মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিধ্বস্ত ব্রাজিল ফাইনালে জার্মানি

Footbaolবিশ্বকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের প্রথম সেমিফাইনালের মাঠের লড়াইয়ে ব্রাজিলকে  বিধ্বস্ত করে আসরের সেরা দল হিসেবে এবারের ফাইনালে উঠে গেছে জার্মানি। তারা ভয়বহ তাণ্ডব চালিয়ে ৭-১ গোলের ঐতিহাসিক ব্যবধানে স্বাগতিকদের লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছে। খেলের শুরুতেই বিশ্ব ফুটবলের পাওয়ার হাউজ খ্যাত জার্মানির তীব্র আক্রমনে রক্ষণভাগ ভেঙ্গে খান খান হয়ে যায় বিগ ফিলের দূর্গের। ফলে খেলার প্রথমার্ধের ১১ মিনিট থেকে ২৯ মিনিটে অর্থাৎ মাত্র ২০ মিনিটের মধ্যেই ৫-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে এগিয়ে যায় জার্মানরা। আর শেষ বাঁশি বাজার সাথে সাথে নিশ্চিত হওয়া ৭-১ গোলের এ বড় জয়ে টনি ক্রুজ ও আন্দ্রে শোরলের রয়েছে জোড়া গোল। আর একই সাথে মুহুতেই ব্রাজিলের হেক্সা জয়ের স্বপ্নও যেন দুমড়ে মুচড়ে চুড়মার করে দিল জার্মানি।
এমনই এক পরাজয় বরণ করতে হলো নেইমার ও থিয়াগো সিলভা বিহীন ব্রাজিলের যে, এ ঘটনায় কোনো হা হুতাশ করারও সুযোগ থাকলো না। স্বাগতিক দেশটির ২০ কোটি মানুষ আর বিশ্বজুড়ে তাদের কোটি কোটি সমর্থকদের নিরবে চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া আর কিছুই করার ছিল না। কারণ- ম্যাচের ২৯ মিনিটের মধ্যেই অবিশ্বাস্যভাবে সবাই চোখ কচলে কচলে দেখতে হলো স্কোরলাইন- জার্মানি ৫, ব্রাজিল ০। শেষ বাঁশি বাজার সময় স্কোর জার্মানি ৭-১ ব্রাজিল! কেননা শেষ মুহুর্তে অর্থাৎ ম্যাচের ৯০ মিনিটে ১টি গোল শোধ করেন অস্কার।
খেলার ১১ মিনিটে থমাস মুলারের গোলে প্রথম ১-০ ব্যবধান তৈরি করে জার্মানি। এবারের বিশ্বকাপে এটি ছিল তার ৫ম গোল। গত বিশ্বকাপেও ৫ টি গোল করেছিলেন তিনি। এরপরই শুরু হয় একের পর এক তীব্র আক্রমন, ব্রাজিল শিবিরে জার্মানদের ধ্বংসযজ্ঞ ও তাদের নিয়ে ছেলেখেলা। ম্যাচের ২৩ মিনিটে ২য় গোলটি করে রোনালদোর রেকর্ড ভাঙেন ম্যারোস্লাব ক্লোজা। অতপর ২৪ ও ২৬ মিনিটে জোড়া গোল করেন ক্রুজ। আর খেলার ২৯ মিনিটে ৫ম গোলটি করেন রিয়াল মাদ্রিদ তারকা সামি খাদিরা। পরে খেলার দ্বিতীয়ার্ধে ৬৯ ও ৬৯ মিনিটে আবারও জোড়া গোল করেন শোরল।
এর মধ্যে ২৩ থেকে ২৯- এ ৬ মিনিটে ৪ গোল জালে জড়ালে স্বপ্ন ভেঙে যায় সেলেসাওদের। কোনো রকম প্রতিরোধ গড়তে পারেনি ৫ বারের চ্যাম্পিয়নরা। অধিনায়ক থিয়াগো সিলভার অনুপস্থিতিতে ব্রাজিলের রক্ষণভাগ নিয়ে রীতিমত ছেলেখেলায় মেতে উঠে ৩ বারের চ্যাম্পিয়নরা। নেইমারবিহীন ব্রাজিলের বিপক্ষে প্রথম কর্নারকেই গোলে পরিণত করে জার্মানির মুলার। ১১তম মিনিটে ডানদিক থেকে টনি ক্রুসের কর্নার সোজা মুলারের পায়ে এসে পড়ে। অরক্ষিত ব্রাজিলের রক্ষণভাগ ভেদ করে এ ফরোয়ার্ড বলে জালে জড়াতে কোনো ভুল করেননি। মুলারের গোলের পর জার্মান খেলোয়াড়রা নামলেন গোল উৎসবে।
