রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিরলে ফুঁসে উঠেছে খৃষ্টীয় ধর্মাবলম্বী জনগন

ওয়েষ্ট বাংলাদেশ মিশনের সেভেনডে এ্যাডভেন্টিষ্ট কর্মকর্তাদের যোগসাজসে খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বীদের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি চার্চ বিক্রির পায়তারা ফাঁস হয়ে যাওয়ায় ফুঁসে উঠেছে বিরল উপজেলার খৃষ্টীয় ধর্মাবলম্বী জনগন। এছাড়াও দীর্ঘদিন যাবৎ ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান নিয়মিতভাবে পালনকারী চার্চের পালকদের সরিয়ে দিতে নানা রকমের হয়রানী ও মানষিক নির্যাতন করার অভিযোগ উঠেছে। বিরল কেন্দ্রীয় এসডিএ চার্চের পালককে সরাতে মিশন কর্তৃপক্ষ ইউপি চেয়ারম্যানের সরানাপন্ন হওয়ায় বিষয়টি উপজেলায় টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়েছে।
জানা গেছে, উপজেলার পৌরশহরের কেন্দ্রীয় শংকরপুর এসডিএ মুভমেন্ট চার্চের পালক মি. দিনেশ রায় গিত প্রায় ১৫ বছর যাবৎ দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সম্প্রতি ওই চার্চ এর জমি স্থাপনাসহ ওয়েষ্ট বাংলাদেশ মিশনের কতিপয় কর্মকর্তা বিক্রয়ের জন্য গ্রাহক খুজতে থাকায় পালক এর প্রতিবাদ জানান। ফলে মিশন কর্তৃপক্ষ ওই পালককে অন্যত্র বদলী করে। তদুপরী পালক ধর্মীয় রীতি রেওয়াজ মেনে চার্চের মধ্যেই অবস্থান করায় মিশন কর্তৃপক্ষ প্রথমে বিরল থানা ও পরে ইউপি চেয়ারম্যানের সরনাপন্ন হলে বিষয়টি উপজেলার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়। গতকাল সোমবার দুপুরে বিরল সদর ইউনিয়ন পরিষদে এ ব্যাপারে বৈঠক বসলে বিরল কেন্দ্রীয় শংকরপুর এসডিএ চার্চ, বালাপুকুর ও জিনইর এসডিএ চার্চ বিক্রির পায়তারা প্রকাশ পাওয়ায় উপজেলার খ্রীষ্টান ধর্মাবলম্বী জনগণ ওয়েষ্ট বাংলাদেশ মিশনের সেভেনডে এ্যাডভেন্টিষ্ট কর্মকর্তাদের উপর চড়াও হয়। পরে বিষয়টি আদালতের মাধ্যমে নিরসনের প্রস্তাব দেয়া হলে উপস্থিত সকলে শান্ত হয়। আন্তর্জাতিক খ্রীষ্টান সম্প্রদায় ও বাংলাদেশ সেভেনডে এ্যাডভেন্টিষ্ট ইউনিয়ন মিশন ঢাকা’র উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, জিও, এনজিও, মানবাধিকার সংগঠনসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও ধর্মীয় চার্চ রক্ষায় এগিয়ে আসার জন্য উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন উপজেলার খৃষ্টীয় ধর্মাবলম্বী জনগন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email