মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরলে প্রেমিকের বাড়ীতে প্রেমিকার অনশন

দিনাজপুরের বিরল উপজেলার গৌরীপুর গ্রামে প্রেমিকের বাড়ীতে অবস্থান নিয়ে অনশন করেছে প্রেমিকা। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে লম্পট শিক্ষকের বিরূদ্ধে ধর্ষনসহ শারিরিক নির্যাতনের অভিযোগ এনেছে প্রেমিকা।
সরেজমিনে জানা যায়, দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ৯নং মঙ্গলপুর ইউনিয়নের গৌরিপুর গ্রামের জগেন্দ্র অধিকারী টেপা সাহা’র পুত্র সেনগ্রাম নিমতলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বিনয় চন্দ্র অধিকারী’র সাথে প্রায় ২ বছর আগে বোচাগঞ্জ উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামের কেশরী মোহন দেবশর্মার কন্যা কলেজ পড়–য়া মুক্তা রানীর সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সম্পর্ক তৈরী হওয়ার সাথে সাথে শিক্ষক বিনয় চন্দ্র মুক্তাকে মোবাইল ফোনে বারবার দেখা করার জন্য বলেছিল। অবশেষে মুক্তা তাকে দেখা করার জন্য দিনাজপুরের এক ছাত্রী নিবাসে আসতেও বলে। সাথে সাথে প্রতারক শিক্ষক তার দেয়া ঠিকানায় চলে আসে। শুরু হয় মধুর প্রেমের সম্পর্ক। দিন যায়, কথা হয়, দেখা হয় চলতে থাকে আনাগোনা। এদিকে প্রতারক শিক্ষক বিনয় চন্দ্র মুক্তাকে বিয়ে করবে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছিল বহু দিন ধরে এবং মুক্তাকে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গিয়ে জোর পুর্বক ধর্ষনও করে। মুক্তা তাদের প্রেমের সম্পর্ক শিক্ষক বিনয়ের পরিবারকে জানাতে বললে তা আজ বলবে কাল বলবে বলে কাল ক্ষেপন করতে থাকে।
এদিকে শিক্ষক বিনয়ের বড় ভাই দিনেশ চন্দ্র তার বিয়ে অনত্র ঠিক করলে তা বুঝতে পায় মুক্তা। মুক্তা বিয়ের বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে তাকে মিথ্যা কথা বলে। মুক্তার এই বিষয়ে সন্দেহ হলে নিজেই তার আতœীয় দিয়ে খবর নেন। তারপরেও পুনরায় বলার পরেও মুক্তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে চর থাপ্পর মারতে থাকে। তার এই নির্যাতন সইতে না পেরে মুক্ত বাধ্য হয়ে গত ২৪-২৫ তারিখে উপজেলার ৯নং মঙ্গলপুর ইউনিয়নের গৌরিপুর গ্রামের বাড়ীতে যায়। বাড়ীতেও চলে তার উপর নির্মম নির্যাতন। বাড়ীর সকলে মিলে মেয়েটির উপর অমানুষিক নির্যাতন চালায়।
পরবর্তীতে খবর পেয়ে ইউপি মেম্বারের সোহরাব হোসেন এসে তাকে উদ্ধার করে। তিনি চেয়ারম্যানের নিকট উভয় পক্ষকে সোপর্দ করেন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে কোন সুরাহা হয়নি। অবশ্য স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মিমাংসার জন্য যৌথ সিদ্ধান্তে গত ১ এপ্রিল সমঝোতা বৈঠকে বসার কথা হয়। কিন্তু ছেলে পক্ষ এ নিয়ে গড়িমসি করায় বৈঠকটি ভেস্তে যায়। পরবর্তীতে গতকাল ৮ এপ্রিল বসার সিদ্ধান্ত হলেও ছেলে পক্ষ উপস্থিত না হওয়ায় বৈঠকটি হয়নি। ফলে প্রেমিকা মুক্তা গতকাল মঙ্গলবার থেকে প্রেমিক শিক্ষক বিনয় চন্দ্রের বাড়ীতে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করে। বিষয়টি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।
এ ব্যাপারে বিনয় চন্দ্রের সাথে মোবাইলে (০১৭১৮-৮৯৯১৫৬) যোগাযোগ করা হলে পাওয়া যায়নি। পরে তার বাড়ীতে উপস্থিত হয়ে বড় ভাই দিনেশ চন্দ্রের সাথে ০১৭১৩-৮১৩৬৭৭ নম্বরে যোগাযোগ করে তার সাথে দেখা করতে চাইলে তিনি হুমকির স্বরে বলেন, আপনি কেন আসছেন? এখানে কোন ঘটনা ঘটেনি। ভাল চাইলে ফিরে যান। নাহলে বিপদ আছে।
৯নং মঙ্গলপুর ইউপি চেয়ারম্যান সেরাজুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি জেনেছি এবং প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার চেষ্টা করেছি। তবে এখনও সমাধান হয়নি। সাংবাদিকরা সমাজের দর্পন ও সচেতন নাগরিক হিসেবে আপনাদেরও দায়িত্ব আছে। সে দায়িত্ব আপনার পালন করে নির্যাতিত মুক্তার পাশে দাঁড়ান।
এ ঘটনার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য প্রয়োজনে শিক্ষক বিনয় চন্দ্রের বিরূদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জোর দাবী জানিয়েছেন প্রেমিকা মুক্তাসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ। এ ব্যাপারে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিবর্গের আশু হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email