বুধবার ৬ ডিসেম্বর ২০২৩ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিদ্যালয় ভবনের অভাবে বীরগঞ্জে খোলা আকাশের নীচে চলছে শিক্ষার্থীদের ক্লাশ

বীরগঞ্জ প্রতিদিনঃ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবই আছে। কিন্তু নেই ভবন। তাই ভবনের অভাবে খোলা আকাশের নিচে ক্লাশ করছে বীরগঞ্জের ভোগডমা আশ্রায়ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। আর দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে বেতন-ভাতা না পেয়েও শিক্ষাদান করছেন ৪জন শিক্ষক।

 

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর প্রয়াত সাবেক সংসদ সদস্য এবং ডাক ও টেলি যোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী আব্দুর রৌফ চোধুরী ১৯৯৯ইং সালে উপজেলার পাল্টাপুর ইউনিয়নের ভোগডোমা আশ্রায়নটি উদ্বোধন করেন। এ সময় তিনি জানতে পারেন ভোগডোমা এলাকায় শিক্ষার হার ২০ ভাগের নীচে এবং এই এলাকার ৫ কিলোমিটারের মধ্যে কোন প্রাথমিক বিদ্যালয় নাই। এলাকাবাসী মন্ত্রীমহোদয়ের কাছে পশ্চিম ভোগডমা গ্রামে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার দাবি জানান।

 

প্রয়াত ডাক ও টেলি যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী আব্দুর রৌফ চৌধুরী বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিষয়ে শিক্ষা অফিসকে তাৎক্ষণিক ভাবে বিদ্যালয় নির্মাণের নির্দেশ প্রদান করেন। নির্দেশ মোতাবেক উপজেলা শিক্ষা অফিসের সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে ভোগডমা গ্রামের শিক্ষানুরাগী মো: নুর ইসলাম এলাকায় শিক্ষার হার উন্নয়নের লক্ষ্যে দশমিক ৩৩ একের জমি দান করেন।

 

গ্রামবাসীর আর্থিক সহযোগিতায় এবং শিক্ষানুরাগী মো: মছির উদ্দিন সদস্য ইদ্রিস আলী, সায়েদ আলী, আবু বক্কর সিদ্দিক, মোবারক আলী ও নুর ইসলামের দীর্ঘ প্রচেষ্টায় বাস-চাটাই খড়ের ঘর নির্মাণ করে। এলাকার শিক্ষিত বেকার যুবক নুর মোহাম্মদ প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্বে নিয়ে মোছা: নাসিমা খাতুন, নুর জাহান বেগম ও শ্রীমতি আল্পনা রানী সরকার সহকারী শিক্ষাকা হিসেবে স্বেচ্ছাশ্রমে শুরু করে এলাকা শিক্ষা বঞ্চিত শিশুদের আলোকিত ভোগডোমা গড়ার কাজ।

 

শিক্ষার সুন্দর পরিবেশ ও শত ভাগ পাশের দৃষ্টান্তের স্বীকৃতি স্বরুপ শিক্ষা প্রশাসন সন্তুষ্ট হয়ে রেজিষ্ট্রেশন প্রদান করেন।

এর পর থেকে শুরু হয় বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দীর্ঘ সংগ্রামের পথ চলা। নানা ঘাত-প্রতিঘাত ও অর্থনৈতিক দৈন্যতার মধ্যেও প্রতিষ্ঠানটি আঁকড়ে ধরে ছিল শিক্ষক ও এলাকাবাসী। এরপর সরকারের ঘোষণায় বিদ্যালয়টি নতুন স্বপ্ন দেখে।

 

কিন্তু দূর্ভাগ্য চলতি বছরের ৫ জুলাই দুপুর সারে ১২টায় কালবৈশাখী ঝড়ের প্রচন্ড আঘাতে ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায় আলোকিত ভোগডোমা গড়ার স্বপ্ন। বিদ্যালয়ের ভবনটি এক কিলোমিটার দুরে নিয়ে গিয়ে দুমড়ে মোচড়ে চুরমার করে ফেলে।

 

কিন্তু থেমে থাকেনি ভোগডোমাবাসির স্বপ্ন দেখা। জুলাই মাস থেকে বিদ্যালয়ের মেঝেতেই বসে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান অব্যাহত রাখে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় ২০-২৫ জোড়া ব্যাঞ্চ সংগ্রহ করে ৫ মাস ধরে শতাধিক শিক্ষার্থীদের খোলা আকাশের নিচে পাঠদান গ্রহণ করছে।

পূর্ব ভোগডমা আশ্রায়ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে সভাপতি মছির উদ্দিন ও প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ জানান, ভবন নির্মাণের জন্য দিনাজপুর-১আসনের সাংসদ মনোরঞ্জন শীল গোপালের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মানের জন্য সংশ্লি­ষ্ট দপ্তরে আবেদন প্রেরন করা হয়েছে। আমরা আশা করছি মানবিক বিষয় বিবেচনা করে সরকার দ্রুত এই বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের যাবতীয় ব্যবস্থা করবেন।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার ক,খ আলাওল হাদী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সরকারী দ্বিতীয় ফ্যাজের স্কুল হওয়ায় কোন পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। অবিলম্বে বিদ্যালয়টির অবকাঠামো নির্মাণের কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে।

Spread the love