা নিলাম কেন্দ্র স্থাপন, কুলাউড়া-শাহবাজপুর রেল লাইন পুনরায় চালু প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু ও বড়লেখার সুজানগওে আগর-আতর শিল্পকে কুটির শিল্প হিসেবে ঘোষণার আশ্বাস দেন। তাছাড়া বড়লেখা ডিগ্রি কলেজকে সরকারীকরণ, বড়লেখার ফৌজদারী আদালতে দেওয়ানী আদালতের কার্যক্রম চালুর ব্যবস্থা এবং প্রত্যেক উপজেলা সদরে একটি করে মাধ্যমিক স্কুল সরকারী করণের ঘোষণা দেন।

 

বড়লেখা উপজেলা আ’লীগ সভাপতি আলহাজ শাহাব উদ্দিন আহমদ এম,পির সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার উদ্দিন এবং উপাধ্যক্ষ হেলাল উদ্দিনের সঞ্চালনায় এ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, দপ্তর বিহীন মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, আমির হোসেন আমু এম,পি, জেলা আ’লীগ সভাপতি, চিফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ, সৈয়দ মহসীন আলী এম,পি, কেন্দ্রীয় আ’লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মাহমুদুস সামাদ চৌধুরী কয়েছ এম,পি, মিজবা উদ্দিন সিরাজ, জেলা আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক নেছার আহমদ, সহ-সভাপতি এমএ মোমিত আসুক, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজবাউর রহমান, উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন, মিজবাদৌজা ভেলাই, সাবেক এম,পি হুসনে আরা ওয়াহিদ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুব্রত পুরকায়স্থ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমূলসহ স্থানীয় অনেক নেতৃবৃন্দ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email