মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদেশী পাখির খামার করে জীবন এখন স্বাবলম্বি

BIRD -dরিয়াজুল ইসলাম, দিনাজপুর থেকে

বাড়ীতে বিদেশী পাখির খামার করে বেকার যুবক ময়বুর আলম জীবন এখন স্বাবলম্বী। পিতার আর্থিক স্বচ্ছলতা না থাকায় বেশী দুর পড়াশুনা করতে পারেনি। এরপরেও কিভাবে স্বাবলম্বী হওয়া যায় এটাকে চিন্তা করে সে ঘরে বসে থাকেনি কিংবা সোনার হরিণ নামক চাকুরীর পিছনেও ঘুরে বেড়ায়নি। বরং টিভিতে ডিসকভারী চ্যানেল দেখে পাখি পালনে উৎসাহিত হয়ে নিজ বাড়িতে গ্রামীন প্রযুক্তিতে অল্প টাকায় বিদেশী প্রজাতীর পাখির খামার তৈরি করে। আর এই পাখির খামার তার জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়।

এখন তার খামারে বাজারিকা, লাভ বার্ড, কোকাটিলসহ বিভিন্ন প্রজাতের পাখি রয়েছে।এ পাখি পালন করে প্রতি মাসে তার ১৫ থেকে ২০হাজার টাকা উপার্জন হয়।

 

‘‘পাখি নিধন নয়, পলনেই আনন্দ’’-এই মানুষিকতাকে সামনে রেখে অজো পাড়াগাঁয়ে পাখি পালনের খামার দিয়ে স্বাবলম্বী হওয়া সম্ভব তা প্রমান করেছে দিনাজপুর সদর উপজেলার মুরাদপুর গ্রামে মোঃ আনিছুর রহমানের পুত্র মোঃ ময়বুর আলম জীবন। সে আর্থিক স্বচ্ছলতার অভাবে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করতে পারে।

 

মোঃ ময়বুর আলম জীবন জানায়, লেখাপড়া কম আর চাকুরী না পাওয়ায় টিভিতে ডিসকভারী চ্যানেল দেখে পাখি পালনে উৎসাহিত হয়ে নিজ বাড়িতে গ্রামীন প্রযুক্তিতে অল্প টাকায় বিদেশী প্রজাতীর পাখি পালন শুরম্ন করি। ঘরের মধ্যে হাড়ি দিয়ে হাড়ির ভেতর পাখির বাসা বানিয়ে পাখি রাখি। সেই হাড়িতেই পাখি ডিম দেয় এবং বাচ্চা ফুটায়। বর্তমানে তার খামারে ২০০জোড়া পাখি রয়েছে। বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষ এসে পাখি ক্রয় করে নিয়ে যায়। এখন প্রতিমাসে পাখি বিক্রী হয় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। জীবন জানায়, প্রতি জোড়া পাখি বিক্রী হয় ৬শত থেকে এক হাজার টাকা।

আমার ইচ্ছা সরকারীভাবে কোন সহযোগীতা পেলে এ অঞ্চলের বেকার যুবক যুবতীদের পাখি পালন প্রশিক্ষণ দিয়ে স্বাবলম্বি করার কাজ করব।

জীবনের পাখি খামার দিন দিন এ অঞ্চলে ব্যাপক পরিচিত হয়ে উঠছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email