শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিরলে এক প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ

সুবল রায়, বিরলঃ

দিনাজপুরের বিরলে এক বিদ্যালয়ে চাকুরী দেয়ার নাম করে নেয়া টাকা ফেরত দিয়ে এবং উপজেলা বে-সরকারী শিক্ষক-কর্মচারী সমিতির নের্তৃবৃন্দের উপস্থিতিতে শত শত মানুষের সামনে ক্ষামাপ্রার্থী হয়ে রক্ষা পেলেন এক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।

 

জানা গেছে, দিনাজপুরের বিরল উপজেলার রাণীপুকুর ইউনিয়নের বহবলদিঘী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুবোধ চন্দ্র রায় ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি তাদের বিদ্যালয়ে কৃষি শিক্ষক নিয়োগ দেয়ার নাম করে প্রায় দেড় বছর আগে পার্শ্ববর্ত্তী ভান্ডারা গ্রামের কুথারু চন্দ্র সরকারের পুত্র গরীব ও মেধাবী যুবক খাজুরাম সরকারের কাছ থেকে সবর্বস্ব বিক্রি করে নগদ ৭ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।

 

গত শুক্রবার ঐ পদে নিয়োগ পরীক্ষা হলে প্রধান শিক্ষক কৌশলে ডিজি প্রতিনিধিকে ম্যানেজ করে খাজুরামকে নিয়োগ না দিয়ে প্রধান শিক্ষকের একক মনোনীত প্রার্থী রাঙ্গণ চেচাই হাট গ্রামের প্রভাবশালী তুফানু চন্দ্র সরকারের পুত্র সঞ্জয় চন্দ্র সরকারকে নিয়োগ দেন। ফলে খাজুরামকে নিয়োগ না দেয়ার কারণে এলাকার জনসাধারণ ফুঁসে উঠে গত শনিবার সকালে বিদ্যালয়ে গিয়ে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করলে প্রধান শিক্ষক সুবোধ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য জয়রাম সরকারের ভান্ডারা গ্রামের বাড়ীতে পালিয়ে যায়। এসময় বিদ্যালয় পরিচালানা কমিটির সদস্য বৃন্দ প্রধান শিক্ষকের সন্ধানে জয়রামের বাড়ীতে গিয়ে সম্মতি থাকার পরেও খাজুরাম কেন নিয়োগ দেয়া হলোনা জানতে চেয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে বাক-বিতন্ডা শুরু করলে খাজুরামের পক্ষে এলাকার শত শত মানুষ ঐ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভীড় করতে থাকে।

 

পরে জনরোশষ সামাল দিতে ঘটনাস্থলে ছুটে যান বিরল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক-কর্মচারী সমিতির সভাপতি মুঞ্জরুল হাসান দুলু ও সমিতির অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এসময় তারা ক্ষতিগ্রস্থ খাজুরামকে ৯ লক্ষ টাকা দেয়ার অঙ্গীকার ও প্রধান শিক্ষক সুবোধ চন্দ্র সরকারকে জন সন্মূখে ক্ষমাপ্রার্থী করে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে।

 

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মহোন চন্দ্র সরকার জানান, খাজুরামকে নিয়োগ দেয়ার বিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সকল সদস্য, শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবক, এলাকার জনসাধারণ পক্ষে থাকার পরেও প্রধান শিক্ষক আমাদের ব্যবহারকরে কৌশলে তার মনোনীত প্রার্থীকে নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফলে টিকিয়েছে। যা সর্ম্পূন্ন অন্যায়। প্রধান শিক্ষকের এমন বিশ্বাস ভঙ্গের কাজের জন্য আমি তীব্র প্রতিবাত জানাচ্ছি। এলাকার জনসাধারণ ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দ গত ২০-৩-২০১৫ তারিখে অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল করে আবার নেয়ার জন্য ডিজি প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট মহলের প্রতি দাবী জানিয়েছেন।

Spread the love