শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিচারপতি হাবিবুর রহমান চির নিদ্রায় শায়িত : সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

Chip Justicভাষা সংগ্রামী এবং সাবেক প্রধান বিচারপতি ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক প্রধান উপদেষ্টা মো. হাবিবুর রহমানকে  সোমবার বাদ আছর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। এর আগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষ হৃদয়ের গভীর শ্রদ্ধা ও ভালবাসা দিয়ে তাকে চিরতরে বিদায় জানান। এদের মধ্যে ছিলেন রাজনীতিক, শিক্ষাবিদ, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সমাজের সর্বস্তরের মানুষ। বাদ আছর গুলশানের আজাদ মসজিদে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভির পরিবেশে তাকে দাফন করা হয় বনানী কবরস্থানে। সকাল সাড়ে ১১ টায় জাতির এই কৃতি সন্তানের মরদেহ নিয়ে আসা হয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে। এ সময় শহীদ মিনার চত্বরে নেমে আসে শোকের ছায়া। সমাজের বিশিষ্টজনেরা তার বর্ণাঢ্য জীবনের নানা দিক তুলে ধরেন।
শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে প্রয়াতের স্মরণে খোলা হয় শোক বই। তার স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। শহীদ মিনার থেকে তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্ট প্রাঙ্গণে। সেখানে শেষবারের মত আইনজীবীরা তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান এবং তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয় সেখানে।
শহীদ মিনারের নাগরিক শ্রদ্ধানুষ্ঠানে মন্ত্রী, এমপি, সচিব, থেকে শুরু করে রাজনৈতিক নেতাকর্মী ও সাংস্কৃতিক অঙ্গণের ব্যক্তিত্বরাসহ সর্বস্তরের মানুষ পুস্পার্ঘ অর্পণ করে শেষ বিদায় জানান বহুমাত্রিক এ গুণী ব্যক্তিকে। এ সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামী লীগ নেতা সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য নূহ আলম লেলিন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফজাল হোসেন প্রমুখ। নতুন সরকারের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রীদের মধ্য থেকে শিক্ষা মন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, তথ্য মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন সিকদার শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
আলোর দিশারী এ গুণী ব্যক্তিকে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার কর্ণেল (অব) শওকত আলী ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে তাকে আরও শ্রদ্ধা জানান সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী ডা. দীপু মনি, ডা. মোস্তফা কামাল মহিউদ্দিন প্রমূখ। মন্ত্রনালয়ের পক্ষে শিক্ষা সচিব ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী ও সংস্কৃতি সচিব ড. রনজিৎ কুমার বিশ্বাস শ্রদ্ধা জানান। রাজনৈতিক দলের নেতাদের মধ্যে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন, কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, রুহিন হোসেন প্রিন্স, জাসদ নেত্রী শিরীন আক্তার এমপিসহ আরও অনেকেই শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতি অঙ্গণের ব্যক্তিদের মধ্য থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান ভাষা সংগ্রামী রওশন আরা বাচ্চু, অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জাতীয় বিশ্ববিদ্যলয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুণ-অর রশিদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, ব্যারিস্টার আমিরুল ইসলাম, অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন, দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান, এসিয়াটিক সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, কামাল লোহানী, অধ্যাপক রফিকুন নবী, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. জাফরউল্লাহ, অধ্যাপক মাহফুজা খানম, ঢাবি চারুকলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক আবুল বারক আলভী, টিআইবি’র চেয়ারম্যান ড. ইফতেখারুজ্জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য মনিরুজ্জামান মিয়া, নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডা. সারোয়ার আলী, নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক, নারী নেত্রী খুশী কবির, বিএফইউজে’র সভাপতি সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, মহাসচিব জলিল ভূঁইয়া, গোলাম কুদ্দুছ, হাসান আরিফ, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়, ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর নেতা সঞ্জীব দ্রং, নাট্যব্যক্তিত্ব মান্নান হীরা, শিল্পী মনিরুজ্জামান, শিল্পী ফকির আলমগীর প্রমূখ।

গত শনিবার রাত ৯টায় তিনি গুলশানের বাড়িতে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে দ্রুত রাজধানীর ইনাইটেড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। আজ সকাল পর্যন্ত তার মরদেহ এ হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email