২৩ মিনিটে ক্লোসার রেকর্ড গড়া গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে জার্মানি। ডি বক্সের ভেতর থেকে তার প্রথম চেষ্টাটি ফিরিয়ে দেন জুলিও সিজার। কিন্তু ফিরতি শট আর ফেরাতে পারেননি তিনি। ২ মিনিট পর মেসুত ওজিল বল দেন জার্মান অধিনায়ক ফিলিপ লামকে। তিনি বল বাড়িয়ে দেন মুলারের দিকে। কিন্তু পা ছোঁয়াতে পারেননি বায়ার্ন মিউনিখের এ তারকা। বল পেয়ে যান ফাঁকায় দাঁড়ানো ক্রুস। বাঁ দিকের বার ঘেঁষে তার বাঁ পায়ের শট জালে জড়ালে পিন পতন নীরবতা নেমে আসে স্টেডিয়ামে।
পরের মিনিটেই ২য় গোলটিও পেয়ে যান ক্রুজ। ফের্নান্দিনহোর মারাত্মক ভুলে বল পেয়ে তিনি পাস দেন সামি খাদিরাকে। রিয়াল মাদ্রিদ মিডফিল্ডার বল ফিরিয়ে দেন ক্রুজকে। বায়ার্ন মিউনিখ তারকার এগিয়ে আসা সিজারকে পরাস্ত করতে কোনো সমস্যা হয়নি। স্টেডিয়ামে থাকা ব্রাজিল সমর্থকরা এ সময় নিজেদের ধরে রাখতে পারেননি। অনেককেই হাউমাউ করে কাঁদতে শুরু করেন। ৩ মিনিট পর আবার নিজেদের অর্ধে বল হারানোর মাসুল দেয় ব্রাজিল। ওজিলের সঙ্গে ওয়ান টু খেলে ডি বক্সে ঢুকে ব্যবধান ৫-০ করে ফেলেন খাদিরা।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে খেলার ৫০ মিনিটে দারুণ একটি সুযোগ তৈরি করেছিল ব্রাজিল। রামিরেসের শট ফিরিয়ে স্বাগতিকদের হতাশ করেন মানুয়েল নয়ার। পরের মিনিটে আবারো জার্মানির ত্রাতা এ গোলরক্ষক। তার দৃঢ়তায় অস্কারের শট জালে পৌঁছায়নি। ২ মিনিট পর আবারো ব্রাজিলকে হতাশ করেন নয়ার। ডি বক্স থেকে পলিনহোর শট ফিরিয়ে দেন তিনি। ফিরতি শটও ফেরান অসাধারণ দক্ষতায়।
৬৯ মিনিটে ব্রাজিলের ভুল ভরা রক্ষণের সুযোগে গোলদাতাদের তালিকায় নাম তুলে ফেলেন দ্বিতীয়র্ধের বদলী আন্দ্রে শোরল। ডি বক্সে লামের ক্রস থেকে সিজারকে পরাস্ত করেন তিনি। ৬ষ্ঠ বারের মতো নিজেদের জাল থেকে বল কুড়িয়ে আনতে ব্রাজিলকে। এর পর ৭৯ মিনিটে ব্রাজিলের কফিনে শেষ প্যারেকটি ঠুকে আরো বড় লজ্জায় ডুবান সেই শোরলই। বাঁ দিক থেকে ব্রাজিলের রক্ষণসীমায় ঢুকে চেলসি ফরোয়ার্ডের শট ক্রসবারের নিচে লেগে জালে জড়ায়। আর শেষ মিনিটে ১ গোল পরিশোধের ফলে ৭-১ গোলের বিশাল জয় পায় জার্মনরা।
এর আগে মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত ২ টায় ব্রাজিলের বেলো হরিজন্তে ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে মুখোমুখি হয়েছিল ল্যাটিন আমেরিকা ও ইউরোপের দুই ফুটবল পরাশক্তি ব্রাজিল ও জার্মানি। ২ বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল পার হতে না পারা জার্মানদের সামনে ৩য় বার সে বাধা টপকানোর সুযোগটি যেন খুব ভালভাবেই কাজে লাগায় তারা। একই সাথে ২০০২ বিশ্বকাপ ফাইনালে ব্রাজিলের বিপক্ষে হারের প্রতিশোধ নেয়ার মিশনও দারুনভাবে সফল হয়েছেন সেই হার মানা ক্লোসার জার্মানি। আর এ খেলায় ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন- টনি ক্রুজ।