বৃহস্পতিবার ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপি মানেই জঙ্গীবাদ আর মানুষ খুন-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

pm-Hপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,

জিয়াউর

রহমান ক্ষমতা দখল করে

সেনাবাহিনীর শত শত

সৈনিককে হত্যা করেছিলেন। তার স্ত্রী খালেদা

জিয়া ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী

লীগের নেতাকর্মীদের হত্যার মধ্যদিয়ে মানুষ

খুনের রাজনীতি শুরু করেছে।গ্রেনেড হামলার

মাধ্যমে আওয়ামী লীগকে নিচিহৃ করতে

চেয়েছিল। সে দিন আইভি রহমান সহ শতাধিক

নেতাকর্মী প্রাণ দিয়ে বাংলাদেশকে জঙ্গী রাষ্ট্র

গঠনে খালেদা-নিজামীর চেষ্টা ব্যর্থ করে

দিয়েছে।আন্দোলনের নামে মানুষ পুড়িয়ে মেরে

সন্ত্রাসী রাষ্ট্র বানানোর সকল প্রচেষ্টা জনগণ

প্রতিহত করেছে। ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের

মাধ্যমে দেশকে পাকিস্তান বানানোর সকল

ষড়যন্ত্র জনগণ রুখে দিয়েছে।

বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী

শেখ হাসিনা বলেছেন, যিনি ১৫ দিনে ঘর থেকে

বের হন না তিনি নির্বাচনের আগে ঘন ঘন

রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে বৈঠক করেন। আমাদের নামে

নালিশ করেন। নালিশ করে কী পেয়েছেন।

নালিশ করে বালিশ পেয়েছেন। উনি (খালেদা)

নির্বাচন ঠেকাতে ৫ শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

পুড়িয়ে দিয়েছেন। আমরা সেগুলো এখন আমরা

সংস্কার করছি। তিনি নিজে ছিলেন ফেলু। তাই

তিনি চান আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরাও ফেল

করুক।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি আন্দোলনের জন্য

ঢাকাবাসীকে ডাক দিলেন। গোটা দেশের

মানুষকে ডাক দিলেন। কেউ ওনার ডাকে সাড়া

দেয়নি। যখন কেউ সাড়া দিলেন না, তখন উনি

বোমাবাজি, জ্বালাও-পোড়াও শুরু করলেন। দেশ

আজ জাতির পিতার আদর্শের প্রতিক আওয়ামী

লীগের বলিষ্ঠ নেতৃত্বে সোনার বাংলা হিসেবে গড়ে

তোলার কাজ এগিয়ে যাচ্ছে।  শুক্রবার

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী

উদ্যানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায়

তিনি একথা বলেন।

বিকেল সোয়া ৩টার দিকে পবিত্র কোরআন

তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে জনসভার কার্যক্রম

শুরু হয়। দলের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য ও

জাতীয় সংসদের উপনেতা সৈয়দা সাজেদা

চৌধুরীর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন স্বরাষ্ট্র

প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, আওয়ামী

লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সেলিম, যুগ্ম

সাধারণ সম্পাদক মাহাবুল-উল আলম হানিফ,

উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, দীপু

মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন,

মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি

এমএ আজিজ, সাধারণ সম্পাদক ও ত্রাণমন্ত্রী

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া প্রমুখ।

সভা পরিচালনা করছেন আওয়ামী লীগের প্রচার

ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ। সমাবেশ

উপলক্ষে সকাল থেকেই রাজধানী বিভিন্ন ওয়ার্ড

ও এর আশপাশের এলাকা থেকে দলীয়

নেতাকর্মীরা ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে স্লোগান দিতে

দিতে সমাবেশস্থলে উপস্থিত হন।

সমাবেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সকাল

থেকেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চারপাশে কঠোর

নিরাপত্তা বেষ্টনী দিয়ে রাখে আইন-শৃঙ্খলা

রক্ষাকারী বাহিনী।