মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরলের বুনিয়াদপুর স. প্রা. বিদ্যালয়ে নৈশ প্রহরী নিয়োগে অনিয়ম উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ

আব্দুর রাজ্জাক, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ

দিনাজপুরের বিরলে বুনিয়াদপুর স. প্রা. বিদ্যালয়ে নৈশ প্রহরী নিয়োগে অনিয়ম’র প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর চাকুরী প্রাথীর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, আজ ২৭ এপ্রিল রবিবার বিরলে বুনিয়াদপুর স. প্রা. বিদ্যালয়ে নৈশ প্রহরী নিয়োগে লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত পরীক্ষায় উপজেলার মাধববাটীস্থ পচাকান্দর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক এর পুত্র মো. তফিকুল ইসলাম (বাবু) নির্দিষ্ট পদে চাকুরীর জন্য আবেদন করেন। আবেদনে তিনি বয়স হিসেবে জমা দিয়েছেন বিজোড়া স্কুল এন্ড কলেজের সনদপত্রে উলে­খিত তারিখ ১০/০২/১৯৮৬ইং। কিন্তু স্থানীয় বুনিয়াদপুর এলাকাবাসীর পক্ষে এমরান হোসেনসহ আরও কয়েকজনের স্বাক্ষরিত গত ৯ জুলাই’১৪ইং তারিখে অভিযোগপত্রে উলে­খ করেছেন যে, প্রার্থী তফিকুল ইসলাম ১৯৯৩ সালে বিরল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হয়। তার ভর্তির টিসি নং-৫৭/১৯৯৩ এবং জন্ম তারিখ ০২/০১/১৯৮২ইং। সেই সাথে এলাকাবাসী দাবী করেছেন, প্রার্থী বিজোড়া স্কুল এন্ড কলেজ হতে অষ্টম শ্রেণি পাশের যে সনদপত্র দিয়ে আবেদন করেছেন, তার কোন ভিত্তি নেই। সম্পূর্ণ অর্থের বিনিময়ে উক্ত সনদপত্র নেয়া হয়েছে বলে অভিযোগকারীরা উলে­খ করেছেন অভিযোগপত্রে। এ ব্যাপারে অভিযোগকারী এলাকাবাসীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট উপরোক্ত বিষয়ে বিবেচনা সাপেক্ষে প্রার্থী তফিকুল ইসলামের জন্ম তারিখ, বয়স ও অধ্যায়ন প্রতিষ্ঠান পর্যবেক্ষণপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ ও পরীক্ষা স্থগিতের দাবী জানিয়েছেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে গতকাল শনিবার সরেজমিনে বিজোড়া স্কুল এন্ড কলেজ’র প্রধান শিক্ষক মো. মোস্তফা কামাল তফিকুলের সনদপত্রের অনুলিপি প্রতিবেদককে দেখান। সেই সাথে জানান, সনদপত্রটি সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মহিউদ্দিন আহমে্দ প্রদান করেছেন। তিনি সনদপত্রের অনুলিপি ছাড়া অধ্যয়নের আর কোন ডকুমেন্ট দেখাতে পারেন নি।

এ ব্যাপারে সংশি­ষ্ট উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হুমায়ন আহমেদ গতকাল শনিবার মোবাইল ফোনে প্রতিবেদককে জানান, অভিযোগকারীদের মধ্যে ২/৩জন প্রত্যাহার করায় এ বিষয়ে কোন রকম তদন্ত করার প্রয়োজন মনে করিনি।

এ ব্যাপারে বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আব্দুল­াহ আল খাইয়ুম গতকাল শনিবার মোবাইল ফোনে প্রতিবেদককে জানান, অভিযোগপত্রটি সংশি­ষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার নিকট পাঠিয়ে দিয়েছি সুষ্টু তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য। তিনি উক্ত প্রার্থীর বয়স নিয়ে জটিলতায় সন্দিহান প্রকাশ করে বলেন, যদি উপযুক্ত প্রমান পাওয়া যায়, তাহলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।