বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সরকারী ঘোষনায় বোরো আবাদ নিয়ে কৃষকরা শঙ্কিত

Bodaমোঃ নুরেহাবিব সোহেল,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ঘোষনায় বোরো আবাদ নিয়ে এই অঞ্চলের চাষিরা শঙ্কিত হয়ে পড়েছে। গত বারের লোকসান পুসিয়ে নিতে এবার ব্যাপক হারে বোরো আবাদ করেছে বোদা উপজেলার কৃষকরা। অনুকুল আবহাওয়া ও পর্যাপ্ত সেচ সুবিধা নিশ্চিত হলে লোকসান কাটিয়ে ওঠার প্রত্যাশা করেছেন অনেকেই। কিন্তু হঠাৎ করেই বিদ্যুতের দাম আরেক দফা বৃদ্ধির খবব শুনে মলিন হতে চলেছে কৃষকদের সেই স্বপ্ন। কৃষকরা জানান,আবহাওয়া আর বীজতলা ভালো থাকায় এবার বোদা অঞ্চলে বেড়েছে বোরোর চাষ। এখন সময় মত সেচ সুবিধা পেলে ফলন ভালো হবার আশা করছেন কৃষকরা। একই সঙ্গে ধানের দাম ভালো পেলে খরচ মিটিয়ে লাভের দেখা পেতেন তারা। তবে বিদ্যুতের দাম বাড়ার ঘোষনায় এরই মধ্যে কৃষকদের মনে শঙ্কার দানা বাঁধতে শুরু করেছে। মাড়েয়া ইউনিয়নের কৃষক আঃ রউফ জানান, বর্তমানে কৃষকরা গভীর নলকুপের মাধ্যমে ক্ষেতে সেচ দিচ্ছে। এখন বিদ্যুৎ সরবরাহ বেশ ভালো। বিদ্যুৎ না থাকলে শ্যালো মেশিন দিয়ে পানি সেচ দেওয়ার প্রস্ত্ততিও রেখেছেন কৃষকরা। তখন খরচাও বাড়বে। এছাড়া নতুন করে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সরকারী ঘোষনায় উৎপাদন খরচ বৃদ্ধির আশঙ্কা করছেন তারা। একই সঙ্গে কৃষক ও কৃষির উন্নয়নে জ্বালানী তেল,সার,কীটনাষক ও বিদ্যুতের দাম না বাড়ানোর দাবি জানান এই কৃষক। সদর ইউনিয়নের মন্নাপাড়া গ্রামের শফিকুল ইসলাম জানান,গতবার কুয়াশায় বীজতলা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আবাদে প্রচুর খরচ হয়েছে। তাতে চারা বাবদ বিঘা প্রতি গুনতে হয়েছে প্রায় হাজার তিনেক টাকার মত। এবার বীজতলা ভালো ছিল ফলে খরচও কমেছে। প্রতি বিঘায় চারা বাবদ খরচ হয়েছে প্রায় ৫শ টাকা। আবহাওয়া ভালো তাই ফলনও ভালো হবার প্রত্যাশা করছেন তিনি। সাকোয়া ইউনিয়নের রবিউল হক জানান, গতবার চড়া দামে চারা কিনে আবাদ করতে হয়েছে। এছাড়া সেচ ও সারের খরচও ছিল বেশি। সে অনুযায়ি আর্থিক ভাবে ক্ষতির শিকার হয়েছেন কৃষকরা। আগের ওই শঙ্কাটি এবারো গেuঁথ আছে এ অঞ্চলের কৃষকদের মনে। সেই সাথে নতুন করে বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ঘোষনায় আবারো  নতুন করে সেই শঙ্কা দেখা দিয়েছে বলে তিনি জানান। কৃষি বিভাগ বলছে এ অঞ্চলে গতবারের তুলনায় এবার প্রায় ৩শ হেক্টর বেশি জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে। আবাদের পরিমান গতবারকে ছাড়িয়ে যাওয়ায় ফলনও ভালো হবে আশা করছেন তারা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জানান, আবহাওয়া যদি বিরুপ না হয়, পাশাপাশি চাহিদা অনুযায়ি বিদ্যুৎ পাওয়া যায়,ডিজেল পাওয়া যায় এবং সেচ যন্ত্র দ্বারা সেচ কাজ পরিচালনা করা যায় তাহলে বোরো আবাদ সন্তোষ জনক হবে এবং উৎপাদনও বেশি হবে এটা আমরা আশা করতে পারি। এদিকে ঠাকুরগাঁও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বোদা এলাকার বিদ্যুৎ সরবরাহের দায়িত্বে থাকা প্রকৌশলী আঃ রাজ্জাক জানান, চলতি সেচ মৌসুমে নিরবিছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় ভাবে সেচ সিডিউল তৈরী করা হয়েছে। এরই আলোকে এ অঞ্চলে সেচ সিডিউলের কাজ চলছে। খুব দ্রুত তা সম্পন্ন হবে। তিনি আরো জানান, বর্তমানে পিক আওয়ারে বোদা উপজেলায় বিদ্যুতের চাহিদা ৬ মেঘাওয়াট। এখন পর্যন্ত সরবরাহ মিলছে প্রায় শতভাগ। আসন্ন খরা মৌসুমে চাহিদা বাড়বে। সেই সাথে সরবরাহও বাড়বে। তবে বিদ্যুতের মুল্য বৃদ্ধি বিষয়টি এখন পর্যন্ত চুড়ান্ত না হওয়ায় এ ব্যাপারে  কিছুই বলা যাচেছ না বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email