সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিরলে উঠতি বয়সের যুবকদের হামলায় আহত-১॥ দু’দিনের ব্যবধানে পৃথক দু’টি ঘটনায় উদ্বিগ্ন সচেতন মহল

আতিউর রহমান, বিরল (দিনাজপুর)॥বিরলে উত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় উঠতি বয়সের যুবকদের হামলায় আহত সোহেল রানা চিকিৎসাধীন রয়েছে। থানায় এজাহার দায়েরের পর ঘটনার তদন্ত করছে পুলিশ। এর দু’দিন পরে উপজেলায় একই কায়দায় অপর একটি কিশোর গ্যাং হামলা চালিয়ে আপন চাচা ও ভাতিজাকে মারপিটে আহত করে। দু’দিনের ব্যবধানে পরপর দু’টি পৃথক ঘটনায় উঠতি বয়সের যুবকদের গড়ে উঠা অনলাইন ভিত্তিক নেটওয়ার্ক ও ফিল্মি স্টাইলের মারপিটে সচেতন মহলে উদ্বিগ্নতা দেখা দিয়েছে। হামলাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন ভূক্তভোগী ও সচেতন মহলের নেতৃবৃন্দ।উপজেলার ভান্ডারা ইউপি’র ঘাগড়াগাছি গ্রামের আলহাজ্ব মোঃ শহিদুল ইসলামের ছেলে মোঃ মিজানুর রহমান থানার এজাহারে জানান, গত ২৫ জুলাই রবিবার বিকালে তাঁর দুই ভাইয়ের মেয়েসহ একই গ্রামের অপর ২/৩ জন মিলে বাড়ীর পাশে ছাগলকে ঘাস খাওয়ানোর কাজ করছিল। এ সময় পার্শ্ববর্তী রাণীপুকুর ইউনিয়নের কাজিপাড়া (শিমুলতলা) গ্রামের সাজ্জাদ হোসেনের ছেলে নাঈম ইসলাম (২১), নূর জামাল এর ছেলে মেহেদী (২২), সেলিম এর ছেলে বিপ্লব (২৩), বাবুল (নাপিত) এর ছেলে আজাহারুল (২৫) ও কাজিপাড়া (বিলাইমারী) গ্রামের আলিসার ছেলে হারুন (২৪) ও হাশেম এর ছেলে সুজন (২৫)সহ সংঘবদ্ধ দলের উঠতি বয়সের যুবকেরা মেয়েদের নিকট এসে উত্যক্ত করে অশ্লীল ও বিভিন্ন উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলতে থাকে। ঘটনার শিকার মেয়েরা উশৃঙ্খল যুবকদের বাঁধা নিষেধ করায় উল্টো ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করে। সংবাদ পেয়ে ভাতিজা সোহেল রানা ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌছামাত্র সংঘবদ্ধ যুবকেরা এলাপাথারী মারডাং শুরু করে মাথায়, চোখে ও মুখে রক্তাক্ত জখম করে আহত করে। আহতর চিৎকারে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এলে সোহেল রানাকে সুযোগমতো রাস্তাঘাটে একাকী পেলে মেড়ে হাড় ভেঙ্গে দেয়ার ভয়ভীতি ও জীবননাশের হুমকি প্রদান করে পালিয়ে যায়। মুমূর্ষু অবস্থায় আহত সোহেল রানাকে উদ্ধার করে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং উল্লেখিত উঠতি বয়সের যুবকদের বিরুদ্ধে থানায় এজাহার দায়ের করা হয়।থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফখরুল ইসলাম জানান, তদন্ত চলছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সরজমিনে তদন্ত করছেন। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।উল্লেখ্য, উপজেলার রাণীপকুর ইউনিয়নের মৃত সোলাইমান মিয়ার ছেলে স্কুল শিক্ষক জুলফিকার আলী অপর একটি ঘটনায় বাদী হয়ে থানার অভিযোগে জানান, তাঁর ঢাকায় চাকুরীরত ভাই জিল্লুর রহমান গ্রামের বাড়ীতে ফেরার সময় পথরোধ করে একই এলাকার প্রবাসী আবু বক্কর সিদ্দিক এর ছেলে কিশোর গ্যাং এর অন্যতম লিডার আবু জোবায়ের পার্শ্ববর্তী বিষ্ণপুর গ্রামের ওবাইদুর রহমানের ছেলে জীবনসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন একত্রে সংঘবদ্ধ হয়ে গত ২৭ জুলাই মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৫ টার দিকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে শুরু করে। এ সময় জিল্লুর রহমান অকথ্য ভাষা হতে বিরত থাকার আহ্বান জানালে কোন কিছু কর্ণপাত না করে দেশীয় অস্ত্র দিয়ের মারপিট শুরু করে জিল্লুর রহমানকে। তাঁর সাথে থাকা ভাতিজা আহমাদ ইবনুল শাফী মারপিটে বাঁধা দিলে তাঁকে বেধড়ক পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। স্থানীয় লোকজন মারপিট দেখে এগিয়ে আসলে জিল্লুর রহমান এবং তাঁর সাথে থাকা ভাতিজা আহমাদ ইবনুল শাফীকে কোথাও একাকী পেলে জীবনে মেরে ফেলে লাশ গুম করাসহ বিভিন্ন ধরণের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে কিশোর গ্যাংয়ের সকলে পালিয়ে যায়। জিল্লুর রহমান এবং তাঁর সাথে থাকা ভাতিজা আহমাদ ইবনুল শাফীকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে অবস্থার গুরুতর অবনতি হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক আহমাদ ইবনুল শাফীকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য স্থানান্তর করে।হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভূক্তভোগীসহ সচেতন এলাকাবাসী।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email