সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিরলের ৪ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নাম জাতীয়করণের তালিকায় আজও উঠেনি

আতিউর রহমান, বিরল দিনাজপুর : প্রতিষ্ঠার ৫ম বর্ষেও চরম হতাশার মধ্য দিয়ে শিক্ষাদান করে চলছে বিরল উপজেলার ৪ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক দেশের সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয় করণের ঘোষণার ২ বছর পরও জাতীয় করণের তালিকায় নাম উঠেনি বিরলের হতভাগা ৪ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। বিদ্যালয়গুলো হলোঃ ধামইর ইউপি’র বাদরুনিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিরল সদর ইউপি’র করলা প্রাথমিক বিদ্যালয়, ধর্মপুর ইউপি’র বামনগাও প্রাথমিক বিদ্যালয় ও পলাশবাড়ী ইউপি’র ফরমানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়।

 

শিক্ষক মন্ডলীর অক্লামত্ম পরিশ্রমের ফলে এদের মধ্যে ফরমানপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৭ ডিসেম্বর-২০১০ হতে কার্যক্রম শুরু করেছিল এবং ২০১১-১৪ পর্যন্ত পর পর চার বার শতভাগ সাফল্যের সাথে সকল শিক্ষার্থী প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় কৃতকার্য হয়। বিদ্যালয়টি পলাশবাড়ী ইউপি’র অবহেলিত গ্রাম ফরমানপুরের শিশুদের সুশিক্ষায় গড়ে তুলতে স্থানীয় শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের সহায়তায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

 

প্রতিষ্ঠার পর হতে সুযোগ্য পরিচালনা কমিটি ও অভিজ্ঞ শিক্ষক মন্ডলী যত্নসহকারে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে আসায় কাঙ্খিত সফলতা অর্জনে প্রতিবছর সফল হয়েছে। অথচ বিদ্যালয়টির কোন অবকাঠামোগত উন্নয়নে আজও নেয়া হয়নি আশানুরূপ পরিকল্পনা। এর কারণ হিসাবে জানা গেছে, স্থানীয়দের সহায়তায় ও শিক্ষকদের অনুদানে বাশের বেড়া দিয়ে কোনমতে টিনের ছাউনী দিয়ে ৪ টি শ্রেণী কক্ষ প্রথমে গড়ে তোলা হয়েছিল। প্রতিবছর ঘরগুলো সংস্কার ও মেরামত করার পরও বর্ষাকালে ঝড়ের ভয় মাথায় রেখে কার্যক্রম চালাতে হয়। এরপর স্থানীয় সংসদ সদস্যসহ বিভিন্ন সময়ে প্রাপ্ত সরকারী অনুদানে একটি ইটের তৈরী পাকা ঘর নির্মাণ করা হয় অনেক কষ্টে। এরপর আবারো স্থানীয় দানশীল ব্যক্তিবর্গের সহায়তায় ঘরটিতে টিনের ছাউনী দেয়া হয়। বিদ্যালয়টি প্রশাসনের বিভিন্ন মহল একাধিকবার পরিদর্শন করেছেন এবং বিভাগীয় উপ-পরিচালক, রংপুর মহোদয়ের নিকট তৎকালীন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ৩১.১২.২০১২ ইং তারিখে জেপ্রাশিঅ/দিনাজ/রেজিঃ/২৭২৮ নং স্মারকে পত্র প্রেরণ করেন। এরপর ২৭.০৫.২০১২ তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে এক বৈঠকে বে-সরকারী, রেজিষ্ট্রাড ও কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করণের জন্য একটি সমন্বিত নীতিমালা প্রণয়ণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হওয়ার প্রেক্ষিতে ২১.০৬.২০১২ তারিখে নিবন্ধন/এমপিওভূক্ত স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-সচিব স্বাক্ষরিত পত্র সংশিস্নষ্ট দপ্তরসমূহে প্রেরণের ফলে বিদ্যালয়টি নিবন্ধন/এমপিওভূক্ত করণ কার্যক্রম মূখ থুবড়ে পড়ে।

সর্বশেষ ১২.১১.২০১৩ তারিখের পত্রের আলোকে ৩য় পর্যায়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয় করণের কার্যক্রমে আশার আলো দেখতে পায় বিদ্যালয়টি। এরপর বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের নিমিত্ত গঠিত জেলা যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক ২০.০২.২০১৪ তারিখে অনুষ্ঠিত সভার কার্যবিবরণীসহ বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণের জন্য সুপারিশসহ তথ্য ফরম পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণের জন্য সচিব, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয় এর নিকট প্রেরণ করার পরও বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণের তালিকাভূক্ত হতে না পারায় সংশিস্নষ্ট বিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ হাজার হাজার শিক্ষার্থী চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে পাঠ্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তাই বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণের প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণে সংশিস্নষ্ট এলাকার আপামর জনগণসহ শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীসহ সংশিস্নষ্ট প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

Spread the love